kalerkantho

শুক্রবার । ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৭ নভেম্বর ২০২০। ১১ রবিউস সানি ১৪৪২

অল্প খরচে উত্তম বিয়ে

মুফতি তাজুল ইসলাম   

২৭ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বিয়ে যত অনাড়ম্বর হবে, খরচ যত কম হবে, ততই তা বরকতপূর্ণ হবে। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘সর্বাধিক বরকতপূর্ণ বিয়ে হচ্ছে, যার খরচ যত সহজ ও স্বাভাবিক হয়।’ (মুসনাদে আহমাদ, হাদিস : ২৪৫২৯)

এ ছাড়া অপব্যয় ও অপচয় নিন্দনীয় কাজ। পবিত্র কোরআনে অপচয়কারীকে শয়তানের ভাই বলা হয়েছে। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘আর তোমাদের অর্থ-সম্পদ অপ্রয়োজনীয় কাজে খরচ করবে না। জেনে রেখো, যারা অপব্যয় করে, তারা শয়তানের ভাই।’ (বনি ইসরাