kalerkantho

বুধবার । ২১ আগস্ট ২০১৯। ৬ ভাদ্র ১৪২৬। ১৯ জিলহজ ১৪৪০

মুক্তিযুদ্ধ ও অসাম্প্রদায়িক চেতনায় এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয়

জন্মদিনে সবার ভালোবাসায় সিক্ত কালের কণ্ঠ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১১ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ১৬ মিনিটে



জন্মদিনে সবার ভালোবাসায় সিক্ত কালের কণ্ঠ

কালের কণ্ঠ’র দশম জন্মদিনে গতকাল রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ কার্যালয়ের সামনে অনুষ্ঠান মঞ্চে কেক কাটেন জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। এ সময় কালের কণ্ঠ সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন, নির্বাহী সম্পাদক মোস্তফা কামাল, এফবিসিসিআই সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন, বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি আতিকুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। ছবি : কালের কণ্ঠ

‘আংশিক নয়, পুরো সত্য’—এই ব্রত ও বিশ্বাসে তুমুল আনন্দ-উচ্ছ্বাসে গতকাল বৃহস্পতিবার উদ্যাপিত হলো দেশের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় দৈনিক সংবাদপত্র ‘কালের কণ্ঠ’র দশম জন্মদিন। বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে আবারও নতুন করে উচ্চারিত হয় মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে দেশকে এগিয়ে নেওয়া ও গণতান্ত্রিক চেতনায় মানবকল্যাণে আগের মতোই এগিয়ে চলার দৃঢ় প্রত্যয়। প্রতিষ্ঠার ৯ বছর পেরিয়ে নতুন বছরে নতুন আবহে রাষ্ট্রীয়-সরকারি, বেসরকারি, রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ক্রীড়া, আর্থ-বাণিজ্যিক অঙ্গনের নানা পর্যায়ের অতিথি, পাঠক, শুভানুধ্যায়ী, বিজ্ঞাপনদাতাদের প্রাণজাগানিয়া অংশগ্রহণ আর দিনভর ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত হয় কালের কণ্ঠ পরিবার।

সকাল থেকেই শুভেচ্ছা জানাতে ফুল নিয়ে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া লিমিটেড কমপ্লেক্সের কালের কণ্ঠ কার্যালয় প্রাঙ্গণে আসতে থাকেন তাঁরা।

দুপুরে প্রধান অতিথি হিসেবে জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী কেক কাটেন কালের কণ্ঠ’র সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন ও নির্বাহী সম্পাদক মোস্তফা কামালসহ অন্যদের সঙ্গে নিয়ে। ওই সময় আরো উপস্থিত ছিলেন জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম, এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি সফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন ও বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি আতিকুল ইসলাম। বিকেলে অনুষ্ঠিত হয় শিক্ষক সংবর্ধনা। সন্ধ্যা পেরিয়ে রাত অবধি বিভিন্ন সময়ে আসেন সরকারের মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, রাজনীতিক, বড় পর্দা-ছোট পর্দার তারকা অভিনেতা-অভিনেত্রী ও শিল্পী-কলাকুশলী। আসেন ক্রীড়াঙ্গনের তারকারাও।

জন্মদিন উপলক্ষে বর্ণিল সাজে সাজানো হয় কালের কণ্ঠ’র কেন্দ্রীয় কার্যালয়। গতকাল ঢাকায় এবং সারা দেশে কালের কণ্ঠ’র জন্মদিন একইভাবে উদ্যাপিত হয় নানা আয়োজনে। ঢাকায় ৩০ জন শ্রদ্ধেয় শিক্ষকের ছবি দিয়ে সাজানো হয় পুরো প্রাঙ্গণ। ছবির ওপরে লেখা কোথাও ‘ধন্যবাদ স্যার’, কোথাও ‘ধন্যবাদ আপা’। এর বাইরে ছিল জন্মদিনের বিলবোর্ড ও ব্যানার।

