kalerkantho

শনিবার । ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৪ ডিসেম্বর ২০২১। ২৮ রবিউস সানি ১৪৪৩

দৈনন্দিন ইসলামী প্রশ্ন-উত্তর

সমাধান : ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার বাংলাদেশ, বসুন্ধরা, ঢাকা

২৫ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



মৃতের পক্ষ থেকে কাজা নামাজ আদায় করা

প্রশ্ন : এক ব্যক্তি শরীর অসুস্থ থাকাকালীন নিয়মিত ফরজ নামাজ জামাতে আদায় করতেন। কিন্তু হঠাৎ বড় রোগে আক্রান্ত হওয়ায় বসে নামাজ পড়াও তাঁর জন্য সম্ভব ছিল না। অতঃপর এভাবে দুই মাস যাওয়ার পর মারা যান। প্রশ্ন হলো, ওই ব্যক্তির সন্তানরা তাঁর কাজা নামাজগুলো আদায় করে দিলে তাঁর পক্ষ থেকে আদায় হয়ে যাবে কি? এ ব্যাপারে শরিয়তের বিধান কী?

শেখ ফরিদ, বরিশাল

উত্তর : ইসলামের দৃষ্টিতে কেউ কারো ইবাদত আদায় করার বিধান নেই। নামাজ-রোজা যেহেতু শারীরিক ইবাদত, তাই মৃতের সন্তান বা অন্য কেউ তার পক্ষ থেকে নামাজ-রোজা করার সুযোগ নেই; বরং সে মৃত্যুকালে অসিয়ত করে গেলে তার সম্পদের এক-তৃতীয়াংশ থেকে কাফফারা আদায় করতে হবে। অসিয়ত করলেও যদি তার পক্ষ থেকে কেউ স্বেচ্ছায় কাফফারা আদায় করে দেয়, তাহলে আদায় হয়ে যাওয়ার আশা করা যায়। (আল বাহরুর রায়েক : ২/৯০-৯১, হিন্দিয়া : ১/১২৫)

 

অ্যাডভান্সের টাকায় জাকাত আসে?

প্রশ্ন: আমরা দোকানঘর ভাড়া দেওয়ার সময় দুই লাখ টাকা অ্যাডভান্স নিয়েছিলাম, যা দোকানঘর ঠিক করার সময়ই ব্যয় হয়ে গেছে। বর্তমানে আমাদের কাছে কোনো উল্লেখযোগ্য নগদ টাকা নেই, উপরন্তু ঋণগ্রস্ত আছি। আমাদের ওপর কি ওই অ্যাডভান্সের টাকার জাকাত ওয়াজিব হবে?

যদি হয়, তাহলে আমরা যদি দোকানদারকে মাসে এক হাজার টাকা করে অ্যাডভান্সের টাকা কেটে দিই, তাহলে তার বিধান কী হবে? জাকাত কিভাবে দিতে হবে?

আব্দুল্লাহ, শারহিলা, ঢাকা

উত্তর : প্রশ্নোক্ত অ্যাডভান্স যদি জামানত বাবদ নিয়ে থাকে, যা ভাড়াটিয়াকে দোকান ছেড়ে দেওয়ার সময় ফিরিয়ে দিতে হয়, তাহলে ওই টাকার মালিক আপনি নন; বরং তা আপনার কাছে আমানতস্বরূপ, যা খরচ করা জায়েজ নয়। তাই আপনার ওপর তার জাকাত ওয়াজিব হবে না। আর যদি অগ্রিম ভাড়া বাবদ নিয়ে থাকেন, তাহলে ওই টাকা আপনার মালিকানায় চলে এসেছে। এ অবস্থায় বছর অতিবাহিত হওয়ার আগে তা খরচ হয়ে যাওয়ায় আপনার ওপর জাকাত আসবে না। (রদ্দুল মুহতার : ৯/১৩, ফাকহুল কাদির : ২/১২১, হিন্দিয়া : ১/১৯০, ফাতাওয়ায়ে দারুল উলুম : ৩/১৫৬)

 

দেখে দেখে জুমার খুতবা দেওয়া

প্রশ্ন : জুমা বা ঈদের খুতবা কি মুখস্থ দেওয়া সুন্নত? যদি কেউ দেখে দেখে খুতবা দেন, তাহলে তাঁর খুতবার বিধান কী?

আব্দুল আলীম, বসুন্ধরা আ/এ

উত্তর : জুমা বা ঈদের খুতবা কিতাব দেখে ও মুখস্থ যেকোনোভাবে দেওয়া যায়। খুতবা মুখস্থ দেওয়াই সুন্নত মর্মে কোনো প্রমাণ পাওয়া যায় না। (ফাতাওয়ায়ে মাহমুদিয়া : ৯/২১, খাইরুল ফাতাওয়া : ৪/৮৭, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ৪/৪০৬)

 

বাচ্চাকে ঠাণ্ডামুক্ত রাখতে মায়ের তায়াম্মুম

প্রশ্ন : শীতের মৌসুমে মহিলা ছোট শিশুকে ঠাণ্ডা থেকে বাঁচানোর জন্য ফরজ গোসলের পরিবর্তে তায়াম্মুম করতে পারবে কি না? এ ব্যাপারে ইসলাম কী বলে?

রিতিকা রহমান, গুলশান

উত্তর : ছোট শিশুর মা শীতের মৌসুমে গরম পানির দ্বারা ফরজ গোসল করে নেবে। আর যদি গরম পানির ব্যবস্থা করাও কোনোভাবে সম্ভব না হয় বা করা সম্ভব হলেও তার বাস্তব অভিজ্ঞতা বা কোনো মুসলিম অভিজ্ঞ ডাক্তারের মত অনুযায়ী শিশুর সার্বিক (জটিল) ক্ষতির আশঙ্কা থাকে, আশঙ্কামুক্ত হওয়ার কোনো বিকল্প উপায় না থাকে, শুধু তখনই শিশুর মা ফরজ গোসলের পরিবর্তে তায়াম্মুম করতে পারবে। (রদ্দুল মুহতার : ১/২৩৩, রদ্দুল মুহতার : ১/২৩৪, হিন্দিয়া : ১/২৯, ফাতাওয়ায়ে দারুল উলুম : ১/২৪৫)

 



সাতদিনের সেরা