kalerkantho

বুধবার । ২৯ বৈশাখ ১৪২৮। ১২ মে ২০২১। ২৯ রমজান ১৪৪২

প্রশ্ন-উত্তর

২৩ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বোবা ব্যক্তি কিভাবে নামাজ পড়বে?

প্রশ্ন : বোবা ব্যক্তির ওপর কি নামাজ ফরজ? যদি ফরজ হয়, তাহলে সে কিভাবে নামাজ পড়বে? সে তো সুরা-কিরাত পড়তে পারবে না।

কিশোর মাহমুদ, চট্টগ্রাম

উত্তর : বোবা ব্যক্তি ইসলামের সমস্ত বিষয়ের মুকাল্লাফ, তার ওপর নামাজ ফরজ। সে নামাজের কিরাত ও তাকবির শুধু ঠোঁট নাড়িয়ে আদায় করবে। (আদ্দুররুল মুখতার : ১/৪৮১, আল বাহরুর রায়েক : ১/৫০৮, কাওয়ায়িদুল ফিকহ : ৫০৩, আহসানুল ফাতাওয়া : ৩/২৯, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ৫/৯২)

 

নেইলপলিশ লাগালে অজু হবে?

প্রশ্ন : যদি কোনো নারী সাজসজ্জার জন্য হাতে নেইলপলিশ লাগায়, তাহলে তার অজু-গোসলের বিধান কী?

রিয়াদ, উত্তরা

উত্তর : নেইলপলিশ শরীরের পানি পৌঁছার ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধক হওয়ায় তা হাতে লেগে থাকলে অজু-গোসল শুদ্ধ হবে না। (ফাতাওয়ায়ে হিন্দিয়া : ১/১৩)

 

তারাবির নিয়ত একবার করলেই হবে?

প্রশ্ন : রমজান মাসে তারাবির নামাজ পড়ার সময় শুরুতে একত্রে ২০ রাকাতের নিয়ত করে নিলেই হবে, নাকি প্রতি দুই রাকাত শুরু করার সময় আলাদা আলাদা নিয়ত করতে হবে?

মাহফুজুর রহমান রাসেল, পান্থপথ, ঢাকা

উত্তর : তারাবির নামাজের শুরুতে একবারে ২০ রাকাতের নিয়ত করার দ্বারা নামাজ শুদ্ধ হয়ে যাবে। তবে প্রতি দুই রাকাতের শুরুতে ভিন্ন ভিন্ন নিয়ত করা উত্তম। (ফাতাওয়ায়ে হিন্দিয়া : ১/৬৫, আল বাহরুর রায়েক : ১/২৭৮, ফাতাওয়ায়ে রহিমিয়া : ১/৩৪৫)

 

সুতরার দৈর্ঘ্য-প্রস্থ

প্রশ্ন : বিভিন্ন মসজিদে নামাজির সামনে দেওয়ার যে সুতরা রাখা হয়, তার সাইজ কেমন হওয়া উচিত? অনেকে বলে, সুতরা কমপক্ষে এক হাত লম্বা ও এক আঙুল পরিমাণ চওড়া হতে হবে। এ কথার কোনো ভিত্তি আছে কি?

আবুল খায়ের, সুনামগঞ্জ

উত্তর : সুতরা সম্পর্কে বলা হয়েছে, কমপক্ষে এক হাত লম্বা ও এক আঙুল মোটা হতে হবে, তবে কোনো নির্দিষ্ট আঙুলের কথা বলা হয়নি। তাই হাতের যেকোনো আঙুল পরিমাণ মোটা হলেই হবে। (আদ্দুররুল মুখতার : ১/৬৩৭, রদ্দুল মুহতার : ১/৬৩৭, ফাতাওয়ায়ে হিন্দিয়া : ১/১০৪, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ৫/১০০)

 

মৃত ব্যক্তির পক্ষ থেকে রোজা রাখা

প্রশ্ন : মৃত ব্যক্তির পক্ষ থেকে কাজা রোজা ও কাফফারার ৬০টি রোজা রাখা যাবে কি? দয়া করে জানালে কৃতজ্ঞ হব।

ইমরান খান, গুলশান, ঢাকা

উত্তর : মৃত ব্যক্তির পক্ষ থেকে তার কাজাকৃত রোজার কাফফারা হিসেবে অন্য কারো রোজা রাখার বিধান নেই। তবে মৃত্যুকালে সে ব্যক্তি ‘ফিদিয়া’ দেওয়ার অসিয়ত করলে তার রেখে যাওয়া সম্পদের এক-তৃতীয়াংশ থেকে অসিয়ত পূর্ণ করা জরুরি। অসিয়ত না করলে ফিদিয়া দেওয়া জরুরি নয়। তবে বালেগ ওয়ারিশরা নিজ নিজ অংশ হতে তা আদায় করলে আদায় হওয়ার আশা করা যায়। (আদ্দুররুল   মুখতার : ২/৪২৪, আল জাওহারাতুন নিয়ারাহ : ১/৪৪৩)

 

সমাধান : ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার বাংলাদেশ, বসুন্ধরা, ঢাকা



সাতদিনের সেরা