সকাল ১১টা বাজতেই একে একে ফুল হাতে ভালোবাসা জানাতে আসতে থাকেন শুভানুধ্যায়ীরা। শুভেচ্ছা মঞ্চে দাঁড়িয়ে কালের কণ্ঠ সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন ও নির্বাহী সম্পাদক মোস্তফা কামাল তাঁদের অভ্যর্থনা জানান।

রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে হাতে ফুল আর হৃদয়ভরা ভালোবাসা নিয়ে কালের কণ্ঠ’র দশম জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানাতে এসেছিলেন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। এসেছিলেন র‌্যাব-পুলিশ বাহিনীর কর্মকর্তারাও। নানা ধরনের আপ্যায়নে আপ্যায়িত করা হয় অতিথিদের। 

জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, ‘আজকে (গতকাল বৃহস্পতিবার) কালের কণ্ঠ ১০ বছরে পদার্পণ করছে। এটি একটি খুবই বিশেষ দিন। কারণ আজ ১০ই জানুয়ারি। এই দিনটি ইতিহাসের ঐতিহাসিক দিন। এই দিনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস এবং আজকের এই দিনে কালের কণ্ঠ ১০ বছরে পদার্পণ করছে। এই শুভ দিনে আমি কালের কণ্ঠ’র সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানাচ্ছি।’

স্পিকার  আরো বলেন, ‘কালের কণ্ঠ তার লেখনী ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করে মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তি হিসেবে নিবেদিতভাবে গত ১০ বছর কাজ করেছে। আশা করি আগামীতেও পথচলায় বাংলাদেশের মানুষের কথা বস্তুনিষ্ঠভাবে সংবাদ পরিবেশনের মধ্য দিয়ে কালের কণ্ঠ তার ঐতিহ্যকে ধরে রাখবে এবং সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবে।’

বিকেলে বিশেষ আয়োজন দেশ সেরা শিক্ষকদের সম্মাননা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল মান্নান।

যারা স্বশরীরে উপস্থিত হতে পারেননি তারা শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ফোনে। স্বনামখ্যাত লেখক-সাংবাদিক আবদুল গাফফার চৌধুরী ফোনে শুভেচ্ছা জানান লন্ডন থেকে।

শুভেচ্ছা জানাতে এসেছিলেন যারা : শুভেচ্ছা জানাতে আসেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, বন ও পরিবেশ মন্ত্রী শাহাব উদ্দিন, নৌ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, বিরোধীদলীয় উপনেতা জি এম কাদের, খুলনা-৬ আসনের সংসদ সদস্য মো. আক্তারুজ্জামান বাবু, পুলিশের মহাপরিদর্শক ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী, র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ, বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজা) নির্বাহী চেয়ারম্যান (সচিব) পবন চৌধুরী, বেজার নির্বাহী সদস্য হারুনুর রশীদ।

পরিবেশ বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী শাহাব উদ্দিন শুভেচ্ছা জানাতে এসে বলেন, ‘বাংলাদেশের বহুল প্রচারিত পত্রিকা কালের কণ্ঠ। জনপ্রিয় এই পত্রিকাটি সব সময় সত্য ও জনগণের কথা বলে। স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে এর অবস্থান। আমি কালের কণ্ঠের উত্তরোত্তর মঙ্গল কামনা করি।’

ফুলেল শুভেচ্ছা জানান প্রধানমন্ত্রীর প্রেসসচিব ইহসানুল করিম ও উপ-প্রেসসচিব আশরাফুল আলম খোকন।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিসমাতা ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান, ড. আব্দুল মঈন খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান মে. জে. (অব.) রুহুল আলম চৌধুরী, শামসুজ্জামান দুদু, সেলিমা রহমান, বরকত উল্লাহ বুলু, সাবেক সংসদ সদস্য জহির উদ্দিন স্বপন, চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান আসেন ভালোবাসা জানাতে।

