kalerkantho

বুধবার । ৮ বৈশাখ ১৪২৮। ২১ এপ্রিল ২০২১। ৮ রমজান ১৪৪২

প্রশ্ন-উত্তর

৪ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মোবাইল ফোনে অজ্ঞাতপরিচয় কারো টাকা এলে

প্রশ্ন : ভুলক্রমে কারো মোবাইলে টাকা চলে এলে এবং প্রেরকের সন্ধান না পেলে করণীয় কী? যদি সন্ধান পাওয়া যায়, তাহলে টাকা ফেরত দেওয়া কি জরুরি?

     —মাও. মুহাম্মদ ত্বকী, শুলকবহর, চট্টগ্রাম।

 

উত্তর : ভুলক্রমে কারো মোবাইলে টাকা চলে এলে তা মালিকের সন্ধান নিয়ে মালিকের কাছে পৌঁছানো আবশ্যক। মালিকের সন্ধান পাওয়া না গেলে, যে নম্বর থেকে টাকা এসেছে ওই নম্বরে যোগাযোগ করে দায়মুক্ত হওয়ার লক্ষ্যে টাকা পাঠিয়ে দেবে। ফেরত দেওয়ার কোনো উপায় না হলে গরিবদের সদকা করে দিতে হবে। (বাদায়িউস সানায়ে : ৮/৩৩০)

 

মৃত ব্যক্তির নামে আকিকা

প্রশ্ন : মৃত ব্যক্তির আকিকা দেওয়া জায়েজ আছে কি?

     —ফয়সাল, লক্ষ্মীপুর।

উত্তর : আকিকা জীবিত ব্যক্তির জন্য মুস্তাহাব। মৃত ব্যক্তির আকিকা করা মুস্তাহাবের অন্তভুক্ত নয়, তাই তাতে আকিকার সওয়াব পাওয়া যাবে না। (রদ্দুল মুহতার : ৬/৩৩৬, ফয়জুল বারি : ৪/৩৩৭)

 

পশু বর্গার সঠিক পদ্ধতি কী?

প্রশ্ন : আমাদের দেশে প্রথা আছে যে এক ব্যক্তি গরু ক্রয় করে অন্য ব্যক্তিকে দেয় পালন করার জন্য। শর্ত হলো, গরু পালনের পর বিক্রি করে মূল টাকা মালিককে ফিরিয়ে দেবে, শুধু লভ্যাংশ সমান ভাগে ভাগ হবে। এখন আমার জানার বিষয় হলো, উল্লিখিত নিয়মে গরু বর্গা দেওয়া জায়েজ হবে কি? যদি না হয় তাহলে কোন পদ্ধতিতে জায়েজ হবে?

     —রাশেদুল ইসলাম, সিরাজগঞ্জ।

উত্তর : প্রশ্নে উল্লিখিত পদ্ধতিতে গরু বর্গা দেওয়া ফাসেদ ইজারার অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় নাজায়েজ। তবে কোনো কোনো আলেম পদ্ধতিটির সমাজে ব্যাপক প্রচলন হওয়ায় জায়েজ বলেছেন। তা সত্ত্বেও নিম্নে বর্ণিত বর্গা দেওয়ার সঠিক দুটি পদ্ধতি থেকে কোনো একটি অবলম্বন করা উত্তম। ১. গরু লালন-পালনের পারিশ্রমিক (টাকা বা নির্দিষ্ট বস্তু) ও সময় নির্ধারণ করে নেওয়া। ২. গরুর মূল্যের যেকোনো একটি অংশে যেমন ১০০ টাকার অংশে হলেও লালন-পালনকারী শরিক হওয়া। এ ক্ষেত্রে মুনাফা সমানভাবে বণ্টন করা বৈধ হবে। (ফাতাওয়ায়ে হিন্দিয়া : ৪/৫০৪, ফাতাওয়ায়ে হক্কানিয়া : ৬/২৪৩)

 

সময়মতো বিয়ে না করালে অভিভাবকের গুনাহ হবে?

প্রশ্ন : আমাকে রেখে আমার মা ইন্তিকাল করেন, তারপর থেকে আমার সত্মায়ের সঙ্গে আমার প্রায় মারামারি হয়। এই কারণে আমি পিতা থেকে কিছু জমি নিয়ে পৃথক হয়ে যাই। এখন আমার বিয়ের বয়স হয়েছে, আমি বিবাহ করতে চাই। আমার পিতার এই পরিমাণ সম্পদ আছে, আমাকে বিবাহ করিয়ে দেওয়ার দ্বারা কোনো ক্ষতি হবে না। তাহলে এখন আমাকে কে বিবাহ করাবে? যদি পিতার দায়িত্ব হয়, আর তিনি তা পালন না করেন, তাহলে গুনাহ হবে কি না?

     —ইউসুফ বিন জহির, জয়পুরহাট।

উত্তর : ছেলে বড় হলে বিবাহ করানো পিতার দায়িত্ব। পিতা এ দায়িত্ব পালনে অবহেলা করলে ছেলের গুনাহের পিতাও ভাগি হবেন। (শুআবুল ঈমান : ৬/৪০১, ফাতাওয়ায়ে দারুল উলুম  : ৭/৪৩)

 

মন্তব্য