kalerkantho

শুক্রবার । ২২ শ্রাবণ ১৪২৮। ৬ আগস্ট ২০২১। ২৬ জিলহজ ১৪৪২

প্রচলিত ভুল সংশোধন : আরিম ফাহাদ, বংশাল, ঢাকা

আজানের সময় কথা বলা

১৬ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রশ্ন : আমার নানু আজানের সময় কথা বললে রাগ করেন এবং প্রায় আমাদের বলেন, আজানের সময় কথা বললে ঈমান চলে যায়। কথাটি কি ঠিক?

উত্তর : আজানের সময় কথা বলা নিন্দনীয় এবং সুন্নাহপরিপন্থী কাজ। আজানের সময় তার উত্তর দেওয়া এবং আজান শেষে দরুদ ও দোয়া পাঠ করাই নিয়ম। তবে আজানের সময় কথা বললে ঈমান চলে যাবে এমন কোনো প্রমাণ পাওয়া যায় না। যিনি বলেন আজানের সময় কথা বললে ঈমান চলে যাবে, তিনি সম্ভবত হাদিস হিসেবে প্রচলিত একটি কথার ওপর ভিত্তি করেই তা বলে থাকেন। যাতে বলা হয়েছে—‘যে ব্যক্তি আজানের সময় কথা বলে তার ঈমান চলে যাওয়ার আশঙ্কা আছে।’ আল্লামা সাগানি (রহ.) বলেছেন, ‘এটি হাদিস নয়; বরং একটি জাল বা বানোয়াট বক্তব্য।’ (রিসালাতুল মাওদুয়াত, পৃষ্ঠা ১২)। আজানের জবাব দেওয়ার নিয়ম হলো মুয়াজ্জিন যে শব্দ উচ্চারণ করবে শ্রোতাও সে শব্দ উচ্চারণ করবে। শুধু ‘হাইয়া আলাস সালাহ’ ও ‘হাইয়া আলাল ফালাহ’ বলার সময় ‘লা-হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ’ পাঠ করবে। আজান শেষ হলে রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর ওপর দরুদ পাঠ করবে এবং আজানের দোয়া পাঠ করবে। (কাশফুল খাফা : ২/২২৬, ২৪০)

গ্রন্থনা : মুফতি আবদুল্লাহ নুর

 



সাতদিনের সেরা