kalerkantho

শনিবার । ৯ মাঘ ১৪২৭। ২৩ জানুয়ারি ২০২১। ৯ জমাদিউস সানি ১৪৪২

কবিরা গুনাহ-১০

ব্যভিচার করা

ইমাম শামসুদ্দিন জাহাবি (রহ.)   

১ ডিসেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ইসলামী শরিয়তের দৃষ্টিতে ব্যভিচার জঘন্যতম পাপ এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ। শরিয়তের বিধান মতে, ব্যভিচারী নারী ও পুরুষ বিবাহিত হলে তার শাস্তি রজম বা পাথর নিক্ষেপ করে হত্যা। আর তারা অবিবাহিত হলে তাদের শাস্তি এক শ বেত্রাঘাত। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘তোমরা ব্যভিচারের কাছেও যেয়ো না। নিশ্চয়ই এটা অশ্লীল কাজ ও অতি মন্দ পথ।’ (সুরা বনি ইসরাঈল, আয়াত : ৩২)। রাসুলে কারিম (সা.) বলেন—‘যখন কোনো মানুষ ব্যভিচারে লিপ্ত হয়, তখন তার থেকে ঈমান বের হয়ে যায়। ঈমান তার মাথার ওপর ছায়ার মতো অবস্থান করে, যখন সে বিরত থাকে ঈমান আবার ফিরে আসে।’ (সুনানে তিরমিজি,  হাদিস : ২৫৪৯)

অন্য হাদিসে ইরশাদ হয়েছে, ‘আদমসন্তানের ওপর ব্যভিচারের কিছু অংশ লিপিবদ্ধ হয়েছে সে অবশ্যই তার মধ্যে লিপ্ত হবে। দুই চক্ষুর ব্যভিচার হলো দৃষ্টি এবং তার দুই কানের ব্যভিচার শ্রবণ, মুখের ব্যভিচার হলো কথা বলা, হাতের ব্যভিচার হলো স্পর্শ করা ও পায়ের ব্যভিচার হলো পদক্ষেপ আর অন্তরে ব্যভিচারের আশা ও ইচ্ছার সঞ্চার হয়, অবশেষে লজ্জাস্থান একে সত্যে অথবা মিথ্যায় পরিণত করে।’ (সহিহ মুসলিম, হাদিস : ৪৮০২)

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা