kalerkantho

শুক্রবার ।  ২৭ মে ২০২২ । ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ২৫ শাওয়াল ১৪৪

মুমিনদের সুপারিশে সমমনা লোকদের জাহান্নাম থেকে মুক্তি

মারজিয়া আক্তার   

২৬ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মুমিনদের সুপারিশে সমমনা লোকদের জাহান্নাম থেকে মুক্তি

তর্ক-বিতর্কে জড়ানোকে মানুষ পছন্দ করে না। মহান আল্লাহর কাছেও তর্কপ্রিয় মানুষ অপ্রিয়। কিন্তু সব তর্ক-বিতর্কের ফলাফল খারাপ নয়। হাদিস শরিফে এসেছে, কিয়ামতের দিন ঈমানদাররা নিজেদের সঙ্গী-সাথিদের জান্নাতে নেওয়ার জন্য আল্লাহর সঙ্গে তর্কে জড়াবেন।

বিজ্ঞাপন

কেননা তাঁদের কোনো কোনো সঙ্গী প্রাথমিক অবস্থায় জাহান্নামের অধিবাসী হবে। পরে সুপারিশের মাধ্যমে তাদের জাহান্নাম থেকে বের করে আনা হবে।

আবু সায়িদ খুদরি (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘দাবি নিয়ে দুনিয়াতে তোমাদের যেমন ঝগড়া হয়, তা মুমিনদের দ্বারা তাদের ভাইদের সম্পর্কে—যাদের জাহান্নামে প্রবেশ করানো হয়েছে তাদের রবের সঙ্গে ঝগড়ার চেয়ে বেশি কঠিন নয়। তিনি বলেন, তারা বলবে, হে আমাদের রব, আমাদের ভাইয়েরা আমাদের সঙ্গে নামাজ আদায় করত, আমাদের সঙ্গে রোজা পালন করত ও আমাদের সঙ্গে হজ করত। কিন্তু আপনি তাদের জাহান্নামে প্রবেশ করিয়েছেন। তিনি বলেন, আল্লাহ বলবেন যাও তাদের থেকে যাকে তোমরা চেনো তাকে বের করো।

তিনি বলেন, তাদের কাছে তারা আসবে, চেহারা দেখে তাদের তারা চিনবে, তাদের কাউকে আগুন পায়ের গোছার অর্ধেক খেয়ে ফেলেছে। কাউকে পায়ের টাকনু পর্যন্ত খেয়ে ফেলেছে, তাদের তারা বের করে এনে বলবে, হে আমাদের রব, যাদের সম্পর্কে আমাদের নির্দেশ দিয়েছেন আমরা তাদের বের করেছি। তিনি বলেন, আল্লাহ বলবেন, বের করো যার অন্তরে এক দিনার পরিমাণ ঈমান রয়েছে। অতঃপর বলবেন, যার অন্তরে অর্ধেক দিনার পরিমাণ ঈমান আছে। একসময় বলবেন, যার অন্তরে বিন্দু পরিমাণ ঈমান আছে। ’ (সুনানে নাসায়ি, হাদিস : ৫০১০; ইবনে মাজাহ, হাদিস : ৬০)

এভাবে ঈমানদারদের সুপারিশে অনেক মানুষকে জাহান্নাম থেকে জান্নাতে নিয়ে যাওয়া হবে।



সাতদিনের সেরা