kalerkantho

সোমবার । ৭ আষাঢ় ১৪২৮। ২১ জুন ২০২১। ৯ জিলকদ ১৪৪২

যাদের জাকাত দেওয়া যাবে না

মুফতি তাজুল ইসলামf   

৭ মে, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



যাদের জাকাত দেওয়া যাবে না

যাদের জাকাত দেওয়া যায় না, তারা হলো—

এক.  কাফির।

দুই.  নিসাব পরিমাণ সম্পদের মালিক।

তিন.  নিসাব পরিমাণ সম্পদের মালিকের নাবালক সন্তান।

চার.  বনু হাশিমের লোক।

পাঁচ.  মা, বাবা, দাদা, দাদি, নানা, নানি—একইভাবে যত ওপরের স্তরের দিকের কাউকে জাকাত দেওয়া যাবে না। অর্থাৎ যাদের মাধ্যমে দুনিয়ায় এসেছ, তাদেরসহ ওপরের স্তরের কাউকে জাকাত দেওয়া যাবে না।

ছয়.  নিজের মাধ্যমে যারা দুনিয়ায় এসেছে, অর্থাৎ ছেলে-মেয়ে ও তাদের সন্তানাদি একইভাবে তাদের সন্তানদের জাকাত দেওয়া যাবে না।

সাত.  স্ত্রী ও স্বামী একে অন্যকে জাকাত দিতে পারবে না।

আট.  মসজিদ-মাদরাসা, পুল, রাস্তা, হাসপাতাল বানানোর কাজে এবং মৃতের দাফনের কাজে জাকাতের টাকা দেওয়া যাবে না। (ফাতাওয়া হিন্দিয়া : ১/১৮৮, ১৮৯; তাতারখানিয়া : ৩/২০৬; আদ্দুররুল মুখতার : ৩/২৯৪, ২৯৫)

 

ভাই-বোন, ফুফু-ফুফা, খালা-খালু, মামা-মামিকে জাকাত দেওয়ার বিধান

সহোদর ভাই-বোন, ফুফু-ফুফা, খালা-খালু, মামা-মামি যেহেতু উসুল বা ফুরু—অর্থাৎ জাকাতদাতার মূল বা শাখা নয়। তাই তাদের জাকাত দেওয়া যাবে, যদি তারা জাকাত গ্রহণের উপযোগী হয়। এভাবে জাকাতের টাকা দিয়ে কাপড় কিনে দিলেও জাকাত আদায় হয়ে যাবে। অন্তরে জাকাতের নিয়ত রেখে মুখে তা উল্লেখ না করে দিয়ে দিলেও জাকাত আদায় হয়ে যাবে। (হিদায়া : ১/২০৬, বাদায়ে : ২/৪৯)

 

জাকাতের অর্থ জনকল্যাণমূলক কাজে ব্যয় করার বিধান

জাকাতের অর্থ শুধু গরিবদের ব্যক্তিমালিকানায় দিয়ে দিলেই জাকাত আদায় হয়। সুতরাং মসজিদ, হাসপাতাল, রাস্তাঘাট, কালভার্ট ও হাসপতাল নির্মাণের ক্ষেত্রে জাকাতের অর্থ খরচ করা যাবে না। কারণ এসব ক্ষেত্রে জাকাতের অর্থ ব্যয় ব্যক্তিবিশেষকে মালিক বানিয়ে দেওয়া হয় না। (তাতারখানিয়া : ৩/১৯৮, ২০৮; দুররুল মুখতার : ৩/১৭১-১৭৩)।