kalerkantho

বুধবার । ২৩ অক্টোবর ২০১৯। ৭ কাতির্ক ১৪২৬। ২৩ সফর ১৪৪১                 

শহীদ মিনারে কথায় গানে সৈয়দ আশরাফকে স্মরণ

অর্থের পিছে ছোটেননি শুদ্ধপুরুষ

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১২ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শহীদ মিনারে কথায় গানে সৈয়দ আশরাফকে স্মরণ

সদ্যঃপ্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা ও রাজনীতিক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম স্মরণে গতকাল কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ‘অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার সংগ্রামে অকুতোভয় সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম’ শীর্ষক নাগরিক স্মরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট। ছবি : কালের কণ্ঠ

কথা, কবিতা ও গানে স্মরণ করা হলো দেশের রাজনীতির শুদ্ধপুরুষ হিসেবে পরিচিত সৈয়দ আশরাফুল ইসলামকে। সদ্যঃপ্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা ও আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদকের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে জড়ো হয়েছিলেন রাজনীতি আর সাংস্কৃতিক অঙ্গনের বিশিষ্টজনরা। ‘অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার সংগ্রামে অকুতোভয় সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম’ শিরোনামে এ নাগরিক স্মরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট। অনুষ্ঠানের সূচনা হয় প্রয়াত নেতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণের মাধ্যমে। স্মৃতিচারণা করে বক্তারা বলেন, সৈয়দ আশরাফ ছিলেন আপাদমস্তক সৎ ও আদর্শিক একজন মানুষ।

প্রয়াত নেতাকে নিবেদিত কবিতা আবৃত্তি করেন দেশের জনপ্রিয় চার আবৃত্তি শিল্পী সৈয়দ হাসান ইমাম, ভাস্বর বন্দ্যোপাধ্যায়, আহ্কাম উল্লাহ ও রেজিনা ওয়ালী লীনা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া একটি ভিডিওচিত্রে দেখা যায় ক্যান্সারের সঙ্গে লড়াই করা সৈয়দ আশরাফ হাসপাতালের বেডে বসে মগ্ন হয়ে শুনছেন বাউলশিল্পী আব্দুল করিমের গান ‘বন্দে মায়া লাগাইছে’। সিলেট থেকে এসে অনুষ্ঠানে গানটি গেয়ে শোনান শিল্পী লাভলী দেব। ‘তুমি, নির্মল কর, মঙ্গল করে মলিন মর্ম মুছায়ে’ ও ‘বাংলার হিন্দু...বাংলার মুসলমান, আমরা সবাই বাঙালি’ গান দুটি সম্মেলন কণ্ঠে পরিবেশন করেন বাংলাদেশ গণসংগীত সমন্বয় পরিষদের শিল্পীরা। মহিউজ্জামান চৌধুরী ময়না পরিবেশন করেন ‘এমন দেশটি কোথাও খুঁজে পাবে নাকো তুমি’ গানটি।

সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক হাসান আরিফের সঞ্চালনায় স্মরণ অনুষ্ঠানে আলোচনা করেন জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু, নাট্যজন আসাদুজ্জামান নূর ও নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী প্রমুখ। শ্রদ্ধাঞ্জলি পাঠ করেন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মুক্তিযোদ্ধা নাসির উদ্দীন ইউসুফ।

হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘পাকিস্তান আমলে ছাত্রলীগ কর্মী হিসেবে তাঁকে পেয়েছিলাম। যাঁরা স্বাধীন বাংলার স্বপ্ন দেখতেন তার মধ্যে তিনি একজন। রাজনীতিতে কখনো আপস না করা সৎ এই মানুষটি মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় অস্ত্র চালনা শিখেছিলেন আমার হাতে। ১/১১-এর সময় যখন দলের অনেক নেতাকর্মী বিভ্রান্ত হয়েছিলেন, সৈয়দ আশরাফুল ছিলেন নিজের অবস্থানে অটল। এই মানুষটি কখনো ক্ষমতা আর টাকার পেছনে ছোটেননি। আমরা যাঁরা রাজনীতি করি, তাঁরা ফেরেশতাও না শয়তানও না—মানুষ। কিন্তু সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ছিলেন মানুষের মধ্যে ভালো মানুষ।’

আসাদুজ্জামান নূর বলেন, ‘সংকটের সময় এই মানুষটিকে কঠিন হতে দেখেছি। এমপি আর মন্ত্রী অনেকেই হতে পারেন; কিন্তু সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম একজনই হয়।’

খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের স্বপ্ন ছিল বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ে তোলা—যা ৭৫ পরবর্তী সময়ে দুরূহ ব্যাপার ছিল। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে তিনি সব সময় দলকে এগিয়ে নিয়েছেন।

সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায় সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি রেজোয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সঞ্জীত চন্দ্র দাস, কিশোরগঞ্জ ছাত্র কল্যাণ পরিষদ।

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা