kalerkantho

শনিবার । ২৫ বৈশাখ ১৪২৮। ৮ মে ২০২১। ২৫ রমজান ১৪৪২

রমজানে অভাবীদের ঋণ পরিশোধ করে তিউনিশিয়ার মুসলিমরা

আবরার আবদুল্লাহ   

২০ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



রমজানে অভাবীদের ঋণ পরিশোধ করে তিউনিশিয়ার মুসলিমরা

রমজানের তিউনিশিয়া যেকোনো সময়ের তিউনিশিয়া থেকে ভিন্ন; তিউনিশিয়ার ধর্মীয় অনুশাসন, আচার-অনুষ্ঠান ও বর্ণিল আয়োজনের জন্য। রমজান এলেই যেন জেগে ওঠে মুসলিম তিউনিশিয়া। সারা বছরের আড়ষ্টতা কাটিয়ে নতুন ধর্মীয় উদ্যম দেখা যায় সর্বত্র। রমজান আগমনের পূর্বেই তার জন্য প্রস্তুতি সম্পন্ন করে মুসলিমরা।

কর্মব্যস্ততা কমিয়ে আনে এবং রমজানকে ইবাদত ও আনুগত্যের মধ্যে কাটানোর জন্য তৈরি হয় তারা। তিউনিশিয়ার সচ্ছল মুসলিম পরিবারগুলো রমজানের আগমন উপলক্ষে ‘সালামিয়া’ নামক আনন্দ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। সালামিয়া অনুষ্ঠানে প্রসিদ্ধ কবি ও গায়েনদের আমন্ত্রণ করা হয়। তাঁরা সেখানে হামদ, নাত ও ভক্তিমূলক সুফিগান পরিবেশন করেন। সুফিগানকে তিউনিশিয়ার মুসলিম সংস্কৃতির প্রাণ বলা হয়। রমজান ছাড়াও তারা সুফিগানের চর্চা করে। রমজানে শহরের মসজিদ, রাস্তা, ক্যাফে হাউস ও জনসমাগমের স্থানগুলো বিশেষ আলোকসজ্জায় সজ্জিত করা হয়।

রমজানে তিউনিশিয়ার মুসলমানরা উদারভাবে দান করে। বিশেষত তারা রমজানে সমাজের ঋণগ্রস্ত মানুষের ঋণ পরিশোধ করে দেয়। কেউ বা আবার ঋণের দাবি ত্যাগ করে। এতিম, অসহায় ও দরিদ্র মানুষকে নতুন কাপড় উপহার দেওয়া তিউনিশিয়ার মুসলিমদের একটি সুপ্রাচীন ঐতিহ্য। রমজানে মসজিদের মিনারে মিনারে কোরআনের সুর ধ্বনিত হয়। মসজিদের মুসল্লিদের সমাগম বাড়ে। ইফতারের পর দ্রুত তারাবির জামাতে উপস্থিত হয়। প্রতিটি মসজিদে জোহর ও এশার নামাজের পর কোরআনের তাফসির ও হাদিসের দরস হয়। আসরের নামাজের পর মসজিদে কোরআন তিলাওয়াত ও জিকিরের মজলিস হয়। ইফতারের সময় সবার জন্য সম্মিলিত দোয়ার অনুষ্ঠান হয়।

রমজানে তিউনিশিয়ার প্রায় চার শ মসজিদে হিফজুল কোরআনের প্রতিযোগিতা হয়, যাতে স্থানীয় হাফেজসহ ১৫টি আরব রাষ্ট্রের হাফেজরা অংশগ্রহণ করেন। পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে স্বয়ং বাদশাহ সভাপতিত্ব করেন এবং বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার তুলে দেন। প্রথম পুরস্কার হিসেবে আড়াই হাজার মার্কিন ডলার প্রদান করা হয়। তিউনিশিয়ার মুসলিমদের নিজস্ব রমজান সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য রয়েছে, যার কিছু পারিবারিক আবার কিছু সামাজিক। যেমন—তারা রমজানে মেয়েদের বিয়ে দেয়। যেসব মেয়ের বাগদান সম্পন্ন হয় তাদের ২৭ রমজানে পরিবারের সামর্থ্য অনুযায়ী উপহার প্রদান করা হয়। স্থানীয় ভাষায় একে ‘মাওসুম’ বলা হয়। কোনো কোনো পরিবার রমজানের ২৭ তারিখ ছেলেদের খতনা করায় এবং সাধারণ মুসলমানদের সাহরি করায়।

রমজান মাসে খাবারের ক্ষেত্রেও তিউনিশীয়দের ভিন্নতা রয়েছে। রমজানের প্রথম রাত, যাকে স্থানীয়রা ‘লাইলাতুল কারশ’ বলে, সেই রাত থেকে তারা মিষ্টান্ন তৈরি করে। এই রাতটিকে তারা উদযাপন করে। ইফতারে খেজুর, দুধ ও কিশমিশ খেতে পছন্দ করে। থাকে বিভিন্ন ধরনের পিঠাও। সাহরিতে থাকে গোশতের যেকোনো আয়োজন। এ ছাড়া তারা রমজানে ‘রাফিসা’, ‘মাদমুজা’, ‘আসিদা’, ‘বারকুকাস’ নামক বিশেষ খাবারের আয়োজন করে। তিউনিশিয়ার মুসলিমরা ইফতারের জন্য বিশেষ ধরনের রুটি ও হালুয়া তৈরি করে এবং প্রতিবেশীদের মধ্যে বিতরণ করে। রুটি তাদের ইফতার আয়োজনের অন্যতম দিক।

১৮৮১ সাল থেকে তিউনিশিয়া ফ্রান্সের একটি উপনিবেশ ছিল। ১৯৫৬ সালে এটি স্বাধীনতা লাভ করে। আধুনিক তিউনিশিয়ার স্থপতি হাবিব বুর্গিবা দেশটিকে স্বাধীনতায় নেতৃত্ব দেন এবং ৩০ বছর ধরে দেশটির রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব্ব পালন করেন। স্বাধীনতার পর তিউনিশিয়া উত্তর আফ্রিকার সবচেয়ে স্থিতিশীল রাষ্ট্রে পরিণত হয়। ইসলাম এখানকার রাষ্ট্রধর্ম; প্রায় সব তিউনিশীয় নাগরিক মুসলিম। তিউনিশিয়া পর্যটকদের কাছে একটি জনপ্রিয় স্থান। এর রৌদ্রোজ্জ্বল আবহাওয়া, নয়নাভিরাম বেলাভূমি, বিচিত্র ভূ-প্রাকৃতিক দৃশ্য, সাহারার মরূদ্যান এবং সুরক্ষিত প্রাচীন রোমান প্রত্নস্থলগুলো তাদের কাছে বেশি পছন্দনীয়।

 



সাতদিনের সেরা