kalerkantho

শুক্রবার । ১২ আগস্ট ২০২২ । ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৩ মহররম ১৪৪৪

বিশ্বাসের মিনার

আল্লাহর নাম ‘সালাম’-এর অর্থ

মুফতি আতাউর রহমান

২৬ জুন, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আল্লাহর নাম ‘সালাম’-এর অর্থ

‘সালাম’ মহান আল্লাহর একটি গুণবাচক নাম। যার অর্থ ‘যিনি সব দোষ ও ত্রুটি থেকে মুক্ত’। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘তিনিই আল্লাহ, তিনি ছাড়া কোনো ইলাহ নেই। তিনিই অধিপতি, তিনিই পবিত্র, তিনিই ত্রুটিমুক্ত, তিনিই নিরাপত্তা বিধায়ক, তিনিই রক্ষক, তিনিই পরাক্ষমশালী, তিনিই প্রবল, তিনিই অতীব মহিমান্বিত।

বিজ্ঞাপন

তারা যাকে শরিক স্থির করে আল্লাহ তা থেকে পবিত্র, মহান। ’ (সুরা : হাশর, আয়াত : ২৩)

আবার কেউ কেউ ‘সালাম’ শব্দের মূল অর্থ শান্তির সঙ্গে মিল রেখে আল্লাহর এই গুণবাচক নামের অর্থ করেছেন ‘শান্তিময়’। যেমন রাসুলুল্লাহ (সা.) নামাজ শেষ করে দোয়া করতেন, হে আল্লাহ! আপনিই শান্তিময় এবং আপনার থেকে শান্তি আসে। আপনি কল্যাণময় এবং সম্মান ও প্রতিপত্তির অধিকারী। (সহিহ মুসলিম, হাদিস : ১২২১)

আল্লামা খাত্তাবি (রহ.) বলেন, ‘আল্লাহর গুণ হিসেবে সালাম শব্দের অর্থ হলো তিনি সব দোষত্রুটি, অপূর্ণতা ও বিপদ থেকে মুক্ত, যাতে মাখলুক আক্রান্ত হয়। ’ (শানুদ দোয়া, পৃষ্ঠা ৪১)

আল্লামা ইবনুল আসির (রহ.) বলেন, ‘আল্লাহর গুণবাচক নাম সালামের অর্থ হলো যিনি ‘সালামের অধিকারী’। আর সালাম হলো সব দোষত্রুটি থেকে মুক্ত হওয়া এবং অস্থিরতা ও বিপদমুক্ত (শান্তিময়)। ’ (জামিউল উসুল : ৪/১৭৬)

আবার সালাম অর্থ যিনি শান্তির প্রসার ও বিস্তার ঘটান। যেমন ইরশাদ হয়েছে, ‘যতবার তারা যুদ্ধের আগুন প্রজ্বালিত করে, ততবার আল্লাহ তা নির্বাপিত করেন। ’ (সুরা : মায়িদা, আয়াত : ৬৪)

হাদিসে আল্লাহর নাম সালাম ও অভিনন্দন প্রকাশের মাধ্যম হিসেবে সালামকে একই অর্থে ব্যবহার করা হয়েছে। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, নিশ্চয়ই সালাম আল্লাহর একটি নাম। আল্লাহ তা পৃথিবীতে দান করেছেন। তোমরা নিজেদের ভেতর সালামের প্রসার ঘটাও। (আদাবুল মুফরাদ, হাদিস : ৯৮৯)

আল্লামা কুরতুবি (রহ.) সালামের তিনটি অর্থ বর্ণনা করেছেন। ক. যিনি সব ত্রুটি ও অপূর্ণতা থেকে মুক্ত, খ. যিনি বান্দার প্রতি শান্তি বর্ষণ করেন, গ. যিনি বান্দাদের প্রতি অবিচার করেন না। অর্থাৎ যিনি সবার জন্য নিরাপদ। (তাফসিরে কুরতুবি : ১৮/৪৬)

আল-মাউসুয়াতুল আকাদিয়া



সাতদিনের সেরা