kalerkantho

শনিবার । ৯ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৪ জুলাই ২০২১। ১৩ জিলহজ ১৪৪২

প্রশ্ন-উত্তর

২৭ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



গয়না ছাড়া জাকাত দেওয়ার মতো নগদ টাকা না থাকলে

প্রশ্ন : বিয়ের সময় আমার শ্বশুর আমার স্ত্রীকে বেশ কিছু গয়না দিয়েছেন, যার ওপর জাকাত ফরজ হয়। কিন্তু আমার এত টাকা জাকাত দেওয়ার সামর্থ্য নেই। আমার স্ত্রীর কাছেও নগদ কোনো টাকা নেই, যা দিয়ে সে জাকাত দেবে। এমতাবস্থায় আমাদের করণীয় কী?

মোরশেদ আলম সুজন, নোয়াখালী

উত্তর : নগদ টাকা না থাকলে ঋণ করে অথবা গয়না বা অন্য কিছু বিক্রি করে হলেও আপনার স্ত্রীর ওপর স্বীয় জাকাত আদায় করা ফরজ। (ফাতাওয়ায়ে মাহমুদিয়া : ৭/২৪৩)

 

ভাড়ার উদ্দেশ্যে নির্মিত মার্কেট ও বাড়ির ওপর জাকাত আসবে?

প্রশ্ন : আমার বাবা বিদেশ থেকে ফেরার পর ভাড়া দেওয়ার উদ্দেশ্যে শহরে বাড়ি বানিয়েছেন এবং মার্কেট বানিয়েছেন, যার উপার্জন থেকে এখনো আমাদের সংসার চলে। জানার বিষয় হলো, ভাড়ার উদ্দেশ্যে নির্মিত বাড়ি ও মার্কেটের ওপর জাকাত আসবে কি?

বিলকিস, মিরপুর, ঢাকা

উত্তর : প্রশ্নে উল্লিখিত বাড়ি ও মার্কেটের মূল্যের ওপর জাকাত আসবে না। তবে এগুলো থেকে অর্জিত অর্থ (ভাড়া) যদি নিসাব পরিমাণ হয়, তাহলে বছরান্তে জাকাত আসবে। (বাদায়েউস সানায়ে : ২/১৬, আফকে মাসায়েল আওর উনকা হল : ৬/১১৪, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ৫২৭)

 

স্বামীর সম্পদ থেকে স্ত্রীর দান করা

প্রশ্ন : আমার কাছে আমার স্বামীর কিছু সম্পদ আছে, তা থেকে অসহায় মানুষকে দান করা বৈধ হবে?

বিলকিস, মিরপুর, ঢাকা

উত্তর : স্বামীর সম্পদ থেকে তার স্পষ্ট অনুমতি বা সম্মতিতে দান-খয়রাত করা স্ত্রীর জন্য উত্তম। এ ক্ষেত্রে প্রকাশ্যে অনুমতি না থাকলেও সামাজিক অনুমতিই স্ত্রীর দান-খয়রাত করার জন্য যথেষ্ট। (বুখারি, হাদিস ১৪২৫, ২০৬৬,  উমদাতুল কারি : ৮/২৯১, হিন্দিয়া : ১/৪৪৩, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ৫/৪০৮)

 

মানুষের নামে কসম করা যায়?

প্রশ্ন : আমি যদি কোনো কাজ না করার ব্যাপারে আমার কোনো নিকট আত্মীয়ের নামে কসম করি, পরবর্তী সময়ে যদি সেই কসম না রাখতে পারি, তাহলে কি আমাকে কাফফারা দিতে হবে?

আব্দুর রাজ্জাক, সিলেট

উত্তর : ইসলামের দৃষ্টিতে আল্লাহ তাআলার নাম ছাড়া অন্য কারো নামে কসম করলে তা কসম হিসেবে গণ্য হয় না। তাই আপনার নিকট আত্মীয়ের নামে কৃত কসমটি শুদ্ধ হয়নি। তাই তা ভঙ্গের প্রশ্নই আসে না। তবে এ ধরনের কসমের জন্য তাওবা করতে হবে। (রদ্দুল মুহতার : ৩/৭০৫, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ৭/৩৫৬)

 

নূপুর পরার বিধান কী?

প্রশ্ন : নারীদের জন্য পায়ে নূপুর, পায়েল ইত্যাদি পরা জায়েজ আছে? যদি জায়েজ হয়, তাহলে কোন ধরনের নূপুর?

ফারজানা রিয়া, আশুলিয়া

উত্তর : নারীদের পায়ে অলংকার ব্যবহার করার অনুমতি আছে। তবে পরপুরুষের কানে আওয়াজ যায় বা দৃষ্টি আকর্ষণ করার মতো অলংকার ব্যবহার থেকে বিরত থাকা উচিত। (সুরা : নুর, আয়াত : ৩১, তাফসিরে ইবনে কাসির : ৬/৪৬, তিরমিজি, হাদিস : ২৭৮৮, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ১১/৫০৮)

 

সমাধান : ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার বাংলাদেশ, বসুন্ধরা, ঢাকা