kalerkantho

শুক্রবার । ৩ বৈশাখ ১৪২৮। ১৬ এপ্রিল ২০২১। ৩ রমজান ১৪৪২

ধারাবাহিক তাফসির

মুসা ও হারুন (আ.)-এর শঙ্কা

৩ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ফেরাউনের কাছে দ্বিন প্রচারের নির্দেশ পেয়ে মুসা ও হারুন (আ.) বলেন, ৪৫. ‘তারা বলল, হে আমাদের রব, আমরা তো আশঙ্কা করি সে আমাদের ওপর বাড়াবাড়ি করবে অথবা অন্যায় আচরণে সীমা লঙ্ঘন করবে।

৪৬. তিনি (আল্লাহ) বলেন, তোমরা ভয় কোরো না, আমি (আল্লাহ) তো তোমাদের সঙ্গে আছি; আমি শুনি ও দেখি।’ (সুরা : ত্বহা, আয়াত : ৪৫-৪৬)

 

তাফসির : আগের আয়াতে বলা হয়েছিল, মহান আল্লাহ মুসা ও হারুন (আ.)-কে ফেরাউনের কাছে দ্বিন প্রচার করার নির্দেশ দিয়েছেন। পাশাপাশি ফেরাউনের সঙ্গে নম্র ভাষায় কথা বলতে বলেছেন। আলোচ্য প্রথম আয়াতে বলা হয়েছে, দ্বিন প্রচারের দায়িত্ব পেয়ে মুসা ও হারুন (আ.) ফেরাউনের কাছে বাড়াবাড়ি বা সীমা লঙ্ঘনের শঙ্কা প্রকাশ করেছেন। ফেরাউন ছিল সে যুগের মিসরের বাদশাহ। তার ছিল অর্থ, অস্ত্র ও রাজত্ব। ছিল সৈন্যসামন্ত ও সহায়সম্বল। সে তুলনায় মুসা ও হারুন (আ.)-এর কিছুই ছিল না। অন্যদিকে মুসা (আ.) ফেরাউনের গোত্রের এক ব্যক্তিকে ভুলবশত হত্যা করে পালিয়েছিলেন। তাই তাঁকে গ্রেপ্তারের শঙ্কা ছিল। সব কিছু মিলিয়ে মুসা ও হারুন (আ.) ফেরাউনের দরবারে বাড়াবাড়ি ও অন্যায় আচরণের শিকার হওয়ার শঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

মুসা ও হারুন (আ.) আল্লাহর সামনে দুই ধরনের প্রকাশ করেছেন। এক ভয় ‘সীমা লঙ্ঘন’ শব্দ দিয়ে প্রকাশ করা হয়েছে। তার মানে, ফেরআউন সম্ভবত বক্তব্য শোনার আগেই ক্ষমতার অহমিকায় উত্তেজিত হয়ে উঠবে এবং অনাকাঙ্ক্ষিত কিছু করে বসবে। দ্বিতীয় ভয় ‘বাড়াবাড়ি’ শব্দ দ্বারা বর্ণনা করা হয়েছে। এর মানে এই যে সে আপনার সম্পর্কে অসমীচীন কথাবার্তা বলে আরো বেশি অবাধ্যতা প্রদর্শন করবে। অথবা দ্রুত আক্রমণ করে বসবে। মুসা ও হারুন (আ.)-এর এসব শঙ্কা উড়িয়ে দিয়ে মহান আল্লাহ বলেন, আমি তোমাদের সঙ্গে আছি। আমি সব শুনি ও দেখি। কাজেই আল্লাহর সাহায্য ও সহযোগিতা তাদের সঙ্গে থাকবে।

গ্রন্থনা : মুফতি কাসেম শরীফ।

 

 

মন্তব্য