kalerkantho

শুক্রবার । ১ জুলাই ২০২২ । ১৭ আষাঢ় ১৪২৯ । ১ জিলহজ ১৪৪৩

বিরূপ আবহাওয়ার সময় পড়ার দোয়া

মাইমুনা আক্তার   

২৩ জুন, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বন্যা ও জলোচ্ছ্বাসে ডুবে যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল। পানিবন্দি হয়ে যাচ্ছে লাখ লাখ মানুষ। এহেন পরিস্থিতিতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপের পাশাপাশি মহান আল্লাহর কাছে আশ্রয় চাওয়ার বিকল্প নেই। এ রকম বিরূপ আবহাওয়া থেকে বাঁচার জন্য মহানবী (সা.) আল্লাহর কাছে দোয়া করেছেন।

বিজ্ঞাপন

আমরাও মহানবীর অনুসরণ করে এই পরিস্থিতি থেকে রক্ষার জন্য আল্লাহর আশ্রয় চাইতে পারি। আনাস ইবনে মালিক (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, এক ব্যক্তি জুমার দিন মিম্বারের সোজাসুজি দরজা দিয়ে (মসজিদে) প্রবেশ করল। আল্লাহর রাসুল (সা.) তখন দাঁড়িয়ে খুতবা দিচ্ছিলেন। সে আল্লাহর রাসুল (সা.)-এর সম্মুখে দাঁড়িয়ে বলল, হে আল্লাহর রাসুল! গবাদি পশু ধ্বংস হয়ে গেল এবং রাস্তাগুলোর চলাচল বন্ধ হয়ে গেল। সুতরাং আপনি আল্লাহর কাছে দোয়া করুন, যেন তিনি আমাদের বৃষ্টি দেন। বর্ণনাকারী বলেন, আল্লাহর রাসুল (সা.) তখন তাঁর উভয় হাত তুলে দোয়া করলেন, (উচ্চারণ) আল্লাহুম্মা আসকিনা! আল্লাহুম্মা আসকিনা! আল্লাহুম্মা আসকিনা!। অর্থ : হে আল্লাহ! বৃষ্টি দিন, হে আল্লাহ! বৃষ্টি দিন, হে আল্লাহ! বৃষ্টি দিন। আনাস (রা.) বলেন, আল্লাহর কসম! আমরা তখন আকাশে মেঘমালা, মেঘের চিহ্ন বা কিছুই দেখতে পাইনি। অথচ সালআ (মদিনার একটি পাহাড়) পর্বত ও আমাদের মধ্যে কোনো ঘরবাড়ি ছিল না। আনাস (রা.) বলেন, হঠাৎ সালআ পর্বতের পেছন থেকে ঢালের মতো মেঘ বেরিয়ে এলো এবং তা মধ্য আকাশে পৌঁছে বিস্তৃত হয়ে পড়ল। অতঃপর বর্ষণ শুরু হলো। তিনি বলেন, আল্লাহর কসম! আমরা ছয় দিন সূর্য দেখতে পাইনি। অতঃপর এক ব্যক্তি পরবর্তী জুমার দিন সে দরজা দিয়ে (মসজিদে) প্রবেশ করল। আল্লাহর রাসুল (সা.) তখন দাঁড়িয়ে খুতবা দিচ্ছিলেন। লোকটি দাঁড়িয়ে বলল, হে আল্লাহর রাসুল! ধন-সম্পদ ধ্বংস হয়ে গেল এবং রাস্তাঘাটও বিচ্ছিন্ন হয়ে গেল। কাজেই আপনি আল্লাহর কাছে বৃষ্টি বন্ধের জন্য দোয়া করুন। আনাস (রা.) বলেন, আল্লাহর রাসুল (সা.) তাঁর উভয় হাত তুলে দোয়া করলেন, (উচ্চারণ) আল্লাহুম্মা হাওয়ালাইনা ওয়া-লা আলাইনা, আল্লাহুম্মা আলাল আকামি ওয়াল জিবালি ওয়াল আজামি ওয়াল জিরাবি ওয়াল আউদিয়াতি ওয়া মানাবিতিস সাজারি। অর্থ : হে আল্লাহ! আমাদের আশপাশে, আমাদের ওপর নয়; টিলা, পাহাড়, উচ্চভূমি, মালভূমি, উপত্যকা এবং বনভূমিতে বর্ষণ করুন। আনাস (রা.) বলেন, এতে বৃষ্টি বন্ধ হয়ে গেল এবং আমরা (মসজিদ হতে বেরিয়ে) রোদে চলতে লাগলাম। শরিক (রহ.) (বর্ণনাকারী) বলেন, আমি আনাস (রা.)-কে জিজ্ঞেস করলাম, এ লোকটি কি আগের সেই লোকটি? তিনি বললেন, আমি জানি না। (বুখারি, হাদিস : ১০১৩)



সাতদিনের সেরা