kalerkantho

বুধবার । ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৮ ডিসেম্বর ২০২১। ৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে

গায়েবি মসজিদের কথা

মো. আলী এরশাদ হোসেন আজাদ   

২৫ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



গায়েবি মসজিদের কথা

দীর্ঘদিন পর আবিষ্কৃত হওয়া ময়মনসিংহের নান্দাইলের মুশুল্লি ইউনিয়নের নগরকুচুরী গ্রামে প্রায় এক হাজার ২০০ বছর আগের গায়েবি মসজিদে সহসাই ভেসে এলো আজানের ধ্বনি। লোকবিশ্বাস, শাহ সুলতান কমরুদ্দিন রুমির (রহ.) সময়ে মসজিদটি অলৌকিকভাবে তৈরি হয়।

এভাবে মহাকালের স্রোতধারায় বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে আছে গায়েবি মসজিদ। যেমন—শাহজালালের সফরসঙ্গী উসমান বোগদাদি, সৈয়দ মাহবুব খন্দকার, সৈয়দ তাহির খন্দকার বসতি স্থাপনের জন্য টিলা কেটে একটি মসজিদের সন্ধান পান সিলেটের ওসমানি নগরে। এটি লোকবিশ্বাসের গায়েবি মসজিদ। মসজিদের আছে পুরনো শিল্পসুষমা, ইটগুলো সাধারণের চেয়ে ভিন্ন আকৃতির এবং দেয়ালের প্রস্থ দেড় হাত।

রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার রতনদিয়া ইউনিয়নের রূপসা গ্রামে আছে গায়েবি মসজিদ। মসজিদসংলগ্ন মাজার থেকে অনুমিত, কোনো এক দরবেশ ইবাদতের জন্য সবার অলক্ষে মসজিদটি নির্মাণ করেন। লোকবিশ্বাস—এখানের মসজিদ, মাজার গায়েবিভাবে তৈরি হয়েছে।

বরিশালের বাকেরগঞ্জে আছে নিয়ামতি গায়েবি মসজিদ। জনশ্রুতি আছে, প্রায় ২০০ বছর আগে জিনেরা এক রাতে মসজিদটি তৈরি করে দেয়।

কিশোরগঞ্জের গুরাই ইউনিয়নের শাহি মসজিদ ৪০০ বছরের প্রাচীন এবং লোকবিশ্বাস অনুযায়ী, মসজিদটি গায়েবিভাবে নির্মিত।

জামালপুর জেলার দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার চিকাজানি এলাকায় ৫০০ বছর আগে গড়ে ওঠে একটি গায়েবি মসজিদ। জানা যায়, এলাকায় আগত কোনো এক পীর-ফকির ইবাদতের জন্য নির্জনস্থান বেছে নেন, তাঁর অলৌকিক ক্ষমতায় এক রাতে মসজিদটি নির্মিত হয়ে যায়।

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলার ছোট কুমিরা ইউনিয়নের মসজিদ্দা গ্রামের হাম্মাদিয়া মসজিদ, চট্টগ্রামের দ্বিতীয় প্রাচীন মসজিদ। কে বা কারা কবে মসজিদটি বানিয়েছে—তা কারো জানা নেই, তাই গোলাপি রঙের এ মসজিদটিকে সাধারণ মানুষ গায়েবি মসজিদ হিসেবে জানে।

ফটিকছড়ি উপজেলার হারুয়ালছড়ি ইউনিয়নের ফকিরপাড়ায় আছে একটি গায়েবি মসজিদ। প্রায় সাড়ে ৩০০ বছর আগে মোগল আমলের কিছু সুফিসাধক মসজিদটি নির্মাণ করেন।

ঢাকার নবাবগঞ্জ উপজেলার বান্দুরা গ্রামে আছে প্রায় ৪০০ বছরের প্রাচীন ভাঙা মসজিদ। সুবেদার ইসলাম খাঁ ১৬১৫ সালে এখানে একটি শাহি মসজিদ নির্মাণ করালেও তা কালেরগর্ভে হারিয়ে যায়। ১৮৮০ সালে সহসাই মসজিদটির সন্ধান মেলে। তখন থেকেই মসজিদটি পরিচিত ভাঙা মসজিদ, গায়েবি মসজিদ নামে।

