kalerkantho

সোমবার । ১১ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৬ জুলাই ২০২১। ১৫ জিলহজ ১৪৪২

যে সাহাবি ঘোড়ার চেয়েও দ্রুত দৌড়াতে পারতেন

বেলায়েত হুসাইন   

৫ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মহানবী (সা.)-এর সাহাবিরা একেকজন একেক কাজে বিশেষ দক্ষ ছিলেন। তাঁদের মধ্যে একজন অন্যদের তুলনায় খুব দ্রুত দৌড়াতে পারতেন। একবার কাফিররা মহানবী (সা.)-এর উট চুরি করে নিয়ে যাচ্ছিল, তখন এই সাহাবি চোরদের পিছু ধাওয়া করলেন এবং তাদের সবাইকে পরাস্ত করে উট ছিনিয়ে আনলেন।

শুধু তা-ই নয়, চোররা ভয়ে নিজেদের সামানপত্রও ফেলে রেখে পালিয়ে গেল। এই সাহাবির আরো একটি বিশেষ মর্যাদা আছে, যখন রাসুল (সা.) বাইয়াতে রিদওয়ানের শপথ নিলেন, তখন তাঁর থেকে তিন-তিনবার শপথ নিয়েছেন। আল্লাহর রাসুলের এই সাহাবির নাম হজরত সালামাহ বিন আকওয়া (রা.)। তিনি বেশ লম্বা, সুঠামদেহী, দ্রুতগামী এবং যথেষ্ট সাহসী ছিলেন। তিনি মদিনা মনওয়ারার অদূরে মাররুজ জাহরান নামক এলাকায় থাকতেন। বর্তমানে এই জায়গাটি ফাতেমা উপত্যকা নামেও পরিচিত। পঞ্চম হিজরির খন্দকের যুদ্ধের পরপরই তিনি ইসলামের ছায়াতলে আশ্রয় গ্রহণ করেন। অসহায় অবস্থায় মদিনায় এসে আনসারি সাহাবি হজরত আবু তালহা (রা.)-এর বাড়িতে কাজের দায়িত্ব নেন; তাঁর ঘোড়া চরানো, সেগুলোকে দানা-পানি খাওয়ানো ও দেখভাল করতেন। এর বিনিময়ে হজরত আবু তালহা (রা.) তাঁর খাওয়াদাওয়া ও প্রয়োজনীয় জীবনযাপনের ব্যবস্থা করেন। এরই মধ্যে ৬ হিজরি চলে আসে। এ বছর আল্লাহর রাসুল (সা.) মক্কার কাফিরদের সঙ্গে হুদাইবিয়ার চুক্তি করেন। এক হাজার ৪০০ সাহাবিকে সঙ্গে নিয়ে মক্কার দিকে রওনা হন তিনি। মদিনা থেকে বের হয়েই জুলহুলাইফায় এসে সবাই ওমরাহর নিয়তে ইহরাম পরিধান করেন। রাসুল (সা.)-এর সঙ্গে থাকা সাহাবিদের মধ্যে হজরত সালামাহ বিন আকওয়া (রা.)ও ছিলেন। পবিত্র এই কাফেলাটি যখন মক্কার অদূরে হুদাইবিয়ায় পৌঁছল, তখন মহানবী (সা.) সেখানে যাত্রাবিরতি করলেন। এরই মধ্যে কুরাইশ নেতারা জানতে পারল সাহাবিদের সঙ্গে নিয়ে রাসুল (সা.) মক্কায় আসছেন। তারা বিভিন্ন বাহানা দেখিয়ে আল্লাহর রাসুল (সা.)-কে ওমরাহ পালনে বাধা দিল এবং তারা রাসুলের কাছে দূত প্রেরণ করল। তখন আল্লাহর রাসুল (সা.)ও তাঁর প্রিয় জামাতা হজরত উসমান (রা.)-কে দূত হিসেবে পাঠালেন মক্কার কাফিরদের কাছে। কেননা মক্কায় উসমান (রা.)-এর অনেক আত্মীয়-স্বজন ছিল, অবিশ্বাসীরা অন্তত আত্মীয় হিসেবেও যাতে উসমানকে নিরাপত্তা দেয় এবং তাঁর সঙ্গে কোনো রকম শঠতা না করে—মূলত এ জন্যই তিনি দূত নির্বাচিত হন। মক্কায় আসার পর বেশ কিছু সময় হজরত উসমান (রা.)-এর কোনো খবর পাওয়া যায়নি। এরই মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে যে তিনি নিহত হয়েছেন। এই পরিস্থিতিতে আল্লাহর রাসুল (সা.) এখানকার একটি গাছের নিচে বসে সাহাবিদের ডাকেন এবং শপথ গ্রহণ করেন যে আমরা যুদ্ধের ময়দান ত্যাগ করব না। এ অনুষ্ঠানে সবার আগে যিনি শপথ নেন তিনি হলেন হজরত আবু সিনান আসাদি (রা.)। যাঁরা শুরুতে বাইয়াত গ্রহণ করেন, তাঁদের মধ্যে হজরত সালামাহ বিন আকওয়া (রা.)ও ছিলেন। শপথ গ্রহণ চলাকালে আল্লাহর রাসুল (সা.) আওয়াজ করে ডাক দেন, সালামাহ বিন আকওয়া! তখন তিনি কাছেই ছিলেন। উত্তর দিলেন, আল্লাহর রাসুল (সা.) আমি উপস্থিত, আপনি বলুন...।



সাতদিনের সেরা