kalerkantho

রবিবার । ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৫ ডিসেম্বর ২০২১। ২৯ রবিউস সানি ১৪৪৩

জেলার খেলা : ভোলা

পেছনের মানুষ

জাতীয় পর্যায়ে খেলোয়াড় জোগাড়ের পাইপলাইনই হচ্ছে ছোট-   

৫ জুন, ২০১৫ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পেছনের মানুষ

ইয়ারুল আলম

ক্রীড়াঅন্তপ্রাণ বলে খ্যাতি আছে গোলাম কিবরিয়া জাহাঙ্গীরের। ভোলায় যখন ফুটবলের রমরমা যুগ তখন তিনি প্রায়ই চলে আসতেন ঢাকায়। ভোলায় খেলানোর জন্য নিয়ে আসতেন নামি খেলোয়াড়দের। কখনো নিয়ে আসতেন পুরো দলই। ফুটবলের পাশাপাশি ভালোবাসতেন ক্রিকেটও। আশির দশকে ভোলায় প্রথম ক্রিকেট লিগ চালু করার পেছনে রেখেছিলেন গুরুত্বপূর্ণ অবদান। পাশাপাশি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন জেলার অন্যতম সফল ক্লাব শাহবাজপুর স্পোর্টিংয়ের গড়ে ওঠার পেছনেও।

গোলাম কিবরিয়া জাহাঙ্গীরের সঙ্গে ভোলায় প্রথম ক্রিকেট লিগ আয়োজনে অবদান ছিল সে সময়ের জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান নোমানের। তাঁদের উৎসাহ জুগিয়েছিলেন তখনকার পুলিশ সুপার মাজহারুল ইসলাম। এ নিয়ে গোলাম কিবরিয়া জাহাঙ্গীর জানালেন, 'প্রথম লিগে চারটা ক্লাব অংশ নিয়েছিল। ফুটবলের জোয়ারে ক্রিকেটের দল গড়া কঠিন ছিল তখন। দুই দশকের ব্যবধানে কি বৈপরীত্য এখন। ফুটবলের নামই নেই আর রাজত্ব করছে ক্রিকেট।'

এক যুগের বেশি জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে ইয়ারুল আলম লিটন। সাবেক এই অ্যাথলেট রাজনীতিতে জড়ান নব্বইয়ে দশকে। এরপর ক্রীড়াপ্রেমেই এসেছেন জেলা ক্রীড়া সংস্থায়। আওয়ামী লীগ, বিএনপি এমনকি ১/১১-র তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ও দায়িত্ব পালন নিয়ে উৎফুল্ল তিনি, 'আমাদের ক্রীড়াঙ্গনে কোনো রাজনৈতিক প্রভাব নেই। জেলা ক্রীড়া সংস্থার কমিটিতে আছে সব দলের লোক। মিলেমিশেই কাজ করে যাচ্ছি খেলার প্রসারে।'

মুনতাসির আলম রবিন চৌধুরী জেলা ক্রীড়া সংস্থার পাশাপাশি জেলা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনেরও যুগ্ম সম্পাদক। ১৫ বছর ধরে জড়িয়ে জেলা ক্রীড়া সংস্থায়। যেকোনো টুর্নামেন্ট আয়োজনে সত্যিকারের পেছনের মানুষ হয়ে ভূমিকা রেখে চলেন রবিন চৌধুরী। ডিএসের দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি তিনি জেলার অন্যতম সফল ক্লাব শাহবাজপুরের সাধারণ সম্পাদকও। স্থানীয় মেয়র মনিরুজ্জামান মনিরও ক্রীড়াঅন্তপ্রাণ। তাঁর উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হচ্ছে জমজমাট মেয়র কাপ ফুটবল। এই টুর্নামেন্টটা নিয়মিতই করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন মনিরুজ্জামান।

 

 



সাতদিনের সেরা