কথিত আছে, জিলাদপুরে (মৌলভীবাজার, শ্রীমঙ্গল) মসজিদ বানানোর জমিতে মাপজোখ করতে করতেই সন্ধ্যা গড়িয়ে রাত হয়ে যায়। কিন্তু পরের দিন সকালে সবাই দেখে সেখানে সুন্দর একটি মসজিদ তৈরি হয়ে গেছে। হাজার বছরের প্রাচীন এ মসজিদটি এলাকাবাসীর কাছে গায়েবি মসজিদ ও অলৌকিকত্বের প্রতীক।

প্রায় ২০০ বছর আগের কথা, সীতাকুণ্ডের বারৈয়াঢালা ইউনিয়নের দারোগারহাটের কৃষক আবদুল গফুর শাহের পেশা ছিল গরু-বাছুর পালন। একদিন তাঁর একটি বাছুর পাহাড়ে হারিয়ে গেলে তা খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। অনেক দিন পর পাহাড়ের উঁচুস্থান থেকে বাছুরের ডাক শুনে গফুর গিয়ে দেখেন সেখানে একটি নামাজের স্থান। জনমানবহীন এ স্থানে কে নামাজ আদায় করেন, এ রহস্য ক্রমে ঘনীভূত হয়। তখন তিনি সেখানে একটি মসজিদ তৈরি করলেন। এরপর পাহাড় থেকে নিয়মিত আজানের ধ্বনি শোনা যেত। এভাবেই মসজিদটির নাম হয় গায়েবি মসজিদ।

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার বারোবাজারে রয়েছে সুলতানি আমলের ১৯টি মসজিদ। ৭০০ বছরের প্রাচীন এমসজিদগুলো মাটিচাপা পড়ে ছিল, এখনো সাতটি মসজিদ রয়েছে মাটির নিচে। মসজিদগুলোর অন্যতম : সাতগাছিয়া আদিনা মসজিদ, গলাকাটা মসজিদ, হসিলবাগ মসজিদ, নুনগোলা মসজিদ, জোড় বাংলা মসজিদ ইত্যাদি। এই মসজিদগুলো এলাকায় বারোবাজার মাটির নিচের গায়েবি মসজিদ নামে পরিচিত। মসজিদগুলোর প্রত্ন ও পর্যটন গুরুত্ব রয়েছে।

বাংলাদেশে গায়েবি মসজিদের তালিকা সুদীর্ঘ। যেমন : দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটের সুরা মসজিদ, ঝিনাইদহের পাঠাগার মসজিদ, পীরপুকুর মসজিদ, ঠাকুরগাঁওয়ের মেদিনি সাগর এককাতার গায়েবি মসজিদ, ফরিদপুরের রায়নগর আউলিয়া গায়েবি মসজিদ, হবিগঞ্জের উচাইল শংকরপাশা শাহি মসজিদ ইত্যাদি।

বস্তুত ‘মসজিদ’ আল্লাহর ঘর। নির্মাণরহস্য ও হারিয়ে যাওয়ার পর নতুনভাবে আবিষ্কৃত হওয়ার কারণে হয় গায়েবি মসজিদ। মুসলিম ঐতিহ্য, স্থাপত্যকৗৈশল, বিজয়স্মারকসহ বহুবিধ উজ্জ্বলতায় মসজিদ অনন্য। পবিত্র কোরআনের ভাষায় ‘নিশ্চয়ই মসজিদসমূহ আল্লাহর’ (সুরা জিন, আয়াত : ১৮)।

লেখক : সহকারী অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান, ইসলামিক স্টাডিজ, কাপাসিয়া ডিগ্রি কলেজ,  কাপাসিয়া, গাজীপুর

 



সাতদিনের সেরা