kalerkantho

শুক্রবার । ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৫ রবিউস সানি          

বিজ্ঞান পরামর্শ

যা পড়েছ তা-ই ভালো করে রিভিশন দাও

চিন্ময় ভুঁইয়া, সিনিয়র শিক্ষক, বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ পাবলিক কলেজ, পিলখানা, ঢাকা

১৫ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



যা পড়েছ তা-ই ভালো করে রিভিশন দাও

বিজ্ঞান অনেকের কাছেই কঠিন ও জটিল মনে হলেও আসলে এটি খুবই সহজ একটি বিষয়। এখানে ভালো ফল করা বা এ প্লাস পাওয়া খুবই সহজ যদি একটু বুঝে পড়া যায়। শুধু প্রয়োজন একটু পরিকল্পনা। কিভাবে পড়লে সহজে আত্মস্থ করা যাবে, সেদিকে লক্ষ রাখতে হবে। এখানে চট করে কোনো কিছু ঘটে যায় না। সব কিছু ঘটে একটি নিয়ম মেনে। সেটিই বুঝতে হবে। কী হলো, কেন হলো, কিভাবে হলো, বিষয়টি কী—এগুলো যারা বুঝতে পারে তারাই বিজ্ঞান সহজে আত্মস্থ করতে পারে। তাই বিজ্ঞান শিক্ষা করতে হবে বুঝে বুঝে। আর যা দরকার, সেটি হলো লেখা। যা পড়বে তা-ই লিখতে হবে। পড়বে লিখে লিখে। তাহলে মনে থাকবে ভালো, আর লেখার মাঝে ভুল থাকলে সেটিও সংশোধন করা যাবে।

এখন তো পরীক্ষা দরজায় কড়া নাড়ছে। এ সময় কিভাবে প্রস্তুত হবে? এ সময় তৈরি হতে গেলে তো সব নতুন করে পড়া সম্ভব নয়। তাই কী দরকার? দরকার, যা পড়েছ তা-ই ভালো করে রিভিশন করা। লক্ষ রাখতে হবে, কোন অংশ ভালো শেখা হয়েছে। জীববিজ্ঞান অংশ, পদার্থ-রসায়ন অংশ, খাদ্যপুষ্টি নাকি বাস্তুতন্ত্র অংশ—কোন অংশ ভালো পারো সেটা মাথায় নিয়ে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি নিতে হবে। বিজ্ঞানে সৃজনশীল অংশে ১১টি সৃজনশীল প্রশ্ন থাকে। আর অধ্যায় আছে ১৪টি। তার মাঝে প্রথম থেকে পঞ্চম—এই পাঁচটি অধ্যায় জীববিজ্ঞান। ষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ পদার্থ-রসায়ন আর ত্রয়োদশ অধ্যায় খাদ্যও পুষ্টি এবং সব শেষে চতুর্দশ অধ্যায় হলো বাস্তুতন্ত্রের অন্তর্ভুক্ত। বিগত বছরের বোর্ড প্রশ্নগুলো পর্যবেক্ষণ করলে দেখা যায় যে প্রথম পাঁচটি থেকে চারটি বা পাঁচটি সৃজনশীল, ষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ—এই সাতটি অধ্যায় থেকে পাঁচটি সৃজনশীল আর ত্রয়োদশ ও চতুর্দশ অধ্যায় থেকে একটি বা দুটি সৃজনশীল প্রশ্ন এসেছে। তাই সৃজনশীল প্রশ্নের জন্য প্রস্তুতি নেওয়ার সময় লক্ষ রাখতে হবে এই প্রশ্ন বিভাজনের দিকে। যদি কারো জীববিজ্ঞান অংশে দখল বেশি থাকে, তবে প্রথম পাঁচটি অধ্যায়ে জোর  দেবে বেশি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা