kalerkantho

শুক্রবার। ৩১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ মে ২০২১। ০২ শাওয়াল ১৪৪২

প্রশ্ন-উত্তর

১২ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দুর্ভিক্ষের সময় চুরি করলে তার শাস্তি

প্রশ্ন : আমি শুনেছি ইসলামের দৃষ্টিতে চুরির শাস্তি হাত কেটে ফেলা। প্রশ্ন হলো, দুর্ভিক্ষের বছর কেউ চুরি করলে তার হাতও কি কাটা হবে?

স্বপন, রাজবাড়ী।

উত্তর : বাংলাদেশে কেউ এ ধরনের চুরিতে লিপ্ত হলে দেশের প্রচলিত আইন তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে। কোনো ব্যক্তির জন্য আইন নিজের হাতে তুলে নেওয়ার অধিকার নেই। ইসলামী শাসনব্যবস্থায় পরিচালিত রাষ্ট্রের ক্ষেত্রে দুর্ভিক্ষের সময় প্রয়োজন পরিমাণ খাদ্যদ্রব্য চুরি করলে তার হাত কাটা হবে না। (আল-মুসান্নাফ : ১০/২৪২, আল-মাবসুত : ৯/১৩৯)

 

নাবালকের সম্পদ কাউকে দেওয়া

প্রশ্ন : অনেক সময় দেখা যায়, মা-বাবা তার নাবালক সন্তানের বিভিন্ন জিনিস মানুষকে দিয়ে দেয়। কিন্তু এক হুজুরের ওয়াজে শুনেছি—এটা করা যাবে না। প্রশ্ন হলো, মা-বাবা তার নাবালক শিশুর সম্পদ কাউকে হেবা করতে পারবে কি?

আতাউর রহমান, সাভার।

উত্তর : মা-বাবা নাবালক শিশুর সম্পদ হেবা করতে পারবে না। (বাদায়েউ সানায়ে : ৮/৯৪, আদ্দুররুল মুখতার : ৫/৬৯৬)

 

মহর মাফ করে দিয়ে পুনরায় দাবি করা

প্রশ্ন : স্ত্রী মহরের অধিকার স্বামীকে হেবা করে দেওয়ার পর তালাক সংঘটিত হওয়ার কারণে পুনরায় মহর দাবি করতে পারবে কি?

রায়হান মোল্লা, বরিশাল।

উত্তর : স্ত্রী মহরের অধিকার স্বামীকে হেবা করে দেওয়ার পর তালাক সংঘটিত হওয়ার পর পুনরায় মহর দাবি করতে পারবে না। ( আল-মুসান্নাফ ইবনে আবিশাইবা : ১১/৪৪০, শরহে মুখতাসারুত ত্বাহাবি : ৪/৩৩)

 

বন্ধকি জমির ওশর কে দেবে?

প্রশ্ন : বন্ধকি জমির ওশর-খারাজ কার ওপর ওয়াজিব? বন্ধকদাতার ওপর নাকি বন্ধকগ্রহীতার ওপর?

আব্দুল কাদের, নোয়াখালী।

উত্তর : বন্ধকি জমির ওশর-খারাজ বন্ধকদাতার ওপর ওয়াজিব। (আল-হিদায়া : ৪/৫২৪, কানজুদ দাকায়েক : ৪৩৯)

 

কুড়িয়ে পাওয়া বস্তু লাশ দাফনে খরচ করা যাবে?

প্রশ্ন : আমি কিছু দিন আগে কিছু মূল্যবান জিনিস কুড়িয়ে পেয়েছি। যার মালিক আজ অবধি খুঁজে পাইনি। কিছু দিন আগে আমাদের এলাকার এক দরিদ্র লোক মারা গেলে সেই জিনিস আমি তার কাফন-দাফনে ব্যবহারের জন্য দিয়ে দিই। কিন্তু পরবর্তী সময়ে অনেকে বলে এটা ঠিক হয়নি। জানার বিষয় হলো, কুড়িয়ে পাওয়া বস্তুর মালিক পাওয়া না গেলে তা কোনো দরিদ্র মৃত ব্যক্তির দাফন-কাফনে ব্যয় করা যাবে কি?

রয়েল মানিক, কিশোরগঞ্জ।

উত্তর : কুড়িয়ে পাওয়া বস্তুর মালিক পাওয়া না গেলে তা কোনো দরিদ্র মৃত ব্যক্তির দাফন-কাফনে ব্যয় করা যাবে। (রদ্দুল মুহতার : ২/৩৩৮, তাবয়িনুল হাকায়েক : ৪/১৭০-১৭১)

 

সমাধান : ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার বাংলাদেশ, বসুন্ধরা, ঢাকা।