kalerkantho

বুধবার । ১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ এপ্রিল ২০২১। ১ রমজান ১৪৪২

প্রশ্ন-উত্তর

২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ইমাম অনুচ্চ স্বরে তাকবির বললে

প্রশ্ন : নামাজে ইমাম সাহেব ভুলক্রমে অনুচ্চ স্বরে তাকবির বলে নামাজ শেষ করে ফেলেন। পরে স্মরণ হয় যে তিনি কোনো এক রাকাতে অনুচ্চ স্বরে তাকবির বলেছেন। এ অবস্থায় করণীয় কী?

     —তাজুল ইসলাম, মাদারীপুর।

 

উত্তর : ইমামের জন্য নামাজের তাকবির সরবে বলা সুন্নত। নীরবে তাকবির বলে নামাজ শেষ করলেও শুদ্ধ হয়ে যাবে। সাহু সিজদাও ওয়াজিব হবে না। এ ধরনের ভুলে নামাজের কোনো ক্ষতি হয় না। (হালবি কাবির : ৪৫৫, আল মুহিতুল বুরহানি : ১/৩৩৮, আহসানুল ফাতাওয়া : ৩/২৬৬, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ৪/২০৯)

 

জীবদ্দশায় হেবা করার পদ্ধতি

প্রশ্ন : আহমদ তাঁর জীবদ্দশায় স্ত্রী, তিন কন্যা, তিনজন সৎ ভাই ও একজন সৎ বোনের মধ্যে হেবা বা দান করতে চাইলে ইসলামের আলোকে কিভাবে দান করবেন?

     —মাহতাব চৌধুরী, টঙ্গী।

উত্তর : কেউ জীবদ্দশায় কোনো সম্পত্তি ইত্যাদি সন্তানদের দিলে ইসলামের পরিভাষায় হেবা/দান বলে গণ্য হবে। হেবা বা দান করার ক্ষেত্রে কোনো ওয়ারিশের ক্ষতির উদ্দেশ্য না থাকলে বিহীত কারণে পরিমাণে কমবেশি করার অনুমতি আছে।

উল্লেখ্য, হেবা করার পর তা হেবা গ্রহীতার ভোগদখলে দিয়ে দিলে হেবা পরিপূর্ণ বলে বিবেচিত হবে, অন্যথায় নয়। (আদ্দুররুল মুখতার : ৫/৬৯, হিন্দিয়া : ৪/৪৩৭, কিফায়াতুল মুফতি : ৮/১৭০, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ১১/৬৯)

 

ইকামতের জবাব দেওয়ার পদ্ধতি

প্রশ্ন : আজানের মতো ইকামতের জবাবও কি দিতে হয়? দিলে ‘কাদাকামাতিস সালাহ’-এর জবাব কিভাবে দেবে?

     -ইবরাহিম, নীলফামারী।

উত্তর : আজানের মতো ইকামতের জবাব দেওয়াও মুস্তাহাব। ‘কাদাকামাতি সালাহ’-এর জবাবে ইমাম-মুক্তাদি সবাই ‘আকামাহাল্লাহ ওয়া আদামাহা’ বলতে হয়। (আবু দাউদ, হাদিস : ৫২৮, হিন্দিয়া : ১/৫৭, আদ্দুররুল মুখতার : ১/৪০০, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ৩/২১৪)

 

পাগড়ি পরে নামাজ পড়লে সওয়াব বেশি?

প্রশ্ন : পাগড়ি মাথায় পরে নামাজ পড়লে কত গুণ বেশি সওয়াব হয়? এ ব্যাপারে হাদিসের কোনো নির্দেশনা আছে?

     —শাহ নিজাম, লাকশাম।

উত্তর : পাগড়ি পরিধান করা পোশাকসংক্রান্ত একটি সুন্নত। রাসুল (সা.) নামাজে ও নামাজের বাইরে উভয় অবস্থায় পাগড়ি পরিধান করেছেন। কখনো কখনো পাগড়ি ছাড়া শুধু টুপিও পরিধান করেছেন।

তবে পাগড়ি পরে নামাজ পড়লে এত গুণ বেশি সওয়াব—মর্মে নির্ভরযোগ্য ও বিশুদ্ধ হাদিস নেই। কোনো কোনো কিতাবে এই মর্মে যে হাদিস পাওয়া যায়, তা নির্ভরযোগ্য সূত্রে বর্ণিত নয়। (মুসলিম, হাদিস : ১৩৫৮, আবু দাউদ, হাদিস : ১৪৭, তাজকিরাতুল মওজুআত : ১/১৫৫, ১/১৫৬)

 

নবীজির পাগড়ির দৈর্ঘ্য

প্রশ্ন : আমরা জানি যে পাগড়ি বাঁধা সুন্নত। কিন্তু পাগড়ির মাপ কতটুকু হবে তা জানি না। রাসুল (সা.)-এর পাগড়ি কতটুকু লম্বা ছিল? জানিয়ে বাধিত করবেন।

     —হাসিবুর রহমান, ডেমরা।

উত্তর : রাসুল (সা.)-এর পাগড়ি বিভিন্ন পরিমাণের ছিল। তিন হাত, সাত হাত, বারো হাত ইত্যাদি দৈর্ঘ্যের বর্ণনা পাওয়া যায়। সুতরাং এর যেকোনো একটি অনুকরণ করলে সুন্নত আদায় হয়ে যায়। (জামউল ওসায়েল : ১/১৬৮, ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ১১/৪৭১)

 

সমাধান : ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার বাংলাদেশ, বসুন্ধরা, ঢাকা।

মন্তব্য