এ ছাড়া রাজনীতিবিদদের মধ্যে শুভেচ্ছা জানান আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, উপদপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, ন্যাপের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন, সাবেক সংসদ সদস্য মাহজাবীন খালেদ, ডাকসু’র সাবেক জিএস ডা. মোশতাক হোসেন প্রমুখ। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমির মুফতি সৈয়দ রেজাউল করীম চরমোনাই পীরের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা জানান ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি মাওলানা ইমতিয়াজ আলম, উত্তরের সভাপতি শেখ ফজলে বারী মাসউদ ও সংগঠনের নেতা শহিদুল ইসলাম কবির। অল ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে সহসভাপতি এম নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে নেতারা শুভেচ্ছা জানাতে আসেন। ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের সম্পাদক ডা. ওয়াজেদুল ইসলাম খান ফোন করে শুভেচ্ছা জানান।

দশম জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানাতে আসেন পুলিশ সদর দপ্তরের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি-মিডিয়া) এস এম রুহুল আমিন, সহকারী মহাপরিদর্শক (এআইজি-মিডিয়া) মো. সোহেল রানা, সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা এ কে এম কামরুল আহছান, র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার মুফতি মাহমুদ খান, সহকারী পরিচালক মিজানুর রহমান ভুইয়া, ঢাকা মহানগর পুলিশের উপকমিশনার (ডিসি-মিডিয়া) মাসুদুর রহমান, অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি-মিডিয়া) ওবায়দুর রহমান, সহকারী কমিশনার (এসি-মিডিয়া) মোহাম্মদ তয়াছির জাহান বাবু, কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার ইকবাল কবির, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপপরিচালক (ডিডি) দেবাশীষ বর্ধন, সংসদ সচিবালয়ের পরিচালক (গণসংযোগ) মো. তারিক মাহমুদ, জাতীয় সংসদের নিরাপত্তা বিভাগের প্রধান (সার্জেন্ট অ্যাট আর্মস) মোস্তাক আহমেদ।

মিডিয়ার পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা জানান বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নঈম নিজাম, নির্বাহী সম্পাদক পীর হাবিব, জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি ও যুগান্তরের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক সাইফুল আলম, জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমীন, ডেইলি সান সম্পাদক এনামুল হক চৌধুরী, নিউজ টোয়েন্টিফোরের নির্বাহী পরিচালক হাসনাইন খুরশেদ, কালের কণ্ঠ প্রকাশক ময়নাল হোসেন চৌধুরী, বাংলা নিউজ টোয়েন্টিফোরের সম্পাদক জুয়েল মাজহার, দেশ রূপান্তরের সম্পাদক অমিত হাবিব, বিএফইউজে সভাপতি মোল্লা জালাল ও মহাসচিব শাবান মাহমুদ, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রকাশনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ইশতাক হোসেন, পরিচালক আবুল কালাম মো. সামছুদ্দিন, উপপরিচালক সেলিনা আকতার ও সহকারী পরিচালক ডায়ানা ইসলাম সিমা, ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ, ইডাব্লিউএমজিএলের প্রেস ইউনিট, ক্যাপিটাল এফএমের নাফিস রেদোয়ান শান্ত, বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ক্র্যাব) সহসভাপতি মিজান মালিক, সাধারণ সম্পাদক দীপু সারোয়ার, আলোকিত বাংলাদেশ, আজকের পত্রিকা।

ফুলেল শুভেচ্ছা জানাতে আসেন ঢাকা সংবাদপত্র হকার্স সমিতি লিমিটেডের পক্ষে চেয়ারম্যান মো. মোস্তফা কামাল, সেক্রেটারি আব্দুল মান্নান, সার্কুলেশন ম্যানেজার আবুল কালাম ও অন্যান্য নেতা। সংবাদপত্র হকার্স কল্যাণ সমিতি লিমিটেডের পক্ষে শুভেচ্ছা জানান সভাপতি বাহার মিয়া, সেক্রেটারি মো. শাহাবুদ্দিন, প্রধান উপদেষ্টা মো. আলাউদ্দিন, উপদেষ্টা আব্দুর রাজ্জাক ও অন্য নেতারা। বাংলাদেশ সংবাদপত্র এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষে সভাপতি হারুনুর রশিদ, সেক্রেটারি আবুবকর সিদ্দিক, কোষাধ্যক্ষ আজিজুল হক, মহিলাবিষয়ক সম্পাদিকা কহিনুর বেগম ও অন্য নেতারা। ঢাকা সংবাদপত্র হকার্স বহুমুখী সমবায় লিমিটেডের নেতারা।

বিশিষ্টজনদের মধ্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান, বিশিষ্ট ক্রীড়া লেখক ইকরামুজ্জমান, কথাসাহিত্যিক আতা সরকার, হাবিব আনিসুর রহমান, নাসিমা আনিস, কবি মাকিদ হায়দার, সাবেক মন্ত্রিপরিষদসচিব ড. সা’দত হুসাইন, ডাকসুর সাবেক জিএস ডা. মুশতাক হোসেন, সম্প্রীতি বাংলাদেশের পক্ষে অভিনয়শিল্পী পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়, অধ্যাপক ডা. মামুন আল মাহতাব স্বপ্নীল, মেজর জে. (অব.) মোহাম্মদ আলী সিকদার শুভেচ্ছা জানান।

শিক্ষাবিদ ও শিক্ষকদের মধ্যে ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আবদুল মান্নান চৌধুরী, সাউথইস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. এ এন এম মেশকাত উদদীন ও বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সদস্য এম কামালউদ্দিন চৌধুরী এবং বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির  নজরুল ইসলাম রনি ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।

সংগীত, চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন তারকা ও নির্মাতাদের পদচারণে মুখর হয়ে উঠেছিল কালের কণ্ঠ প্রাঙ্গণ। এসেছিলেন সংগীতশিল্পী কুমার বিশ্বজিৎ, ফকির আলমগীর, ফেরদৌস আরা, ধ্রুব গুহ, শফিক তুহিন, মিলন মাহমুদ, নূরজাহান আলীম, তরুণ মুন্সি, সুজন আরিফ, পুলক অধিকারী, ঐশী, সেনিজ, কাজল আরিফ, সাবরিনা সাবা, খন্দকার বাপ্পী, গীতিকার শহীদুল্লাহ ফরায়জী, আফতাব মাহমুদ খুরশিদ, গুঞ্জন রহমান, ওমর ফারুক, নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকী, রেদওয়ান রনি, মাসুদ সেজান, মুস্তাফিজুর রহমান মানিক, চয়নিকা চৌধুরী, দীপংকর দীপন, শাফায়েত মনসুর রানা, তৌহিদ মিটুল ও উত্তম আকাশ; অভিনয়শিল্পী নাদের চৌধুরী, লুত্ফর রহমান জর্জ, শাহেদ আলী, আহসান হাবিব নাসিম, নিপুণ, জ্যোতিকা জ্যোতি, মৌটুসী বিশ্বাস, আরিফিন শুভ, ইমন, নিরব, সাইমন, আরজু খান, হাসান জাহাঙ্গীর, হারুন রশিদ, সাইফ চন্দন, বিথি রানী সরকার, জান্নাতুল ফেরদৌস পিয়া; উপস্থাপক আনজাম মাসুদ, ফারহানা নিশো, সৈকত সালাউদ্দিন। এ ছাড়া ছিলেন আরজে সায়েম, অন্তর শোবিজের স্বপন চৌধুরী, জাজ মাল্টিমিডিয়ার আব্দুল আজিজ প্রমুখ।

