kalerkantho

বুধবার । ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১৩ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

যারা আল্লাহর মেহমান

আহমাদ ইজাজ   

২১ জুন, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চার ধরনের মানুষ আল্লাহর বিশেষ মেহমান। ১. আল্লাহর পথে জিহাদকারী। ২. হজযাত্রী। ৩. ওমরাহ পালনকারী।

বিজ্ঞাপন

৪. মসজিদে জামাতের সঙ্গে নামাজ আদায়কারী। ইবনে উমার (রা.) থেকে বর্ণিত, মহানবী (সা.) বলেন, আল্লাহর পথে জিহাদকারী, হজযাত্রী ও ওমরাহ যাত্রীরা আল্লাহর প্রতিনিধি। তারা আল্লাহর কাছে দোয়া করলে তিনি তা কবুল করেন এবং কিছু চাইলে তা তাদের দান করেন। (ইবনে মাজাহ, হাদিস : ২৮৯৩; নাসাঈ, হাদিস : ২৬২৫)

আল্লাহর পথে জিহাদের ফজিলত সম্পর্কে হাদিসে এসেছে, বিশ্বনবী (সা.)-কে জিজ্ঞেস করা হয়েছে—সর্বাধিক উত্তম আমল কোনটি? তিনি বলেন, আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের ওপর ঈমান আনা। পুনরায় জিজ্ঞেস করা হলো, এরপর কোনটি? তিনি বলেন, আল্লাহর রাস্তায় জিহাদ করা। পুনরায় জিজ্ঞেস করা হলো, তারপর কোনটি? তিনি বলেন, হজে মাবরুর বা মকবুল হজ করা। (বুখারি, হাদিস : ১৪২৯)।

হজ ও ওমরাহ গুনাহ মিটিয়ে দেয়। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, তোমরা হজ ও ওমরাহ ধারাবাহিকভাবে পালন (হজ সমাপনের পর ওমরাহ এবং ওমরাহর পর হজ) করবে, কেননা তা (এ দুটি) অভাব-অনটন ও পাপকে মিটিয়ে দেয়, যেমন (কামারের) হাপর লোহার মরিচা দূর করে থাকে। (নাসায়ি, হাদিস : ২৬৩০)

মসজিদে গমনকারীরাও আল্লাহর মেহমান। মহান আল্লাহ প্রতি ওয়াক্তে মসজিদে আগত মুসল্লিদের জন্য জান্নাতে মেহমানদারির আয়োজন করেন। আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, আল্লাহর রাসুল (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি সকালে বা সন্ধ্যায় যতবার মসজিদে যায়, আল্লাহ তার জন্য জান্নাতে ততবার মেহমানদারির ব্যবস্থা করে রাখেন। (বুখারি, হাদিস : ৬৬২)

মহান আল্লাহ আমাদের সবাইকে আল্লাহর মেহমান হওয়ার তাওফিক দান করুন।

 

 

 



সাতদিনের সেরা