kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৬ অক্টোবর ২০২২ । ২১ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

ইসলামে নবী-পরিবারের বিশেষ মর্যাদা

মাওলানা মুহাম্মদ মুনিরুল হাছান   

১১ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ইসলামে নবী-পরিবারের বিশেষ মর্যাদা

মুসলিম জাতির কাছে আহলে বাইত বা নবী-পরিবারের বিশেষ মর্যাদা রয়েছে। কোরআন-সুন্নাহ দ্বারা তাদের এই মর্যাদা প্রমাণিত। সুতরাং উম্মতের জন্য করণীয় হলো তাদের সম্মান ও মর্যাদা রক্ষা করা।

আহলে বাইত কারা : আরবিতে আহলে বলতে স্ত্রী, সন্তান, নিকটাত্মীয় ও পরিবারকে বোঝায়।

বিজ্ঞাপন

আর বাইত অর্থ ঘর। পরিভাষায় ‘আহলে বাইত’ হলো প্রিয় নবী (সা.)-এর বংশধর বা আপনজন। যার মধ্যে আলী ইবনে আবি তালিব (রা.), ফাতেমা (রা.), হাসান ইবনে আলী (রা.) ও হুসাইন ইবনে আলী (রা.) অন্যতম। কেউ কেউ বলেছেন, আহলে বাইতের ভেতর নবীজি (সা.)-এর স্ত্রীগণও অন্তর্ভুক্ত।   এবং তাদের সন্তানসন্ততিগণ। যাদের জন্য সদকা গ্রহণ করা হারাম।

কোরআনে আহলে বাইত : আহলে বাইত শব্দটি পবিত্র কোরআনে দুবার এসেছে। এক. আল্লাহ বলেন, ‘তারা বলল (ফেরেশতারা) তুমি কি আল্লাহর কোনো কাজে বিস্ময়বোধ করছ, তোমাদের ওপর সর্বদা আল্লাহর রহমত ও তাঁর অনুগ্রহ রয়েছে হে আহলে বাইত (পরিবারবর্গ)। অবশ্যই তিনি মহাপ্রশংসিত ও মহামর্যাদাবান। ’ (সুরা হুদ, আয়াত : ৭৩)

আল্লাহ এখানে ইবরাহিম (আ.)-এর স্ত্রীকে আহলে বাইত বলেছেন।

খ. অন্য আয়াতে ইরশাদ হয়েছে, ‘হে নবী-পরিবার, আল্লাহ তো শুধু চান তোমাদের হতে নাপাকি দূর করতে এবং তোমাদের সম্পূর্ণরূপে পবিত্র করতে। ’ (সুরা আহজাব, আয়াত : ৩৩)

উম্মুল মুমিনিন আয়েশা সিদ্দিকা (রা.) বর্ণনা করেন, রাসুল (সা.) একদিন এমন অবস্থায় প্রত্যুষে বের হলেন যে তাঁর শরীর মোবারক নকশাবিশিষ্ট চাদর দ্বারা আবৃত ছিল। তখন হাসান (রা.) এলে নবীজি (সা.) তাঁকে নিজের চাদরের মধ্যে শামিল করে নিলেন। এরপর হুসাইন (রা.) এলে তাকেও চাদর মোবারকে জড়িয়ে নিলেন। অতঃপর ফাতেমা (রা.) এলে নবীজি তাঁকে চাদরের মধ্যে শামিল করে নিলেন। সর্বশেষে  আলী (রা.) এলে তাকে চাদরের ভেতরে প্রবেশ করিয়ে  নিলেন। অতঃপর কোরআনের সুরা আহজাবের ৩৩ নং আয়াত তিলাওয়াত করেন। (সহিহ মুসলিম, হাদিস : ২৪২৪)

হাদিসের আলোকে আহলে বাইত : জায়েদ ইবনে আরকাম (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) ইরশাদ করেন, হে লোক সকল,...আমি তোমাদের মধ্যে দুটি জিনিস রেখে যাচ্ছি। এক. আল্লাহর কিতাব; যাতে আছে হিদায়াত ও নুর। সুতরাং আল্লাহর কিতাবকে দৃঢ়ভাবে আঁকড়ে ধরো। ...আর আমার পরিবার। আমার পরিবারের ব্যাপারে আমি তোমাদের আল্লাহকে স্মরণ করিয়ে দিচ্ছি। আমার পরিবারের ব্যাপারে আমি তোমাদের আল্লাহকে স্মরণ করিয়ে দিচ্ছি। আমার পরিবারের ব্যাপারে আমি তোমাদের আল্লাহকে স্মরণ করিয়ে দিচ্ছি। হুসাইন (রা.) তাঁকে বললেন: হে জায়েদ, তাঁর পরিবার কারা? তাঁর স্ত্রীরা কি তাঁর পরিবার নয়? তিনি বললেন, নিশ্চয়ই তাঁর স্ত্রীরা তাঁর পরিবারভুক্ত। কিন্তু তাঁর পরিবার হচ্ছেন, তাঁর মৃত্যুর পর যাদের জন্য সদকা গ্রহণ করা হারাম। তিনি বললেন: তারা কারা? তিনি বলেন, তারা হচ্ছেন আলী (রা.)-এর বংশধর, আকিল (রা.)-এর বংশধর, জাফর (রা.)-এর বংশধর এবং আব্বাস (রা.)-এর বংশধর। তিনি বললেন, এদের সবার জন্য কি সদকা গ্রহণ হারাম? তিনি বললেন, হ্যাঁ। (সহিহ মুসলিম, হাদিস : ২৪০৮)

শেষ যুগে মুসলিম উম্মাহর কল্যাণ ও মুক্তির জন্য ইমাম মাহদির আগমন হবে। ইমাম মাহদি নবী-পরিবার থেকেই হবেন। উম্মে সালমা (রা.) বলেন, আমি রাসুল (সা.)-কে বলতে শুনেছি, ‘মাহদি আহলে বাইতের ফাতেমি বংশ থেকেই হবেন। (সুনানে আবি দাউদ, হাদিস : ৪২৮৪)



সাতদিনের সেরা