কালের কণ্ঠকে আরো শুভেচ্ছা জানাতে আসেন সোস্যাল ইসলামী ব্যাংকের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আনোয়ারুল আজিম আরিফ, রূপায়ণ গ্রুপ লিমিটেডের উপদেষ্টা আব্দুল গাফফার, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের সচিব রবীন্দ্রশ্রী বড়ুয়া, জনসংযোগ কর্মকর্তা এ এস এম মামুন, হুয়াওয়ে বাংলাদেশের পিআর ম্যানেজার সুমন সাহা, অপো বাংলাদেশ হেড অব মার্কেটিং আইওনু এবং মার্কেটিং ও পিআর ম্যানেজার মো. ইফতেখার উদ্দিন সানি, বেসরকারি সংস্থা লিডার্সের নির্বাহী পরিচালক মোহন কুমার মণ্ডল। অ্যাড প্লাস, এসিআই লজিস্টিকস লিমিটেড (স্বপ্ন)-এর নির্বাহী পরিচালক সাব্বির হাসান নাসির ও মিডিয়া হেড আফতাবুল করিম তানিম, জাতীয় বিতর্ক সংগঠন ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ, অ্যাপোলো হাসপাতাল ঢাকার ডিজিএম (বিজনেস ডেভেলপমেন্ট) আখতার জামিল আহমেদ।

শুভেচ্ছা জানান বসুন্ধরা কিংস, বসুন্ধরা গ্রুপের সেক্টর এ, টাইগার আইটির পক্ষে রাজীব আহমেদ চৌধুরী।

