kalerkantho

শনিবার । ২৫ বৈশাখ ১৪২৮। ৮ মে ২০২১। ২৫ রমজান ১৪৪২

চারণভূমিতে রেডিও শুনে কোরআন হিফজ

বেলায়েত হুসাইন   

২০ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চারণভূমিতে রেডিও শুনে কোরআন হিফজ

ফিলিস্তিনের প্রত্যন্ত অঞ্চলের চারণভূমিতে মেষ চরাতেন হাজি সালামাহ আলী (৬০)। সঙ্গে নিয়ে যেতেন একটি রেডিও। চারণভূমিতে একদিকে যেমন মেষপালের প্রতি খেয়াল রাখতেন, তেমনি রেডিও চালু করে নিয়মিত কোরআন তিলাওয়াত শুনতেন তিনি। এভাবে মাত্র চার বছরে রেডিও শুনে শুনেই ১৯৮৭ সালে পবিত্র কোরআনুল কারিম মুখস্থ করেন।

গত ১৬ এপ্রিল (৪ রমজান) আলজাজিরা মুবাশিরকে নিজের অনুভূতি জানিয়ে হাজি সালামাহ আলী বলেন, ‘১৯৮৩ সালে নিয়মিত আমি রেডিওতে কারিদের তিলাওয়াত শোনা শুরু করি এবং আল্লাহর অনুগ্রহে মাত্র চার বছরের মধ্যে আমি কোরআনে কারিম হিফজ করতে সক্ষম হই। তখন আমাদের আশপাশে কোনো নিয়মতান্ত্রিক হিফজখানা কিংবা হিফজ শিক্ষক ছিলেন না। হাফেজ হওয়া ও তিলাওয়াত সুন্দর করা আমার একান্ত ব্যক্তিগত চেষ্টার ফলেই সম্ভব হয়েছে।

শুরুতে আমার তিলাওয়াত ততটা মানসম্মত ছিল না, তবে আমি শুধু পবিত্র কোরআন মুখস্থ করেই শেষ করিনি; বরং কখন কোন কারি তিলাওয়াত করতেন তা-ও খেয়াল রাখতাম এবং নির্দিষ্ট সময়ে রেডিও ছেড়ে কোরআন কারিম দেখে দেখে আয়াত মিলিয়ে ঠোঁট নাড়াতাম এবং পড়তাম। এভাবে আমার মুখস্থ করার পাশাপাশি তিলাওয়াতও সুন্দর করেছি। আর তা করেছি চারণভূমিতে মেষ চরানোর সময়।

বাহ্যত এরূপ প্রতিকূল পরিস্থিতিতেও আমাকে কোরআন হিফজ করতে উদ্বুদ্ধ করেছে ইসলামী বইপত্র পাঠের আগ্রহ; আমার হাতে যে বই-ই আসুক আমি তা পড়ার চেষ্টা করতাম। এভাবেই একসময় কোরআন পাঠে গভীর মনোযোগী হই। আমি এখনো মরুভূমিতে কোরআন তিলাওয়াত করার সময় ভিন্ন রকম আমেজ উপলব্ধি করি।

মেষ চরানোর জন্য আমি দেশের বিভিন্ন অঞ্চল চষে বেড়াই, নানা প্রকৃতির ও সংস্কৃতির মানুষের সঙ্গে আমার সাক্ষাৎ হয়, আমি তাদের সবাইকে কোরআন পড়তে উদ্বুদ্ধ করি। কেননা কোরআন পড়ে কেউ বিফল হয় না। আমি আমার সময়কে কাজে লাগিয়েছি এবং আল্লাহর অনুগ্রহে হাফেজ হয়েছি। আলহামদু লিল্লাহ!

সূত্র : আলজাজিরা মুবাশির



সাতদিনের সেরা