kalerkantho

শুক্রবার। ৩১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ মে ২০২১। ০২ শাওয়াল ১৪৪২

নৈতিক গুণ ও উন্নত আচরণ ঈমানের দাবি

মো. আলী এরশাদ হোসেন আজাদ   

১১ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



নৈতিক গুণ ও উন্নত আচরণ ঈমানের দাবি

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের উচ্চারণে বলতে হয় :

‘আমরা সবাই পাপী;

আপন পাপের বাটখারা দিয়ে

অন্যের পাপ মাপি।’

 

নৈতিক গুণাবলি, যোগ্যতা, মানবীয় তৎপরতা, সহযোগিতা, কর্ম-কীর্তি এবং ইবাদতমূলক চেতনার মধ্যেই মনুষ্যত্বের বিকাশ। মহান আল্লাহ বলেন, ‘মুমিন তো তারাই, যারা আল্লাহ ও রাসুলের প্রতি বিশ্বাসে অবিচল এবং তা থেকে বিচ্যুৎ হয় না...আর এরাই তো প্রকৃত সত্যনিষ্ঠ।’ (সুরা : হুজুরাত,    আয়াত : ১৫)

ইসলামের সব কিছুর সঙ্গে মানবিক মূল্যবোধ, সৌজন্য, সেবা ও শান্তির সুনিবিড় সম্পর্ক বিদ্যমান। প্রিয় নবী (সা.) বলেন, ‘যে ব্যক্তি আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য কাউকে ভালোবাসবে এবং আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্যই কারো সঙ্গে শত্রুতা পোষণ করবে আবার আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য দান করবে অথবা আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্যই দান করা থেকে বিরত থাকবে, সে-ই তার ঈমানকে পূর্ণতায় পৌঁছে দিল।’ (আবু দাউদ ও তিরমিজি)

ঈমানদার ব্যক্তির ব্যবহার-বক্তব্যে থাকবে শান্তি-নিরাপত্তা, ইসলামী মূল্যবোধ ও স্বার্থ। প্রিয় নবী (সা.) বলেন, ‘মুসলমান সে-ই, যার মুখ ও হাতের অপকারিতা থেকে অন্য মুসলমান নিরাপদ।’ (নাসায়ি ও তিরমিজি) অনুরূপ বিশ্বস্ততা ও অঙ্গীকার রক্ষা করা ঈমানদারের চরিত্রের অংশ। প্রিয় নবী (সা.) বলেন, ‘যার মধ্যে আমানতদারি নেই তার মধ্যে ঈমানও নেই এবং যার কাছে অঙ্গীকার পালনের গুরুত্ব নেই তার কোনো ধার্মিকতা বা ধর্মও নেই।’ (বায়হাকি)

মুসলমানের জন্য প্রিয় নবী (সা.)-এর ১০টি বিশেষ উপদেশ হলো—

১.  আল্লাহর সঙ্গে কাউকে শরিক করবে না, যদিও তোমাকে হত্যা করা হয় বা পুড়িয়ে ফেলা হয়।

২.  তুমি তোমার মাতা-পিতার অবাধ্য হয়ো না, যদিও তারা তোমাকে তোমার পরিবার-পরিজন ও তোমার ধন-সম্পদ ছেড়ে যেতে বলে।

৩.  ইচ্ছাকৃত কখনো ফরজ নামাজ ত্যাগ করবে না। কেননা যে ইচ্ছাকৃত ফরজ নামাজ ত্যাগ করবে, তার প্রতি মহান আল্লাহর দেওয়া ও প্রযোজ্য নিরাপত্তা উঠে যাবে।

৪.  কখনো মদ্য পান করবে না। কারণ তা সব অশ্লীলতার মূল।

৫.  সাবধান, সব সময় সব রকম পাপ কাজ থেকে বিরত থাকবে, কারণ পাপের কারণে আল্লাহর অসন্তোষ তৈরি হয়।

৬.  খবরদার, ‘জিহাদ’ থেকে পালিয়ে যাবে না, যদিও সব লোক ধ্বংস হয়ে যায়।

৭.  কোনো এলাকায় যদি মহামারির প্রাদুর্ভাব হয়, তবু তুমি সেখানেই অবস্থান করবে।

৮.  সামর্থ্য অনুযায়ী তুমি তোমার পরিবারের সদস্যদের জন্য ব্যয় করবে, কার্পণ্য করবে না।

৯.  পরিবারের সদস্যদের আদব-কায়দা শিক্ষাদানের ব্যাপারে শাসন থেকে বিরত থাকবে না।

১০. আল্লাহর সম্পর্কে তাদের (পরিবারের সদস্য) ভয় প্রদর্শন করতে থাকবে। (মিশকাত শরিফ)

মানুষের সৎ চিন্তার সব কিছুই তার ঈমান। প্রিয় নবী (সা.) বলেন, ‘অপরের জন্য তা-ই পছন্দ করবে, যা তুমি নিজের জন্য পছন্দ করো। এভাবেই অপরের জন্য তা-ই অপছন্দ করবে, যা তুমি নিজের জন্য অপছন্দ করো। (মুসনাদে আহমাদ)

শাহ্ ওয়ালিউল্লাহ দেহলভি (রহ.) বলেন, ‘প্রতিটি ভালো কাজকে ঈমান বলা হয়, যার ওপর পরকালে মুক্তি নির্ভরশীল।’

তাই ঈমান ও ইসলামের প্রকৃত স্বরূপ প্রসঙ্গে আমাদের জাতীয় কবির নিবেদন ‘আল্লাহতে যার পূর্ণ ঈমান কোথা সে মুসলমান...।’

লেখক : সহকারী অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান ইসলামিক স্টাডিজ, কাপাসিয়া ডিগ্রি কলেজ, কাপাসিয়া, গাজীপুর