বিভিন্ন বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান ও বিজ্ঞাপনী সংস্থার পক্ষ থেকে কালের কণ্ঠ’র জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানানো হয়। এর মধ্যে ছিলেন এশিয়াটিক মাইন্ডশেয়ার ও গ্রুপ এম-এর অ্যাসোসিয়েট ডিরেক্টর ক্ষিতিশ পাল, মিডিয়া ম্যানেজার শরিফ হোসেন  ও জামশেদ আলম মজুমদার, বিএসবি ক্যামব্রিয়ান এডুকেশন গ্রুপের চেয়ারম্যান লায়ন এম কে বাশার এমজেএফ, বিকাশ-এর হেড অব করপোরেট অ্যাফেয়ার্স শামসুদ্দিন হায়দার ডালিম ও অ্যাসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার-মিডিয়া অ্যান্ড পিআর রোকসানা আকতার মিলি, নগদ-এর সিনিয়র এক্সিকিউটিভ করপোরেট অ্যাফেয়ার্স নাকিব চৌধুরী, ফরহাদ হোসেন ও মিডিয়া ম্যানেজার কাজী রিয়াজুল ইসলাম, কেকে স্পোর্টসের মিডিয়া ম্যানেজার সাইফুল ইসলাম, প্রচিত আইএমসির জেনারেল ম্যানেজার রওশনয়ারা জামান মিলি, এআইইউবির  এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর লুত্ফর রহমান, ফারইস্ট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ডেপুটি রেজিস্ট্রার মামুন আল মতিন ও পিআরও খন্দকার আরাফাত আলী, প্রতিশব্দ কমিউনিকেশনের এস কে মুজতবা মারুফ, মাইওয়ান ইলেকট্রনিকসের ব্রান্ড ম্যানেজার কে এম গোলাম কিবরিয়া, লোটো স্পোর্টসের  ম্যানেজার তন্ময় মিত্র, উত্তরা ইউনিভার্সিটির পিআরও মোবারক হোসেন, প্রবাসী পল্লী গ্রুপের ম্যানেজার জিল্লুর রহমান, মিডিয়াকমের আব্দুল মতিন, রুহুল আমিন, পার্থ রঞ্জন শীল, মাহমুদা আক্তার লাকি, বিসিপিআর পরিচালক মুহাম্মদ ইমতিয়াজ, কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. নজরুল ইসলাম, অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর কাজী আলী ইমাম, ডিরেক্টর ড. মামুন আল বশির, হাভাস মিডিয়ার মিডিয়া ম্যানেজার সাহিদুর রহমান, রূপায়ণ গ্রুপের মিডিয়া ম্যানেজার মেহেদি হাসান, ইউনিভার্সেল মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের ফরহাদ হোসেন ও সিএফ জামান, অ্যাগ্রোভিটা কম্পানি লিমিটেডের চেয়ারম্যান ক্যাপ্টেন এম মোয়াজ্জেম হোসেন, বিইউপির ডেপুটি ডিরেক্টর  জাহাঙ্গীর কবির, পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের আক্তার উজ জামান, জনতা ব্যাংকের এজিএম জাহাঙ্গীর আলম, অগ্রণী ব্যাংক এসপিও মফিজুর রহমান, ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের উপপরিচালক দেবাশীষ কুমার, বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের উপপরিচালক শামীম হাসান, কর অঞ্চল-১৫-এর কমিশনার মাহবুবা হোসাইন, গোমতী অ্যাডের রনি, টিকে গ্রুপের ডিরেক্টর মোকাম্মেল হক, ম্যানেজার আশরাফ হোসেন, ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটির সহকারী পরিচালক আনোয়ার হাবিব কাজল, ইউল্যাবের উপপরিচালক ওয়াহিদুজ্জামান, ইউআইইউর উপপরিচালক আবু সাদাত, মাত্রার ম্যানেজার সায়মা বেগম রিতু, স্টার সিনেপ্লেক্সের ম্যানেজার মেজবাহ উদ্দিন, বিআরবি কেবলসের কামরুজ্জামান চমক, শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকের এসভিসি ও হেড অব পিআরডি শামচ্ছুদ্দোহা শিমু ও পিআরও হারুনর রশীদ, এনআরবি ব্যাংকের হেড অব পিআরডি রায়হান কাওসার ও পিআরও সালাউদ্দিন মুরাদ, অ্যাপোলো হাসপাতালের জেনারেল ম্যানেজার আফতার মোহাম্মদ খুরশীদ, রংধনু গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাওসার আহমেদ সিইও লে. কর্নেল (অব.) কামরুল হাসান ও হেড অব মিডিয়া শাহেদ আল কামাল, এডিসন গ্রুপের মার্কেটিং ম্যানেজার এস এম শাহরিয়ার হুদা, প্রেসিডেন্সি ইউনিভার্সিটির সহকারী পরিচালক নার্গিস সাবা রানী, পিআরও জাহিদ হাসান ও সিনিয়র অফিসার আব্দুর নূর, সাকো ওয়াচ কম্পানির জেনারেল ম্যানেজার এম লুত্ফর রহমান, প্রাণ-আরএফএলের মিডিয়া বিভাগের মাসুদ রানা জিতু, খন্দকার হাফিজুর রহমান, লুবনার ট্রেডের সাব্বির আহমেদ ও ইমন আহমেদ, অপোর ব্র্যান্ড ম্যানেজার ইফতেখার সানি, ওরিয়ন গ্রুপের ব্র্যান্ড ও কমিউনিকেশন অফিসার তানভীর আহমেদ, এসিআই লজিস্টিকস লিমিটেডের নির্বাহী পরিচালক সাব্বির হাসান নাসির ও হেড অব মিডিয়া সোহেল তানভীর খান, গ্লোব সফট ড্রিংকসের মিডিয়া ম্যানেজার রিয়াজ হোসেন ও সাব্বির আহমেদ। ইউনাইটেড হাসপাতালের মিডিয়া ম্যানেজার সাজ্জাদুর রহমান শুভ, এক্সিম ব্যাংকের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট সঞ্জীব চ্যাটার্জী ও সিনিয়র অফিসার আশরাফুল আলম হান্নান, দি সিটি ব্যাংকের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মির্জা গোলাম ইয়াহিয়া, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের চিফ গ্রুপ অব কমিউনিকেশন অফিসার আজম খান, আইডিএলসি লিমিটেডের মার্কেটিং হেড শেরিফা আমরিন, এপেক্স ফুটওয়্যার লিমিটেডের মিডিয়া হেড জোহেব আহমেদ ও ব্র্যান্ড ম্যানেজার রিফাতুল করিম, কনকর্ড গ্রুপের মিডিয়া হেড মাহফুজুর রহমান টুটুল ও জামাল উদ্দিন ভূঁইয়া শামীম, বিটিআইয়ের হেড অব মিডিয়া আবদুল্লাহ আল তুষার ফারমার্স ব্যাংকের পিআরও শামিমা রশনি ও ফারিহা মোশারফ, বিটুপি অ্যাডভারটাইজিংয়ের হেড অব প্ল্যানিং ফায়েজ, মিডিয়া ম্যানেজার আলী জিন্নাহ, গ্রে অ্যাডভারটাইজিংয়ের মিডিয়া ম্যানেজার ফিরোজ আল শামস, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী পরিচালক (হিসাব) একরামুল হক, আইএসপিআরের সহকারী পরিচালক (নৌবাহিনী) রাশেদুল আলম খান, সহকারী তথ্য অফিসার (বিমানবাহিনী) আয়শা সিদ্দিকা, বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের প্রধান জনসংযোগ কর্মকর্তা আমিরুল মঞ্জুর, বেসিক ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আহম্মদ হোসেন, মার্কেন্টাইল ব্যাংকের হেড অব পিআরডি আব্দুল হামিদ সোহাগ, পপুলার লাইফ ইনস্যুরেন্সের ডিএমডি আলমগীর ফিরোজ রানা, আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংকের হেড অব পিআরডি ও প্রাব-এর সাধারণ সম্পাদক জালাল আহমেদ স্বপন, বিকন গ্রুপের ডেপুটি ম্যানেজার আহাদুর রহমান ও মিডিয়া ম্যানেজার অনিন্দ্য অভিক হোসেন, প্রাইম ইনস্যুরেন্সের হেড অব পিআরডি আসাদুজ্জামান, আইএফআইসি ব্যাংক হেড অব পিআরডি নায়লা তারান্নুম চৌধুরী, ওয়ালটন গ্রুপের পিআর মিডিয়া মোস্তাফিজুর রহমান, প্রাইম ব্যাংকের হেড অব পিআরডি ও বাংলাদেশ জনসংযোগ সমিতির সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান টিপু, ব্যাংক এশিয়া বসুন্ধরা শাখা প্রধান ওয়াহিদুর রহমান, বাংলাদেশ জনসংযোগ সমিতির আসাদুজ্জামান ও আতা সরকার, পূবালী ব্যাংকের মোর্শেদুর রহমান, অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজের ডিজিএম মার্কেটিং মাহবুবুল আমিন, আনোয়ার গ্রুপের আহাদুজ্জামান, ডাচ-বাংলা ব্যাংকের ইব্রাহীম সরকার, ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশের সিনিয়র অফিসার খায়রুল বাশার ও পিও শেখ রিয়াজ উদ্দিন, এনআরবিসি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক খন্দকার রাশেদ মাকসুদ, হেড অব পিআরডি রুহুল আমীন, এবি ব্যাংকের সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার এস এম আবুল কালাম আজাদ ও তারিকুল ইসলাম, বেস্ট ইলেকট্রনিক্সের সহকারী ব্যবস্থাপক ব্র্যান্ড রাকিবুল ইসলাম, গোমতী অ্যাড প্রপ্রাইটর রনি, রায়হান অ্যাড প্রপ্রাইটর কামাল, অরিত্র অ্যাডের ম্যানেজার মারুফ, স্বর্ণা অ্যাডের ম্যানেজার মামুন, সারা অ্যাডের কবির, শাপলা মিডিয়া অ্যাডের স্বত্বাধিকারী নজরুল ইসলাম, গোল্ডেন মিডিয়া অ্যাডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রায়হান মামুন, ওয়েস্টার্ন মিডিয়া অ্যাডের স্বত্বাধিকারী সালাউদ্দীন আহমেদ স্বপন, টপমোস্ট কমিউনিকেশনসের স্বত্বাধিকারী মিজানুর রহমান, রূপন্তী মিডিয়া অ্যাডের স্বত্বাধিকারী শাহীন।

