kalerkantho

বুধবার । ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ১ ডিসেম্বর ২০২১। ২৫ রবিউস সানি ১৪৪৩

দৈনন্দিন ইসলামী প্রশ্ন-উত্তর

সমাধান : ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার বাংলাদেশ, বসুন্ধরা, ঢাকা

২৭ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



নামাজে পার্থিব চিন্তা থেকে মুক্তির উপায় কী?

প্রশ্ন : নামাজ পড়ার সময় দুনিয়ার সব চিন্তা মাথায় এসে ঘুরপাক খায়। ফলে নামাজে পূর্ণ মনোযোগ দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। এ থেকে মুক্তির উপায় কী?

আব্দুল্লাহ নাজিব, যাত্রাবাড়ী

উত্তর : নামাজে একাগ্রতা তথা খুশু-খুজু সৃষ্টি করার উপায় হলো নামাজরত অবস্থায় এদিক-সেদিক না তাকানো; বরং দৃষ্টি যথাস্থানে রাখা এবং অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ স্থির রেখে এমনভাবে নামাজ পড়া, যেন এটাই জীবনের শেষ নামাজ। আর মনে মনে এই খেয়াল করা যে আমি আল্লাহকে দেখছি এবং আল্লাহ আমাকে দেখছেন। পাশাপাশি নামাজে সব রুকন স্থিরভাবে আদায় করা এবং সব রুকনের সুন্নত আদবগুলো সঠিকভাবে আদায় করার চেষ্টা করা। অন্য কোনো খেয়াল আসার সঙ্গে সঙ্গে মন ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করা। এভাবে নামাজ আদায় করতে থাকলে ইনশাআল্লাহ এ সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন। (ফাতাওয়ায়ে মাহমুদিয়া : ২/২০৯)

 

মিহরাবে ইমাম ছাড়া অন্য কেউ নামাজ পড়া

প্রশ্ন : মসজিদের মিহরাবে ইমাম ছাড়া অন্য কোনো মুসল্লি যেকোনো সময় নামাজ পড়তে পারবে কি?

আকবর হোসাইন, মিরপুর

উত্তর : ফরজ নামাজ শেষে মিহরাব খালি থাকাকালীন ইমাম ছাড়া যেকোনো মুসল্লি মেহরাবে দাঁড়িয়ে নামাজ পড়লে সমস্যা নেই। কেননা ইসলামে এ ব্যাপারে কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই। (ফাতাওয়ায়ে দারুল উলুম : ৪/১৪০, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ৫/৯৫)

 

মৃতের ওলিদের মধ্যে ইমামতের অগ্রাধিকার কার?

প্রশ্ন : শরীয়তের বিধান অনুযায়ী মৃত ব্যক্তির জীবিত উত্তরাধিকারী কিংবা ঘনিষ্ঠ সম্পর্কযুক্ত ব্যক্তিদের জন্য জানাজার নামাজ পড়ানোর ধারাবাহিকতা জানতে চাই।

মিজান, ডুমনি, ঢাকা

উত্তর : মৃত ব্যক্তির উত্তরাধিকারীদের মধ্যে যদি তার পিতা, দাদা, চাচা, ভাই ও ছেলে জীবিত থাকে, তাহলে শরিয়তের বিধান মতে সেই ব্যক্তি জানাজার নামাজ পড়ানোর দিক থেকে অগ্রাধিকার পাবে। সর্বপ্রথম তার পিতা, তারপর ছেলে, তারপর ভাই এবং তারপর চাচা হবে। (হিন্দিয়া : ১/১৬৩, ৬/৪৫১, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ৫/১৪২)

 

সাক্ষী ফাসেক হলে বিয়ের বিধান

প্রশ্ন : আমার ভাই গোপনে বিয়ে করেছে। বিয়েতে যারা সাক্ষী ছিল, তারা নামে মুসলমান হলেও নামাজ-রোজা করে না। চলাফেরাও সুবিধা না। এক কথায় বলা যায় ফাসেক। তাদের সাক্ষী রেখে বিয়ে করা কি শুদ্ধ হয়েছে?

একরামুল হক, বরিশাল

উত্তর : ইসলামের দৃষ্টিতে বিবাহ শুদ্ধ হওয়ার জন্য দুজন মুসলমান সাক্ষী থাকা অপরিহার্য। তবে সাক্ষীদ্বয় মুত্তাকি হওয়া শর্তযুক্ত নয়। তাই প্রশ্নে বর্ণিত সাক্ষীদের সামনে সম্পাদিত বিবাহ ইসলামের দৃষ্টিতে শুদ্ধ হবে। (আল বাহরুর রায়েক : ৩/৮৯, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ৬/৫৭



সাতদিনের সেরা