kalerkantho

বৃহস্পতিবার ।  ২৬ মে ২০২২ । ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ২৪ শাওয়াল ১৪৪

পরিবারের দুর্বলদের মূল্যায়ন করা জরুরি

মুফতি মুহাম্মদ মর্তুজা   

২৬ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পরিবারের প্রতিটি সদস্যই অনেক গুরুত্বপূর্ণ। ছোট হোক কিংবা বড়, সুস্থ হোক কিংবা অসুস্থ, সচ্ছল হোক কিংবা অসচ্ছল, পরিবারে সবারই সমান অধিকার রয়েছে। পরিবারের কেউ আর্থিক কিংবা শারীরিকভাবে দুর্বল হলে তাকে অবজ্ঞা করার কোনো সুযোগ নেই।

প্রতি মাখলুক তার রিজিক সঙ্গে নিয়েই দুনিয়াতে আসে।

বিজ্ঞাপন

মাখলুকের রিজিক আকাশ থেকে বণ্টিত হয়। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘আর আকাশে রয়েছে তোমাদের রিজিক ও প্রতিশ্রুতি সব। ’ (সুরা : জারিয়াত, আয়াত : ২২)

তাই টাকার জোরে নিজেকে পরিবারের অন্যদের কাউকে অবজ্ঞা করা উচিত নয়; বরং পরিবারে কেউ দুর্বল থাকলে তার সমাদর করা উচিত। কারণ তার কারণে মহান আল্লাহ পরিবারে বাড়তি বরকত দেন। জুবায়ের ইবনে নুফাইর আল-হাদরামি (রহ.) বলেন, তিনি আবু দারদা (রা.)-কে বলতে শুনেছেন, ‘আমি রাসুল (সা.)-কে বলতে শুনেছি, তোমরা দুর্বল লোকদের খোঁজ করে আমার কাছে নিয়ে এসো। কেননা তোমরা তোমাদের মধ্যকার দুর্বল লোকদের অসিলায় রিজিক ও সাহায্যপ্রাপ্ত হয়ে থাকো। (আবু দাউদ, হাদিস : ২৫৯৪)

অন্য হাদিসে ইরশাদ হয়েছে, মুসআব ইবনে সাদ (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, সাদ (রা.)-এর ধারণা ছিল অন্যদের চেয়ে তাঁর মর্যাদা অধিক। তখন নবী (সা.) বলেন, ‘তোমরা দুর্বলদের (দোয়ার) অসিলায়ই সাহায্যপ্রাপ্ত ও রিজিকপ্রাপ্ত হচ্ছ। ’ (বুখারি, হাদিস : ২৮৯৬)

উল্লিখিত হাদিসগুলো থেকে বোঝা যায়, পরিবারের বৃদ্ধ, শিশু, বেকারদের মাধ্যমেও মহান আল্লাহ পরিবারের রিজিকের ব্যবস্থা করে থাকেন। কারণ মহান আল্লাহ তাঁর বান্দাদের জন্য রিজিক বরাদ্দ দিয়েই তাকে সৃষ্টি করেন। সে যদি কর্মক্ষমতা না-ও রাখে, তিনি অন্যদের মাধ্যমে হলেও তার কাছে তার সেই রিজিক পৌঁছে দেন। এর থেকে বোঝা যায় যে আমাদের পরিবারের দুর্বলদের অসিলায়ও অনেক সময় মহান আল্লাহ আমাদের জন্য সফলতার পথ সুগম করে দেন।

শুধু পরিবারই নয়, আমাদের আশপাশে বাস করা দুর্বল মানুষগুলোর মাধ্যমেও মহান আল্লাহ আমাদের রিজিকে বরকত দেন। তাদের চোখের পানি ও ভাঙা হৃদয়ের আরজি মহান আল্লাহর কাছে সরাসরি পৌঁছে যায়, তাই এত পাপ করার পরও মহান আল্লাহ আমাদের অনেক বড় বিপদ থেকে নিরাপদে রাখেন।

আল্লাহর নবী (সা.) বলেছেন, আল্লাহ তাআলা এই উম্মতকে সাহায্য করেন তার দুর্বলদের দ্বারা, তাদের দোয়া, নামাজ ও ইখলাসের কারণে। (নাসায়ি, হাদিস : ৩১৭৮)

অন্য হাদিসে রাসুল (সা.) বলেন, মাথায় উষ্কখুষ্ক চুল ও দেহে ধূলিমলিন দুইখানা পুরনো কাপড় পরিহিত এরূপ অনেক ব্যক্তি রয়েছে, যার প্রতি লোকেরা দৃষ্টিপাত করে না। অথচ সে আল্লাহর নামে শপথ করে ওয়াদা করলে তিনি তা সত্যে পরিণত করেন। (তিরমিজি, হাদিস : ৩৮৫৪)

অতএব, কেউ অসচ্ছল কিংবা দুর্বল হলেই তার ওপর আধিপত্য বিস্তার করা উচিত নয়। তাকে কষ্ট দেওয়া উচিত নয়। আমাদের উচিত সবাইকে ভালোবাসা, সবাইকে গুরুত্ব দেওয়া। তবেই মহান আল্লাহ আমাদের সবাইকে দুনিয়া ও আখিরাতে সম্মানিত করবেন।



সাতদিনের সেরা