শুভেচ্ছা জানাতে আরো এসেছিলেন বাংলালিংক ডিজিটাল কমিউনিকেশনসের মিডিয়া অপারেশনস সিনিয়র এক্সিকিউটিভ, মার্কেটিং তাসনীম আজিজ অনন্যা, সিনিয়র ম্যানেজার, মার্কেটিং নাজমুল হক মিডিয়া অপারেশনস ম্যানেজার, মার্কেটিং সালমান আহমেদ প্রাইম ইউনিভার্সিটির ডেপুটি রেজিস্ট্রার এ কে এম সাইফুল্লাহ, সহকারী রেজিস্ট্রার মো. সেলিম, জনসংযোগ কর্মকর্তা রাকিবুল ইসলাম আর আর ইম্পেরিয়াল ইলেকট্রিক্যালসের পরিচালক এ এস এম মনজুর মোরশেদ ও এ এন এম আহসানুল বারী, আশা ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) ও প্রক্টর আশরাফুল হক চৌধুরী, ইউরোপিয়ান ইউনিভার্সিটির পরিচালক, জনসংযোগ মনিরুল ইসলাম রিন্টু, নকিয়ার হেড অব বিজনেজ ফারহান রশীদ, মার্কেটিং লিড ইফফাত জহুর, অ্যাড প্লাসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হারুন অর রশীদ, স্টারকম বাংলাদেশের অ্যাসোসিয়েট মিডিয়া ম্যানেজার রিপা খান, অ্যাকাউন্ট লিড তারান্নূম বুশরা, আলম মিডিয়া অ্যাসোসিয়েটের রাকিব আল রাকী। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের পক্ষ থেকেও শুভেচ্ছা জানানো হয়।

