kalerkantho

সোমবার । ৯ কার্তিক ১৪২৮। ২৫ অক্টোবর ২০২১। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

খালা মায়ের মতো

বারাআ ইবনে আজিব (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘খালা হলো মাতৃস্থানীয়।’ তিরমিজি, হাদিস : ১৯০৪

আহমাদ রাইদ   

১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



খালা মায়ের মতো

যেসব পুরুষের সামনে নারীর দেখা দেওয়া ও কথা বলা জায়েজ এবং যাদের সঙ্গে বিবাহবন্ধন সম্পূর্ণ হারাম, ইসলামী শরিয়তের পরিভাষায় তাদের মাহরাম বলা হয়। আর যেসব পুরুষের সামনে যাওয়া নারীর জন্য বৈধ নয় এবং যাদের সঙ্গে বিবাহবন্ধন বৈধ—তাদের গায়রে মাহরাম বলা হয়। ইসলামের দৃষ্টিতে ১৩ ধরনের নারীকে

বিয়ে করা হারাম। তাদের মধ্যে খালা অন্যতম। চাই তিনি সহোদরা, বৈপিত্রেয় কিংবা বৈমাত্রেয় খালা হোন।

আর মাহরামদের সামনে নারীদের সতর হলো মাথা, চুল, গর্দান, কান, হাত, পা, টাখনু, চেহারা, গর্দানসংশ্লিষ্ট সিনার ওপরের অংশ ছাড়া বাকি পূর্ণ শরীর। (ফাতাওয়ায়ে হিন্দিয়া : ৫/৩২)

অন্যদিকে নারীদের জন্য নামাজ ছাড়া অন্য সময় গায়রে মাহরামের সামনে পূর্ণ শরীরই সতর। তবে অতীব প্রয়োজনে চেহারা, পা ও হাত খোলা জায়েজ আছে। যেমন—রাস্তায় প্রচণ্ড ভিড় হলে, আদালতে সাক্ষ্য দেওয়া ইত্যাদি। (ফাতাওয়া শামি : ১/৪০৬, ফাতাওয়া রহিমিয়া : ৪/১০৬)

আর খালা মায়ের মতো। বারাআ ইবনে আজিব (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘খালা হলো মাতৃস্থানীয়।’ (তিরমিজি, হাদিস : ১৯০৪)

এ হাদিসের সঙ্গে একটি দীর্ঘ ঘটনা আছে। ইবনে ওমর (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.)-এর কাছে একজন লোক এসে বলল, হে আল্লাহর রাসুল, আমি একটি কবিরা গুনাহ করে ফেলেছি। আমার তাওবা করার সুযোগ আছে কি? তিনি প্রশ্ন করেন, তোমার মা কি বেঁচে আছেন? সে বলল, না। তিনি আবার প্রশ্ন করেন, তোমার খালা কি বেঁচে আছেন? সে বলল, হ্যাঁ। তিনি বলেন, তাঁর সঙ্গে উত্তম আচরণ করো। (তালিকুর রাগিব ৩/২১৮)

কাজেই খালার সেবা-যত্ন ও নিয়মিত খোঁজ-খবর রাখা ঈমানি দায়িত্ব।



সাতদিনের সেরা