kalerkantho

বৃহস্পতিবার ।  ১৯ মে ২০২২ । ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৭ শাওয়াল ১৪৪৩  

দৈনন্দিন ইসলামী প্রশ্ন-উত্তর

সমাধান : ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার বাংলাদেশ, বসুন্ধরা, ঢাকা

২৭ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মসজিদের সীমারেখা ঠিক করার পদ্ধতি

প্রশ্ন : বিভিন্ন জায়গায় মসজিদের বারান্দার দেয়ালে লেখা থাকে, এখান থেকে মসজিদ শুরু। প্রশ্ন হলো, মসজিদের অংশ এবং বারান্দার অংশ নির্ধারণ করা হয় কিভাবে? এবং মসজিদের বারান্দা কি মসজিদের অন্তর্ভুক্ত নয়?

এমদাদ হোসাইন, নারায়ণগঞ্জ

উত্তর : ওয়াকফকারী মুতাওয়াল্লি বা মসজিদ কমিটির সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে নির্মাণকালে মসজিদের সীমা নির্ধারণ হয়ে থাকে। তখন যতটুকু জায়গাকে তারা নামাজ আদায়ের জন্য নির্ধারণ করবেন, তাই মসজিদ হিসেবে গণ্য হবে। বারান্দার হুকুমও তা-ই।

বিজ্ঞাপন

মূলনীতির ওপর নির্ভর করে যদি কোনো সিদ্ধান্ত জানা না থাকে তবে সতর্কতামূলক বারান্দা মসজিদের অন্তর্ভুক্ত হবে। (আদ্দুররুল মুখতার : ৪/৩৪৩, আল বাহরুর রায়েক : ৫/৪১৬, ফাতাওয়ায়ে তাতার খানিয়া : ৮/১৫৬)

 

একাধিক দোকান ঘুরে জিনিস কেনা কি সুন্নত?

প্রশ্ন : বিভিন্ন খাবার দুধ, বিস্কুট, কোল্ড, ড্রিংকস, মিষ্টান্ন ইত্যাদি প্রাণ কম্পানি হালাল কি না বোঝার উপায় কী? এবং পান, সুপারি, চুন, জর্দা, খয়ের ইত্যাদি খাওয়া বৈধ কি না? এবং বিভিন্ন দোকান থেকে জিনিস ক্রয় করতে দাম জিজ্ঞাসা করা সুন্নত কি না?

আবুল বাশার, বরিশাল

উত্তর : কোনো ব্র্যান্ড বা সাধারণ কম্পানির যেকোনো খাবারে হারাম কোনো কিছুর সংমিশ্রণ প্রমাণিত না হওয়া পর্যন্ত তা বৈধ। তবে সন্দেহযুক্ত হলে বর্জন করা যেতে পারে। পান, সুপারি, চুন, জর্দা, খায়ের ইত্যাদি খাওয়া মুবাহ। তবে এগুলোর কোনোটি স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর প্রমাণিত হলে পরিহার করা জরুরি। কোনো কিছু ক্রয় করার সময় দেখেশুনে ক্রয় করা সুন্নত। একাধিক দোকান দেখার প্রয়োজন নেই। আরো কম পাওয়ার আশায় একাধিক দোকান দেখতেও কোনো অসুবিধা নেই। (কাওয়ায়েদুল ফিকাহ : ৯২, রদ্দুল মুহতার : ১/১৫১, ফাতাওয়ায়ে দারুল উলুম : ১৫/৯৬)

 

সমিতিতে টাকা রেখে লভ্যাংশ নেওয়া

প্রশ্ন : এক ব্যক্তি প্রতি মাসে ৫০০ টাকা করে ১২ বছর মেয়াদি একটি সমিতি করেছে। সমিতি কর্তৃপক্ষ সেই টাকায় ব্যবসা করে তাকে নির্ধারিত অঙ্কের লভ্যাংশসহ ফেরত দেবে। এখন তার জন্য সেই লভ্যাংশ গ্রহণ করা জায়েজ হবে, নাকি সুদ হবে? যদি সুদ হয় তাহলে কি সদকা হিসেবে সে নিজেই তা গ্রহণ করতে পারবে? যদি না পারে তাহলে হিলা করে গ্রহণ করার কোনো সুযোগ বা পদ্ধতি আছে কি না? উল্লেখ্য যে লোকটি নেহাত দরিদ্র, জাকাত-ফেতরা, সদকা ইত্যাদি খাওয়ার উপযুক্ত এবং ঋণে জর্জরিত।

আবরার কারিম, জগন্নাথপুর, ঢাকা

উত্তর : প্রশ্নের বিবরণ থেকে বোঝা যায়, উক্ত সমিতি সদস্যদের কাছ থেকে মাসিক কিস্তি জমা করে নির্ধারিত অঙ্কে লাভ দেবে। অর্থাৎ জমা টাকার ওপর অতিরিক্ত প্রদান করা হবে। বাস্তবে যদি তাই হয় তবে এটা সুদি লেনদেন হিসেবে গণ্য হবে। এমন সমিতির সদস্য হওয়া বৈধ হবে না। তবে সদস্য হয়ে থাকলে অবিলম্বে চুক্তি রহিত করা আবশ্যক। আর লভ্যাংশের টাকা গরিব-মিসকিনকে সদকা করে দেবে। (আদ্দুররুল মুখতার : ৫/৬৪৮, হিন্দিয়া : ৫/৩৪৯, ফাতাওয়ায়ে দারুল উলুম : ১৪/৪৯৯)

 

 

 

 



সাতদিনের সেরা