kalerkantho

শনিবার । ৯ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৪ জুলাই ২০২১। ১৩ জিলহজ ১৪৪২

প্রশ্ন-উত্তর

১৪ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আমিন না বলে যাবেন না’—পোস্টের বিধান

প্রশ্ন : ফেসবুকের নিউজফিডে দেখা যায় যে অনেকে পোস্ট করে, ‘আপনি মুসলমান হয়ে থাকলে অবশ্যই একবার হলেও আমিন বা আল্লাহ লিখুন’। এরূপ পোস্টে যদি আমরা কমেন্ট না করি, তাহলে কি গুনাহগার হব?

মিজানুর রহমান, ফেনী

উত্তর : এ জাতীয় পোস্টের কমেন্টে ‘আল্লাহ’ শব্দ লেখা বা না লেখার সঙ্গে গুনাহ বা সওয়াবের কোনো সম্পর্ক নেই।

 

স্মার্টফোনে কোরআন পাঠ

প্রশ্ন : অনেকেই এখন কোরআনের মুদ্রিত মাসহাফ না পড়ে স্মার্টফোনে সংরক্ষিত কোরআন পাঠ করে। স্মার্টফোনে সংরক্ষিত কোরআন পাঠ করলে সওয়াব হবে? দয়া করে জানাবেন।

শাহ নিজাম, ময়মনসিংহ

উত্তর : মোবাইল ফোনে সংরক্ষিত কোরআন পাঠ করলেও সওয়াব হবে। তবে বর্তমানে মোবাইল ফোন বিভিন্ন গুনাহের কাজে ব্যবহার হওয়ায় সেখান থেকে না পড়ে প্রচলিত মাসহাফ (মুদ্রিত কোরআন) থেকে পড়াই উচিত। (মজমাউজ যাওয়ায়েদ : ৮/১৬৫)

 

ইসলামের দৃষ্টিতে ভিওআইপি ব্যবসা

প্রশ্ন : ইসলামের দৃষ্টিতে ভিওআইপি কলিংয়ের ব্যবসা করার বিধান কী? দয়া করে জানাবেন।

আবু বকর, ঢাকা

উত্তর : জনস্বার্থে করা রাষ্ট্রীয় আইন ইসলামের সঙ্গে সাংঘর্ষিক না হলে নাগরিকদের জন্য তা পালন করা আবশ্যক। ভিওআইপি ব্যবসা অবৈধভাবে করা হলে তাতে রাষ্ট্রীয় আইন লঙ্ঘন হয়। তাই ইসলামের দৃষ্টিতে এমন ব্যবসার অনুমতি দেওয়া যায় না। (সুরা নিসা : ৫৯, তাফসিরে মাজহারি : ২/১৫০, ফাতহুল মুলহিম : ৩/৩২৩)

 

বেওয়ারিশ লাশের সম্পদ মসজিদে  দেওয়া যাবে?

প্রশ্ন : আমাদের এলাকায় এক ব্যক্তি কোথা থেকে এসে বসবাস করে। কেউ তার ঠিকানা জানে না। কিন্তু কিছু দিন পর সে বিয়ে করে এবং তার স্ত্রী তার আগেই সন্তানবিহীন অবস্থায় ইন্তেকাল করে। এর কিছু দিন পর উক্ত ব্যক্তি ইন্তেকাল করে। ইন্তেকালের সময় সে অর্জিত কিছু সম্পদ রেখে যায়। তার সম্পদ মসজিদ-মাদরাসায় বা ধর্মীয় কোনো প্রতিষ্ঠানে ব্যয় করা যাবে?

আকরাম চৌধুরী, বনশ্রী

উত্তর : তদন্তের পর প্রশ্নে বর্ণিত ব্যক্তির কোনো ওয়ারিশের সন্ধান পাওয়া না গেলে তার রেখে যাওয়া সম্পদ মসজিদ-মাদরাসায় ব্যয় করা জায়েজ হবে না; বরং তার পক্ষ থেকে গরিব-মিসকিনদের সদকা করে দেবে। (রদ্দুল মুখতার : ২/৩৩৮, ফাতাওয়ায়ে সিরাজিয়া : ৭৮)

 

কবরস্থানে মসজিদ নির্মাণ

প্রশ্ন : আমাদের এলাকায় একটি ওয়াকফকৃত কবরস্থানে শতাধিক বছর থেকে লাশ দাফন করে আসছে। এখন কিছু লোক একত্র হয়ে মসজিদ-মাদরাসার নামে ওই কবরস্থানে দুই-তিন তলাবিশিষ্ট ভবন নির্মাণ করছে। অতএব আমার জানার বিষয় হলো, কবরস্থানের জন্য ওয়াকফকৃত জায়গায় ভবন নির্মাণ করা ইসলামের বিধানমতে জায়েজ?

মাহফুজ, কুড়িগ্রাম

উত্তর : ওয়াকফকৃত কবরস্থানে কবর দেওয়ার ধারাবাহিকতা চালু থাকলে তাতে মসজিদ বা মাদরাসা ভবন তৈরি করার অনুমতি নেই। (আদ্দুররুল মুখতার : ১/৩৯০, রদ্দুল মুহতার : ৪/৪৩৩, ফাতাওয়ায়ে রশিদীয়া : ৫৩৫)

 

সমাধান : ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার বাংলাদেশ, বসুন্ধরা, ঢাকা