kalerkantho

শনিবার । ৯ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৪ জুলাই ২০২১। ১৩ জিলহজ ১৪৪২

প্রশ্ন-উত্তর

২৩ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কারো চিকিৎসার জন্য মসজিদে টাকা উঠানো

প্রশ্ন : মসজিদ এলাকার গরিব ও অসহায় একজন মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়েছে। এখন তার চিকিৎসার জন্য টাকার প্রয়োজন। এমন ব্যক্তির জন্য জুমার দিন মসজিদে মুসল্লিদের থেকে টাকা-পয়সা উঠানো জায়েজ আছে কি?

আবরার করিম, নর্দ্দা, ঢাকা

উত্তর : এলাকার গরিব ব্যক্তির চিকিৎসার জন্য সাহায্যের ব্যাপারে মসজিদের মধ্যে মসজিদের আদব বজায় রেখে পরস্পর উৎসাহিত করা যায়। কিন্তু টাকা-পয়সা মসজিদের বাইরে গিয়ে দেওয়া উত্তম। (কিফায়াতুল মুফতি : ৩/১২৫, আপকে মাসায়েল আওর উনকা হল : ২/১৪৩, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ৯/৪১)

 

সফরে থাকাকালীন পুরো নামাজ পড়লে

প্রশ্ন : কোনো মুসাফির যদি ভুলবশত অথবা ইচ্ছাকৃতভাবে নামাজ পরিপূর্ণ পড়ে নেয়, তাহলে নামাজ শুদ্ধ হবে?

হারুন, নারায়ণগঞ্জ

উত্তর : ইসলামের দৃষ্টিতে মুসাফির সফরে থাকাকালীন মুক্তাদি না হলে সব সময় নামাজ কসর (চার রাকাতের ফরজ নামাজ দুই রাকাত আদায়) করবে। ভুলবশত চার রাকাত পড়লে যদি দ্বিতীয় রাকাতের পর প্রথম বৈঠক এবং শেষে সিজদায়ে সাহু করে থাকে তাহলে নামাজ শুদ্ধ হয়ে যাবে। ইচ্ছাকৃত চার রাকাত পড়লে গুনাহগার হবে। এ অবস্থায় নির্ভরযোগ্য মতানুসারে ফরজ আদায় হয়ে গেলেও নামাজটি পুনরায় পড়ে নেওয়া ওয়াজিব। (রদ্দুল মুহতার : ২/১২৮, মুখতাসারুল কুদুরি : ১/৩৫, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ৪/৩৪০)

 

নিরুপায় হয়ে অপবিত্র কাপড়ে নামাজ

প্রশ্ন : বাজার থেকে ঘরে ফেরার পথে প্রস্রাব দ্বারা আমার কাপড় নষ্ট হয়ে যায়। পথে পানির কোনো ব্যবস্থা নেই। এখন ঘরে পৌঁছতে নামাজের ওয়াক্ত শেষ হয়ে যাবে। এমন পরিস্থিতিতে আমার করণীয় কী?

আশফাক, সিংড়া

উত্তর : যে কাপড়ে প্রস্রাব লেগেছে, যদি তার চতুর্থাংশ বা এর বেশি অংশ পবিত্র হয় এবং আপনার কাছে কাপড় ধোয়ার কোনো ব্যবস্থা না থাকে, এমনকি এই কাপড় ছাড়া সঙ্গে অন্য কোনো কাপড়ও না থাকে এবং ব্যবস্থা করাও সম্ভব না হয়, এদিকে নামাজের সময়ও শেষ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে, তাহলে ওই কাপড় পরা অবস্থায়ই ওয়াক্তের ভেতরে নামাজ আদায় করে নেবে। পরে পুনরায় নামাজ পড়ার প্রয়োজন হবে না। (তাবয়িনুল হাকায়েক : ১/৯৭, এমদাদুল ফাতাওয়া : ১/৯৮)

 

মশার রক্ত পোশাকে লাগলে

প্রশ্ন : আমাদের এলাকায় মশার উপদ্রব খুব বেশি। অনেক সময় নিজের অজান্তেই মশা মরে কাপড়ে রক্ত লেগে যায়। মাঝেমধ্যে আমার পাঞ্জাবি ও গেঞ্জির অনেক জায়গায় মশার রক্ত লেগে থাকে। এ অবস্থায় নামাজ পড়লে নামাজ হবে?

নেছারউদ্দিন খোকন, চাঁদপুর

উত্তর : মশার রক্ত অপবিত্র নয়। তাই আপনার পাঞ্জাবি ও গেঞ্জির একাধিক জায়গায় মশার রক্ত লেগে থাকলেও তা পরে নামাজ পড়তে কোনো অসুবিধা নেই। (বাদায়েউস সানায়ে : ১/৩৬৩, ফাতাওয়ায়ে কাজি খান : ১/১০, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ৩/১০৩)

 

সমাধান : ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার বাংলাদেশ, বসুন্ধরা, ঢাকা