kalerkantho

শনিবার । ১৬ শ্রাবণ ১৪২৮। ৩১ জুলাই ২০২১। ২০ জিলহজ ১৪৪২

প্রশ্ন-উত্তর

১৩ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



অধিক পাতলা পোশাক পরা

প্রশ্ন : পুরুষের জন্য এমন পোশাক পরার বিধান কী, যা পরার দ্বারা শরীরের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ বাইরে প্রকাশ পায়?

তারেক মাহমুদ, শাহী বাজার, নারায়ণগঞ্জ

 

উত্তর : সতরের অংশ প্রকাশ পায়—এমন পোশাক পরা জায়েজ নেই। সতর ছাড়া অন্য অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ প্রকাশ পায়, এমন পাতলা কাপড় পরা অবৈধ নয়। হাদিসে পুরুষের পাতলা পোশাকের বৈধতার প্রমাণ আছে। (আবু দাউদ, হাদিস : ৪১১৬, মিরকাত : ৮/১৬৮, আদ্দুররুল মুখতার : ১/৪১০, রদ্দুল মুহতার : ১/৪১০, আহসানুল ফাতাওয়া : ৮/৬৫, আফকে মাসায়েল আওর উনকা হল : ৭/১৬৬)

 

যে কাজে সওয়াবও নেই, গুনাহও নেই

প্রশ্ন : এমন কোনো কাজ কি আছে, যেগুলোতে সওয়াবও নেই, গুনাহও নেই।

শাহরিয়ার হোসেন শিহাব, পাগলা, নারায়ণগঞ্জ

উত্তর : যেসব কাজ করার কোনো নির্দেশ শরিয়তে নেই এবং এর নিষেধাজ্ঞাও আসেনি আর তাতে পরকালীন কোনো কল্যাণও নেই, সেগুলো আপনার প্রশ্নোক্ত কাজের অন্তর্ভুক্ত অর্থাৎ সওয়াবও নেই, গুনাহও নেই। ইসলামী পরিভাষায় এগুলোকে মুবাহ বলে। তবে এজাতীয় মুবাহ কাজেও নিয়ত ভালো হলে সওয়াব পাওয়া যায়। (বুখারি, হাদিস : ১, আল মওসুআতুল ফিকহিয়্যাহ আল কুয়েতিয়্যাহ : ১/১৩৩)

 

চতুর্থ রাকাতে না বসে দাঁড়িয়ে গেলে

প্রশ্ন : নামাজের চতুর্থ রাকাতে যদি ইমাম না বসে ভুলবশত দাঁড়িয়ে যান, পরে মুসল্লিদের লোকমা পেয়ে বসেন, তাহলে কি সাহু সিজদা দিতে হবে?

সালমান, চট্টগ্রাম

উত্তর : চতুর্থ রাকাতে ইমাম না বসে ভুলবশত পূর্ণ দাঁড়িয়ে গেলে কিংবা দাঁড়ানোর নিকটবর্তী হওয়ার পর লোকমা পেয়ে বসে গেলে সাহু সিজদা দিতে হবে। (আদ্দুররুল মুখতার : ২/৮৫, মাহমুদিয়া : ২/১৬৮, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ৪/১৮০)

 

অন্যের হক না দিলে কী শাস্তি

প্রশ্ন : বোনদের ওয়ারিশি সম্পত্তি না দেওয়া, মালিকানা কিংবা সরকারি গাড়ির ভাড়া, দোকানদারের পাওনা ইত্যাদি না দিলে পরকালে কী ধরনের শাস্তি হবে?

আবু বকর, চট্টগ্রাম

উত্তর : অন্যের সব ধরনের প্রাপ্য হক পরিশোধ করা ওয়াজিব। অন্যের হক আদায় না করা কবিরা গুনাহ। পরকালে তাকে সীমাহীন শাস্তির সম্মুখীন হতে হবে মর্মে কোরআন হাদিসে বহু জায়গায় হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করা হয়েছে। (সুরা : বাকারা, আয়াত : ১৮৮, তিরমিজি, হাদিস : ৩৩৬, মুসলিম, হাদিস : ২৫৮২, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ১১/১৩৮)

 

দুলাভাইয়ের সঙ্গে হজে যাওয়া

প্রশ্ন : আমার জানামতে কোনো নারী স্বামী বা মাহরাম ছাড়া হজে যেতে পারে না। এ ক্ষেত্রে কোনো নারী তার আপন বোনের জামাতার সঙ্গে হজ সম্পাদন করলে তা কবুল হবে কি?

মো. ফরিদ আহমেদ, বালারহাট, শরীয়তপুর

উত্তর : স্বামী বা মাহরাম ছাড়া নারীদের জন্য হজে যাওয়া বৈধ নয়। তাই কোনো নারী তার বোনের জামাতার সঙ্গে হজে যাওয়া বৈধ নয়। তবে কেউ এভাবে হজ করে ফেললে তার হজের ফরজ আদায় হয়ে যাবে। পুনরায় হজ করার প্রয়োজন নেই। কিন্তু স্বামী বা মাহরাম ছাড়া যাওয়ায় গুনাহগার হবে। (মুসলিম, হাদিস : ১৩৪০, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ৫/৫৪০)

 

সমাধান : ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার বাংলাদেশ, বসুন্ধরা, ঢাকা