kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৩ মাঘ ১৪২৮। ২৭ জানুয়ারি ২০২২। ২৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

নবীজির প্রতি গাছের আনুগত্য

মাওলানা সাখাওয়াত উল্লাহ   

২৮ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



নবীজির প্রতি গাছের আনুগত্য

নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের হজের সফর সম্পর্কে জাবের (রা.) থেকে দীর্ঘ একটি হাদিস বর্ণিত আছে। তিনি বলেন, আমরা রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সঙ্গে সফরে রওনা হলাম। পথিমধ্যে তিনি বিস্তীর্ণ ও প্রশস্ত এক উপত্যকায় ছাউনি ফেলেন। নবীজি প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে বের হলেন।

বিজ্ঞাপন

আমি পানির পাত্র নিয়ে তাঁর সঙ্গে রওনা হলাম। মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উপত্যকার আশপাশ ও দূর-দিগন্তে দৃষ্টি ফেরালেন। কিন্তু পর্দা হিসেবে ব্যবহার করার মতো কোনো বস্তুই পরিদৃষ্ট হলো না। উপত্যকার একদিকে দূর প্রান্তরে দুটি গাছ দেখা গেল। নবীজি সেগুলোর একটির দিকে এগিয়ে গেলেন। গিয়ে তার শাখা ধরে বলেন, আল্লাহর আদেশে আমার পদাঙ্ক অনুসরণ করে চলতে থাকো। গাছটি নবীজির পেছনে পেছনে এমনভাবে চলতে শুরু করল, যেমন নাকে রশি বাঁধা উট তার মালিকের পেছনে পেছনে চলতে থাকে। নবীজি সেটিকে নিয়ে অপর গাছের কাছে গেলেন। তারও শাখা ধরে বলেন, আল্লাহর আদেশে আমার পদাঙ্ক অনুসরণ করে চলতে থাকো। সেটিও একই নিয়মে চলতে শুরু করল। যখন উভয় গাছ মাঝামাঝি এলো, তখন তাদের উভয়কে এক জায়গায় করে তিনি আদেশ করলেন—আল্লাহর হুকুমে তোমরা আমার সামনে ঢাল (পর্দা) হয়ে যাও। নবীজির আদেশ শোনার সঙ্গে সঙ্গে তারা উভয়ে একসঙ্গে এমনভাবে মিলিত হয়ে ঝুঁকে পড়ল যে উভয়ের মাঝে কোনো ফাঁক রইল না। জাবের (রা.) বলেন, আমি এ দৃশ্য দেখছিলাম। হঠাৎ আমার অন্তর কেঁপে উঠল। আমি ভয় করলাম, লাজলজ্জার আধার আমার মনিব সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম না আবার প্রয়োজন সারার জন্য দূরে কোথাও চলে যান। এ ভয় মনে জাগতেই আমি সেখান থেকে চুপিসারে সরে এলাম এবং দূরে এক জায়গায় গিয়ে বসে রইলাম। ভাবতে লাগলাম, নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কত সুমহান মর্যাদার অধিকারী, যাঁর লজ্জার খাতিরে গাছও তার শিকড়সমেত উঠে এসে পর্দা হয়ে যায়! আমি তখনো এই ভাবনায়ই বিভোর ছিলাম। এরই মধ্যে কারো পায়ের আওয়াজ শুনতে পেলাম। দৃষ্টি তুলে তাকিয়ে দেখি আমার সামনে সাইয়িদুল মুরসালিন সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। আর গাছের দিকে তাকিয়ে দেখি তারা আপন আপন জায়গায় গিয়ে যথারীতি দাঁড়িয়ে আছে, যেন তারা নিজেদের জায়গা থেকে কখনো নড়েইনি। (সহিহ মুসলিম, হাদিস : ৩০১২)



সাতদিনের সেরা