kalerkantho

বুধবার । ১৪ আশ্বিন ১৪২৮। ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১। ২১ সফর ১৪৪৩

প্রশ্ন-উত্তর

২৭ জুলাই, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ওয়াকফ সাব্যস্ত হওয়ার জন্য জমি রেজিস্ট্রি করতে হয়?

প্রশ্ন : আমার বাবা মসজিদের জন্য একটি জায়গা দিয়েছেন, যাতে মসজিদ নির্মাণ করে কয়েক বছর ধরে নামাজও হচ্ছে। ইদানীং কিছু লোক আমাদের ওই জমিটি রেজিস্ট্রি করে দেওয়ার জন্য খুব পীড়াপীড়ি করছে। মসজিদের ওয়াকফকৃত জায়গা ওয়াকফ সাব্যস্ত হওয়ার জন্য রেজিস্ট্রি করা কি জরুরি? রেজিস্ট্রি না করলেও কি তা মসজিদ হিসেবে গণ্য হবে?

গোলাম জিলানী, নোয়াখালী

উত্তর : ওয়াকফ সাব্যস্ত হওয়ার জন্য মৌখিক ওয়াকফই যথেষ্ট। লিখিত বা রেজিস্ট্রি করে দেওয়া জরুরি নয়। তবে ওয়াকফ সম্পদের সংরক্ষণের নিমিত্তে সরকারিভাবে রেজিস্ট্রি করা উত্তম ও নিরাপদ। মৌখিকভাবে ওয়াকফ করে দেওয়ার মাধ্যমে সর্বসাধারণের নামাজের জন্য নিঃস্বার্থভাবে প্রদান করার পর সেখানে নামাজ পড়া শুরু হলে তা মসজিদ হিসেবে বিবেচিত হবে। (আদ্দুররুল মুখতার : ৪/৩৫৫, রদ্দুল মুহতার : ৪/৩৫৬, ফাতাওয়ায়ে মাহমুদিয়া : ৬/১৫৮, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ৮/১৩১)

 

খরগোশের গোশত খাওয়ার বিধান

প্রশ্ন : ইসলামের দৃষ্টিতে খোরগোশের গোশত খাওয়ার বিধান কী? কোন জাতের খোরগোশের গোশত খাওয়া জায়েজ আর কোনো জাতেরগুলো জায়েজ নয়?

মাসুদ, নেত্রকোনা

উত্তর : যেসব জন্তুর গোশত রাসুল (সা.) নিজে খেয়েছেন এবং অন্যদের খেতে বলেছেন অথবা নিজে না খেলেও অন্যকে খেতে বলেছেন সেসব জন্তু হালাল হওয়ার মধ্যে কারো দ্বিমত নেই। খরগোশ জন্তুটি রাসুল (সা.) নিজেও খেয়েছেন এবং সাহাবিদেরও খেতে বলেছেন বলে একাধিক হাদিসের মাধ্যমে প্রমাণিত। তাই সব ধরনের খরগোশের গোশত হালাল—এতে সন্দেহের কোনো কারণ নেই। (তিরমিজি, হাদিস : ১৭৮৯, হিদায়া : ৪/৩৫২, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ১১/৩৮৯)

 

বায়নার টাকা ফেরত না দেওয়ার শর্ত করা

প্রশ্ন :  কেউ যদি এই শর্তে কিছু বিক্রি করে যেকোনো কারণে পণ্য নিতে ব্যর্থ হলে বায়নার টাকা ফেরত দেওয়া হবে না, তাহলে ইসলামের দৃষ্টিতে এই বেচাকানার বিধান কী?

একরামুল করিম, কুড়িগ্রাম

 

উত্তর : বায়নার টাকা ফেরত না দেওয়ার শর্তে ক্রয়-বিক্রয় ইসলাম সমর্থিত নয়। সুতরাং এ ধরনের চুক্তির ভিত্তিতে কৃত ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি রহিত করা জরুরি। এবং বায়নার টাকা যেহেতু পণ্যের মূল্যের অংশ, তাই ক্রেতা যেকোনো কারণে পণ্য গ্রহণ না করলে ওই টাকা তাকে ফেরত দিতে হবে। (আদ্দুররুল মুখতার : ৫/৮৪, ৫/৯১, ফাতাওয়ায়ে মাহমুদিয়া : ৪/১৭০, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ৯/৪২৯)

 

কাতার সোজা করার বিধান

প্রশ্ন : জামাতে নামাজ পড়ার ক্ষেত্রে কাতার সোজা করা ইসলামের কোন বিধানের পর্যায়ে পড়ে? সুন্নত, নাকি ওয়াজিব?

মাহতাব হোসেন, তেজগাঁও

উত্তর : রাসুল (সা.) কাতার সোজা করার প্রতি অনেক গুরুত্বারোপ করেছেন এবং কাতার বাঁকা রাখার প্রতি ভীতি প্রদর্শন করেছেন। তাই জামাতের সময় নামাজের কাতার সোজা করা সুন্নতে মুআক্কাদার অন্তর্ভুক্ত। (বুখারি, হাদিস : ৭২৩, উমদাতুল কারি : ৫/২৫৪, আদ্দুররুল মুখতার : ১/৫৬৮, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ৩/৩৯১)

 

সমাধান : ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার বাংলাদেশ, বসুন্ধরা, ঢাকা