এ ছাড়া জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ১১টায় কালের কণ্ঠ’র লোগো সংবলিত টিশার্ট গায়ে বর্ণিল শোভাযাত্রার আয়োজন করেন কালের কণ্ঠ’র পাঠক সংগঠন শুভসংঘ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা।

শোভাযাত্রায় উপস্থিত থেকে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. আতিয়ার রহমান বলেন, কালের কণ্ঠ একটি বিশ্বাসযোগ্য দৈনিক। এই পত্রিকার প্রতি মানুষের আস্থা ধীরে ধীরে বাড়ছে। পত্রিকাটির পাঠক সংগঠন শুভসংঘের বিশ্ববিদ্যালয়ে যে স্বেচ্ছাসেবী কার্যক্রম, তা প্রশংসনীয়। আজকের সুশৃঙ্খল শোভাযাত্রার মাধ্যমে একটি বিষয় দেখলাম যে শৃঙ্খলার মধ্যে থেকে যেকোনো কার্যক্রম শেষ করা সম্ভব।

এর আগে কালের কণ্ঠ’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর শুভ সূচনা করা হয় গত বুধবার সন্ধ্যায় কেক কেটে। ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপের কনফারেন্স হলে আয়োজিত অনুষ্ঠানে কেক কেটে নবম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর শুভক্ষণের সূচনা করেন দেশের শীর্ষ শিল্পগোষ্ঠী বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীর, তাঁর সহধর্মিণী ও গ্রুপের পরিচালক সাবরিনা সোবহান।

অনুষ্ঠানে সায়েম সোবহান আনভীর সবাইকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, ‘কালের কণ্ঠ ১০ বছরে পা রেখেছে সফলভাবে। পাঠকের গ্রহণযোগ্যতা অর্জন করে, দেশের মানুষের কণ্ঠস্বর হয়ে উঠেছে এটি। আরো ১০ বছর, তারও বেশি সময় ধরে এগিয়ে যাবে প্রতিষ্ঠানটি।

 

 

মন্তব্য