kalerkantho

রবিবার । ১৪ আগস্ট ২০২২ । ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৫ মহররম ১৪৪৪

উত্তম চরিত্র

সন্দেহযুক্ত বিষয় পরিত্যাজ্য

মাইমুনা আক্তার   

১৩ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সন্দেহযুক্ত বিষয় পরিত্যাজ্য

জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে ইসলামের নির্দেশনা রয়েছে। একজন মুমিনের তার জীবনকে ইসলামের নির্দেশনা মোতাবেকই পরিচালিত করা আবশ্যক। ইসলামে যা কিছু নিষিদ্ধ, তা ত্যাগ করা আবশ্যক। হাদিস শরিফে নিষিদ্ধ বিষয় ত্যাগ করাকে উত্তম ধার্মিকতা আখ্যা দেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

ইরশাদ হয়েছে, আবু জার (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, তদবিরের (বিচক্ষণতা, পরিণামদর্শিতা) তুল্য কোনো জ্ঞান নেই, নিষিদ্ধ বিষয় থেকে বিরত থাকার তুল্য ধার্মিকতা নেই এবং সচ্চরিত্র তুল্য কোনো আভিজাত্য নেই। (ইবনে মাজাহ, হাদিস : ৪২১৮)

এমনকি যেসব বিষয় সন্দেহজনক, সেসব বিষয় এড়িয়ে চলাও একজন মুমিনের দায়িত্ব। অন্যথায় মুমিনের ঈমান-আমল হুমকির মুখে পড়তে পারে। নু‘মান ইবনে বশীর (রা.) বলেন, আমি আল্লাহর রাসুল (সা.)-কে বলতে শুনেছি যে, হালাল স্পষ্ট এবং হারামও স্পষ্ট। আর এই দুয়ের মধ্যে রয়েছে বহু সন্দেহজনক বিষয়, যা অনেকেই জানে না। যে ব্যক্তি সেই সন্দেহজনক বিষয় হতে বেঁচে থাকবে, সে তার দ্বিন ও মর্যাদা রক্ষা করতে পারবে। আর যে সন্দেহজনক বিষয়সমূহে লিপ্ত হয়ে পড়ে, তার উদাহরণ সেই রাখালের ন্যায়, যে তার পশু বাদশাহ সংরক্ষিত চারণভূমির আশপাশে চরায়, অচিরেই সেগুলোর সেখানে ঢুকে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। জেনে রাখো যে, প্রত্যেক বাদশাহরই একটি সংরক্ষিত এলাকা রয়েছে। আরো জেনে রাখো যে, আল্লাহর জমিনে তাঁর সংরক্ষিত এলাকা হলো তাঁর নিষিদ্ধ কাজসমূহ। জেনে রাখো, শরীরের মধ্যে একটি গোশতের টুকরা আছে, তা যখন ঠিক হয়ে যায়, গোটা শরীরই তখন ঠিক হয়ে যায়। আর তা যখন খারাপ হয়ে যায়, গোটা শরীরই তখন খারাপ হয়ে যায়। জেনে রাখো, সে গোশতের টুকরাটি হলো অন্তর। (বুখারি, হাদিস : ৫২)

অন্য হাদিসে ইরশাদ হয়েছে, আবুল হাওরা আস-সাদি (রহ.) বলেন, হাসান ইবনে আলী (রা.)-কে আমি প্রশ্ন করলাম, আপনি রাসুলুল্লাহ (সা.) থেকে কোন কথাটা মনে রেখেছেন? তিনি বলেন, আমি রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর এই কথাটি মনে রেখেছি—যে বিষয়ে তোমার সন্দেহ হয়, তা ছেড়ে দিয়ে যাতে সন্দেহের সম্ভাবনা নেই তা গ্রহণ করো। যেহেতু সত্য হলো শান্তি ও স্বস্তি এবং মিথ্যা হলো দ্বিধা-সন্দেহ। (তিরমিজি, হাদিস : ২৫১৮)

অতএব প্রত্যেক মুমিনের কর্তব্য সন্দেহযুক্ত বিষয়গুলোও সতর্কতামূলক ত্যাগ করা। নিজের ঈমান-আমলকে যতটা সম্ভব পরিশুদ্ধ করার চেষ্টা করা। মহান আল্লাহ সবাইকে তাওফিক দান করুন।

 



সাতদিনের সেরা