kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৬ আগস্ট ২০২২ । ১ ভাদ্র ১৪২৯ । ১৭ মহররম ১৪৪৪

হালাল অল্প জীবিকাও অভাবমুক্ত করে দেয়

আহমাদ রাইদ   

৬ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



হালাল অল্প জীবিকাও অভাবমুক্ত করে দেয়

হালাল-হারাম দেখে পেশা গ্রহণ ও জীবিকা উপার্জন করা মুমিনের জন্য আবশ্যক। হালাল অল্প জীবিকাও অভাবমুক্ত করে দেয়। একবার কিছুসংখ্যক আনসারি সাহাবি রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর কাছে কিছু চাইলে তিনি তাদের দিয়ে দেন। পুনরায় তারা চাইলে তিনি তাদের দিয়ে দেন।

বিজ্ঞাপন

এমনকি তাঁর কাছে যা ছিল সবই শেষ হয়ে গেল। এরপর তিনি বলেন, আমার কাছে যে সম্পদ থাকে তা তোমাদের না দিয়ে আমার কাছে জমা রাখি না। তবে যে যাচ্ঞা থেকে বিরত থাকে, আল্লাহ তাকে বাঁচিয়ে রাখেন। আর যে পরমুখাপেক্ষী হয় না, আল্লাহ তাকে অভাবমুক্ত রাখেন। যে ব্যক্তি ধৈর্য ধারণ করে আল্লাহ তাকে সবর দান করেন। সবরের চেয়ে উত্তম ও ব্যাপক কোনো নিয়ামত কাউকে দেওয়া হয়নি। (বুখারি, হাদিস : ১৪৬৯)

সুতরাং মনের দিক থেকে অল্পে তুষ্ট থাকা, কারো কাছে হাত না পাতা, ধৈর্য ধারণ করা কাম্য। আর শারীরিক দিক থেকে কাম্য হলো কাজ করে হালাল পথে জীবিকা উপার্জন করা। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, তোমাদের কেউ তার রশি নিয়ে জঙ্গল থেকে কাঠ সংগ্রহ করে পিঠে বহন করে বাজারে যায়, তারপর সেখানে তা বিক্রি করে। এর মাধ্যমে আল্লাহ তাকে অমুখাপেক্ষী করবেন, এটা মানুষের কাছে তার হাত পাতার চেয়ে উত্তম। কারণ মানুষ তাকে কিছু দিতেও পারে, নাও দিতে পারে। (বুখারি, হাদিস : ১৪৭১)

এ জন্যই মক্কার লোকেরা ব্যবসা করত, আর মদিনার লোকেরা চাষাবাদ করত।



সাতদিনের সেরা