kalerkantho

শুক্রবার । ২২ শ্রাবণ ১৪২৮। ৬ আগস্ট ২০২১। ২৬ জিলহজ ১৪৪২

প্রশ্ন-উত্তর

১৬ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



প্রতিশ্রুতি পূরণের আগে দাতা মারা গেলে

প্রশ্ন : আমার এক ছোট ভাই আমার দাদির কাছে তার মোবাইল ফোন চেয়েছিল। দাদি তাকে ওই মোবাইল ফোনটি দেবে বলে ওয়াদাও করেছে। কিন্তু হঠাৎ দাদি মারা যায়। এখন কবির কি তার দাদির ত্যাজ্য সম্পদ থেকে মিরাছ বণ্টন হওয়ার আগে ওই মোবাইলটি নিতে পারবে?

মিজান, ডুমনি, ঢাকা

উত্তর : হেবা সহিহ হওয়ার জন্য হেবাকৃত বস্তু হেবাগ্রহীতার হস্তগত হওয়া জরুরি। সুতরাং প্রশ্নে উল্লিখিত ব্যক্তি যেহেতু দাদির মৃত্যুর আগে মোবাইলটি হস্তগত করেনি, তাই মৃত্যুর পর এ মোবাইল বণ্টনযোগ্য সম্পদের অন্তর্ভুক্ত হবে। হ্যাঁ, সাবালক ওয়ারিশদের সম্মতিতে তা নিতে পারবে, অন্যথায় নয়। (আদ্দুররুল মুখতার : ৫/২৯০, রদ্দুল মুহতার : ৫-২৯০, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ১১/১১৭)

 

পুরনো মসজিদের দরজা, কাঠ অন্য মসজিদে দান করা

প্রশ্ন : আমাদের পার্শ্ববর্তী একটি মসজিদ পুনর্নির্মাণ করা হয়েছে। ওই মসজিদের পুরনো কাঠের দরজা এবং জানালা আমাদের মাদরাসা ও মসজিদের কাজে দান করা হয়েছে। ওই মসজিদের দরজা ও জানালা আমাদের মাদরাসা ও মসজিদের কাজে লাগানো যাবে কি না?

হামিদুল্লাহ, মিরপুর

উত্তর : যেসব জিনিসের উল্লেখ প্রশ্নে করা হয়েছে, তা যদি বর্তমানে প্রয়োজন না হয় তখন তা বিক্রি করে তার মূল্য মসজিদের অন্য কাজে লাগাতে পারবে, তা দান করা যাবে না। হ্যাঁ, খরিদদার যেখানে ইচ্ছা হয়, সেখানে লাগাতে পারবে। (আল বাহরুর রায়েক : ৫/৩৪৫, আদ্দুররুল মুখতার : ৪/৩৭৭, মাহমুদিয়া : ১৮/২১৫, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ৮/৪০১)

 

সরকারি পুকুরের আয় মসজিদে ব্যয় করা

প্রশ্ন : আমাদের গ্রামে একটি খাস পুকুর আছে। আমরা সবাই মিলে ওই পুকুরে মাছ আবাদ করে আমাদের প্রয়োজনীয় কাজ চালাই। এখন আমরা মনস্থ করেছি যে ওই পুকুরের মাছ বিক্রি করে ওই টাকা দিয়ে মসজিদের কাজ সম্পাদনা করব। প্রশ্ন হলো, ওই পুকুরের টাকা দিয়ে মসজিদের কাজ করা যাবে কি?

পলাশ, নোয়াখালী

উত্তর : সরকারি কর্তৃত্বাধীন খাস পুকুরে মাছের চাষ কর্তৃপক্ষের অনুমতিক্রমে হলে তার আয় নিজে ভোগ করা বা মসজিদ অথবা অন্য কোনো ভালো কাজে খরচ করা সবই জায়েজ হবে। পক্ষান্তরে অনুমতি ছাড়া ওই পুকুরে মাছের চাষ করে টাকা উপার্জন করা জায়েজ নেই। (আদ্দুররুল মুখতার : ৬/২০০, ফাতাওয়ায়ে মাহমুদিয়া : ১৩/৩৯৭, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ৮/১৯৮)

 

মৃত মুরগির ডিম খাওয়া কি বৈধ?

প্রশ্ন : মৃত মুরগির পেট থেকে ডিম বের করে খাওয়া জায়েজ হবে কি না? এবং পেটের ভেতর দুই ধরনের ডিম থাকে—একটা খোসাওয়ালা এবং খোসা ছাড়া, উভয়টির কী বিধান?

মুশফিক, মহাখালী

উত্তর : প্রশ্নে বর্ণিত মৃৃত মুরগি থেকে বের করা ডিম খোসাযুক্ত হোক বা খোসাবিহীন হোক শরিয়তের দৃষ্টিতে তা খাওয়া জায়েজ হলেও তা না খাওয়া উত্তম। বিশেষ করে খোসাবিহীন ডিমগুলো। (বাদায়েউস সানায়ে : ৫/৪৩, মাওসাআতুল ফিকহিয়্যাহ আল কুয়েতিয়াহ : ৮/২৬৭, আজিজুল ফাতাওয়া : ৭১৫, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ১১-৩৯৩)

 

সমাধান : ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার বাংলাদেশ, বসুন্ধরা, ঢাকা



সাতদিনের সেরা