kalerkantho

বুধবার । ১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ এপ্রিল ২০২১। ১ রমজান ১৪৪২

প্রশ্ন-উত্তর

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আনুপাতিক হারে লাভ না দিলেও সুদ হবে?

প্রশ্ন : আসসালামু আলাইকুম, আমি একজন সরকারি চাকরিজীবী। গত বছর আমাদের অফিসের বস না জানিয়ে আমাদের থেকে স্বাক্ষর নিয়ে আমাদের সবার প্রভিডেন্ট ফান্ডের টাকা ঋণ নেন। যেখানে আমার পাঁচ লাখ টাকা ছিল। অনেকের আরো বেশিও ছিল। এক বছর পর তিনি সেই টাকা ফেরত দিয়েছেন। বিষয়টি জানাজানি হলে অফিসের অনেকে প্রশ্ন তোলেন, টাকা না তুললে তো এক বছরে আমাদের টাকা বাড়ত, স্যার আমাদের কোনো লাভ দেননি। পরে তিনি আমাদের সবাইকে দুই হাজার টাকা করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। অনেকে সে টাকা নিয়েছে, আবার আমি সহ অনেকেই নেয়নি। আমাদের জন্য কি এই দুই হাজার টাকা নেওয়া জায়েজ হবে?

শেহের আলী, মানিকগঞ্জ

উত্তর : প্রশ্নের বিবরণ মতে আপনাদের জন্য উক্ত টাকা গ্রহণ করা সুদের অন্তর্ভুক্ত হয়ে হারাম বলে বিবেচিত হবে। (ইবনে মাজাহ, হাদিস : ২৪২৩, ফাতাওয়ায়ে মাহমুদিয়া : ১২/৪২১)

 

কাজা নামাজের ফিদিয়া মৃতের নাতিকে দেওয়া

প্রশ্ন : এক ব্যক্তি তার কাজা নামাজের ফিদিয়া দেওয়ার জন্য অসিয়ত না করেই মারা গেছে। কিন্তু তার এক ছেলে সচ্ছল, সে তার পক্ষ থেকে তার বাবার ফিদিয়া আদায় করে দিতে চায়, সেখান থেকে কিছু টাকা মৃত ব্যক্তির অসহায় নাতিকেও দিতে চায়। এই টাকা মৃত ব্যক্তির নাতিকে দেওয়া যাবে?

মোরশেদ আলম, চট্টগ্রাম

উত্তর : প্রশ্নে বর্ণিত মৃত ব্যক্তির কাজা নামাজের ফিদিয়া যেহেতু অসিয়তবিহীন ওয়ারিশরা স্বেচ্ছায় নিজেদের পক্ষ থেকে আদায় করতে চাচ্ছে, তাই তা নফল সদকা হিসেবে গণ্য হবে। এ ধরনের নফল সদকা অন্য গরিবের মতো মৃতের অসহায় নাতিকে দিতে পারবে। (আদ্দুররুল মুখতার : ২/৭২, রদ্দুল মুহতার : ২/৭২, আল ফাতাওয়াল হিন্দিয়া : ১/১৮৮, ফাতাওয়ায়ে মাহমুদিয়া : ৭/৩৮৮, ফাতাওয়ায়ে দারুল উলুম : ৪/৩৬৪, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ৪/২৭০)

 

নিজেই নিজের স্বপ্নের ব্যাখ্যা করা

প্রশ্ন : কোনো স্বপ্ন দেখে নিজেই অনুমানের ভিত্তিতে তার ব্যাখ্যা করার বিধান কী?

আকাশ আহমেদ, পঞ্চগড়

উত্তর : স্বপ্নের ব্যাখ্যা নিজে বুঝতে পারলে কাউকে বলার প্রয়োজন নেই। তা না হলে অভিজ্ঞ দ্বিনদার হিতাকাঙ্ক্ষী ব্যক্তির কাছ থেকে ব্যাখ্যা জেনে নেওয়া উত্তম। (বুখারি, হাদিস : ৭০৪৫, মাআরিফুল কোরআন : ৫/২২, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ২/৫২৭)

 

বিয়ের পর পিত্রালয়ে এলে কসরের নামাজ পড়বে?

প্রশ্ন : কোনো মেয়ে বিয়ের পর স্বামীর বাড়িতে চলে গেলে তখন তার স্বামীর বাড়িই তার আসল বাড়ি। প্রশ্ন হলো, সে যখন ৪৮ মাইল দূরত্বে তার বাবার বাড়িতে আসবে, তখন সে মুসাফির হবে নাকি মুকিম থাকবে?

নাহিয়া হাবিব, ফেনী

উত্তর : বিয়ের পর মেয়ে স্বামীর বাড়িতে স্থায়ীভাবে থাকা ও সংসার করা শুরু করলে স্বামীর ঘরই তখন তার আসল বাড়ি হিসেবে পরিগণিত হয়। এমতাবস্থায় বাবার বাড়ি ৪৮ মাইল দূরত্বে হলে এবং মেয়ে বাপের বাড়িতে এসে ১৫ দিন অবস্থান করার নিয়ত না করলে সে মুসাফির হিসেবে গণ্য হবে। (এমদাদুল ফাতাওয়া : ১/৫৭৯, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ৪/৩২৬)

সমাধান : ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার বাংলাদেশ, বসুন্ধরা, ঢাকা।

মন্তব্য