kalerkantho

শুক্রবার । ৮ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৩ জুলাই ২০২১। ১২ জিলহজ ১৪৪২

যে কারণে হাসিমুখে কথা বললে সদকার সওয়াব

জাওয়াদ তাহের   

২০ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য হওয়ার জন্য মুচকি হাসি জাদুময় এক রহস্য। মুচকি হাসি আল্লাহর দান; মানবদেহের এক নীরব শক্তিশালী ভাষা। মানুষের সঙ্গে ভ্রাতৃত্ব-বন্ধনের সেতু। মানুষের মন জয় করার সহজ উপায় একচিলতে হাসি। এ জন্য মুচকি হাসিকে ‘সৌভাগ্যের প্রতীক’ বলা হয়। আবু জার (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘তোমার হাস্যোজ্জ্বল মুখ নিয়ে তোমার ভাইয়ের সামনে উপস্থিত হওয়া তোমার জন্য সদকাস্বরূপ। তোমার সৎকাজের আদেশ এবং তোমার অসৎকাজ থেকে বিরত থাকার নির্দেশ তোমার জন্য সদকাস্বরূপ। পথহারা লোককে পথের সন্ধান দেওয়া তোমার জন্য সদকাস্বরূপ, স্বল্পদৃষ্টিসম্পন্ন লোককে সঠিক দৃষ্টি দেওয়া তোমার জন্য সদকাস্বরূপ। পথ থেকে পাথর, কাঁটা ও হাড় সরানো তোমার জন্য সদকাস্বরূপ। তোমার বালতি দিয়ে পানি তুলে তোমার ভাইয়ের বালতিতে ঢেলে দেওয়া তোমার জন্য সদকাস্বরূপ।’ (তিরমিজি, হাদিস : ১৯৫৬)

প্রশ্ন হলো, অন্যের সঙ্গে হাসিমুখে কথা বলা কিভাবে সদকা হয়! এর জবাব হলো, সদকার মাধ্যমে যেভাবে মানুষ অন্যের মনে আনন্দকে জাগিয়ে তোলে, অন্যকে আনন্দিত করে তোলে, তেমনি হাসিমুখে কথা বলা, পথহারা লোককে পথ দেখানো, পথের কাঁটা সরিয়ে দেওয়া ইত্যাদি অন্যের উপকার হয়—এমন যেকোনো কাজের মাধ্যমে অন্যের ভেতর খুশির অনুভূতি তৈরি করা হয়। এর মাধ্যমে অন্যকে আনন্দিত করা হয়। তাই হাসিমুখে কথা বলা সদকাস্বরূপ। আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘ধন-সম্পদ দান করার দ্বারা তোমরা ব্যাপকভাবে লোকদের সন্তুষ্ট করতে সক্ষম হবে না; কিন্তু মুখমণ্ডলের প্রসন্নতা ও প্রফুল্লতা এবং চরিত্র মাধুর্য দ্বারা ব্যাপকভাবে তাদের সন্তুষ্ট করতে পারবে।’ (বুলুগুল মারাম, হাদিস : ১৫৩৪ )

এ জন্যই রাসুল (সা.) সাহাবাদের সঙ্গে মুচকি হাসি ছাড়া কখনোই কথা বলতেন না। জারির (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, ‘আমি যখন ইসলাম গ্রহণ করেছি, তখন থেকে আল্লাহর রাসুল (সা.) আমাকে তাঁর কাছে প্রবেশ করতে বাধা দেননি এবং যখনই তিনি আমার চেহারার দিকে তাকাতেন, তখন তিনি মুচকি হাসতেন।’ (বুখারি, হাদিস : ৩০৩৫ )

এক টুকরা মুচকি হাসি সীমাহীন ক্রোধের আগুন নিভিয়ে দেয়। সন্দেহ-সংশয়ের নিকষ কালো অন্ধকার মুহূর্তেই শেষ করে দেয়। ইমাম বুখারি (রহ.) তাঁর কালজয়ী গ্রন্থে ‘মুচকি হাসি’ নামে একটি অধ্যায় এনেছেন। আল্লামা ইবনে বাত্তাল (রহ.) বলেন, মুচকি হাসির মাধ্যমে সাক্ষাৎ করা রাসুল (সা.)-এর আদর্শ এবং এটা অহংকারের পরিপন্থী আর দুজনের মধ্যে ভালোবাসার সহায়ক। (শরহুল বুখারি : ৫/১৯৩)

আমাদের রাসুল (সা.) সর্বদা মুচকি হাসতেন। আবদুল্লাহ ইবনুল হারিস ইবনে জাজয়ি (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, ‘আমি রাসুল (সা.)-এর চেয়ে বেশি মুচকি হাসি দিতে আর কাউকে দেখিনি।’ (তিরমিজি, হাদিস : ৩৬৪১)

 



সাতদিনের সেরা