kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৭ ফাল্গুন ১৪২৭। ২ মার্চ ২০২১। ১৭ রজব ১৪৪২

গুনাহ ত্যাগ করতে সহায়ক ১০ উপদেশ

তাজুল ইসলাম   

১৮ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অনেকে গুনাহ ছেড়ে দিতে চায়; কিন্তু পরিবেশ-পরিস্থিতির কারণে সেটা হয়ে ওঠে না। তাদের জন্য গুনাহ ছেড়ে দিতে সহায়ক ১০টি উপদেশ এখানে উল্লেখ করা হলো—

১ . মনে এই বিশ্বাস সদা জাগ্রত রাখা যে মহান আল্লাহ তোমাকে দেখছেন এবং তোমার গোপনীয় বিষয়গুলোও তিনি অবগত। সুতরাং যখনই তুমি তোমার পরিবার-পরিজন থেকে গোপনে থাক না কেন, আল্লাহ তাআলা থেকে তুমি গোপনে থাকতে পারবে না। আল্লাহ তোমার অবস্থা দেখেন।

২ . দুনিয়াতে পাপের পরিণাম কী হবে এবং তোমার অন্তর, তোমার পরিবার ও রিজিকের ওপর কী প্রভাব পড়বে—তা নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করা। গুনাহ অন্তরকে কঠোর করে দেয়, পেরেশানি ডেকে আনে এবং রিজিক হ্রাস করে করে দেয়।

৩.  মৃত্যুর সময় ও মৃত্যুর পর কবরে গুনাহের কারণে কী কী ক্ষতির সম্মুখীন হতে হবে—সে ব্যাপারে চিন্তা-ভাবনা করা। কেননা তোমার গুনাহ তোমার নিকৃষ্ট পরিসমাপ্তি হতে পারে অথবা কবরে তোমার আজাবের কারণ হতে পারে।

৪.  অসৎ সঙ্গ থেকে দূরত্ব বজায় রাখা, যা পাপকে স্মরণ করিয়ে দেয় এবং তাতে উৎসাহী হয়।

৫.  আল্লাহর কাছে দোয়া করা, যাতে তিনি গুনাহ থেকে বাঁচিয়ে রাখেন এবং এর প্রভাব থেকে মুক্ত থাকার ব্যাপারে সাহায্য করেন।

৬.  অবসর সময়কে দ্বিন ও দুনিয়ার উপকার ও কল্যাণমূলক কাজে ভরে দেওয়া। কেননা অবসরতা হলো পদস্খলন ও গুনাহের দরজা।

৭.  আগের মনীষীরা কিভাবে গুনাহ ত্যাগ করার ক্ষেত্রে সফল হয়েছেন—সেই সব ঘটনাবলি নিয়ে ভাবো।

৮.  অন্তর ছেয়ে যায় এবং আল্লাহর ভয় বাড়িয়ে দেয়—এমন সব উপদেশাবলি (ওয়াজ, বয়ান ইত্যাদি) শ্রবণ করা।

৯.  জান্নাতের নেয়ামতরাজির ব্যাপারে আলোচনা করা। কেননা সেসব নিয়ামত মুত্তাকিদের জন্য, যারা নিষিদ্ধ বস্তু পরিহার করেছে।

১০. জেনে রেখো, অবশ্যই আল্লাহ তাআলা জাহান্নামকে সৃষ্টি করেছেন এবং সেটিকে বানিয়েছেন মুখ ফিরিয়ে নেওয়া ব্যক্তিদের জন্য। আর হয়তো তুমি গুনাহে অনড় থাকার কারণে জাহান্নামের অধিবাসী হতে পার।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা