kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১১ আগস্ট ২০২২ । ২৭ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১২ মহররম ১৪৪৪

ভারতে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা

দেশের শান্তি শৃঙ্খলাকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিন

সাইয়েদ আরশাদ মাদানি, সভাপতি, জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ, ভারত

১ জুলাই, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দেশের শান্তি শৃঙ্খলাকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিন

আমি রাবেতা আলমে ইসলামীর সম্মেলনে অংশ নিতে মালয়েশিয়াতে এসেছি। এখানে আসার পর জানতে পেরেছি, ভারতের রাজস্থানের শহর উদয়পুরে একটি ঘটনা ঘটেছে। জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ সর্বদা আইন নিজ হাতে তুলে নিয়ে কোনো কিছু করার বিরোধিতা করে। আমরা এই ঘটনারও নিন্দা জানাই।

বিজ্ঞাপন

আমরা মনে করি, এই ঘটনা ইসলামী শিক্ষার পরিপন্থী। এমন কর্মকাণ্ড দেশের শান্তি-শৃঙ্খলা বিঘ্নিত করার নামান্তর।

আমরা যেভাবে সব সময় ধর্মীয় চরমপন্থা ও সাম্প্রদায়িক উগ্রতা প্রসারকারীদের বিরোধিতা করেছি এবং সরকারের কাছে আবেদন জানিয়ে এসেছি যে এদের বিরুদ্ধে আইন প্রণয়ন করুন, তাদেরকে গ্রেপ্তার করুন, জেলে পাঠান এবং তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেন, ঠিক তেমনি আমরা এই ঘটনারও নিন্দা জানাই এবং আইন এখানেও যথা নিয়মে প্রযোজ্য হবে। ইসলাম হাজার বছর ধরে ভারতে যে ভ্রাতৃত্ব ও ভালোবাসার শিক্ষা প্রচার করে আসছে এবং মুসলিমরা হাজার বছর ধরে যেভাবে ভ্রাতৃত্ব বজায় রেখে বসবাস করে আসছে তা অক্ষুণ্ন রাখা আবশ্যক। দেশের শান্তি ও নিরাপত্তা এতেই নিহিত। দ্বিন প্রচারকদের এই পদ্ধতিই অবলম্বন করা প্রয়োজন।

আজ অত্যন্ত আক্ষেপের সঙ্গে বলতে হচ্ছে, যদি রাষ্ট্র আগে থেকেই এই শিষ্টাচারবহির্ভূত বক্তব্য (ধর্ম অবমাননা) নিয়ন্ত্রণের উদ্যোগ নিত, তবে আজ দেশের ভেতর এই অবস্থা তৈরি হতো না এবং এভাবে শান্তি-শৃঙ্খলা নষ্ট হতো না। আমি জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের পক্ষ থেকে মুসলমানদের প্রতি, যা তাদেরই দল এবং শত বছরের পুরনো দল তার পক্ষ থেকে আহ্বান জানাই, আল্লাহর দোহাই! দেশের শান্তি-শৃঙ্খলার বিষয়গুলোকে সামনে রাখুন (অগ্রাধিকার দিন) এবং এমন কোনো কাজ করবেন না যা ভারতের ধর্মীয় সম্প্রীতির ইতিহাসের বিপরীত হয়। আপনারা ধৈর্য ও সহিষ্ণুতার প্রমাণ দিন। কেননা পরিস্থিতি পরিবর্তনশীল। আজ যে অবস্থা তৈরি হয়েছে, তা আগামীতে শেষ হবে ইনশাআল্লাহ!

সামাজিক মাধ্যমে প্রচারিত ভিডিও বার্তা অবলম্বনে



সাতদিনের সেরা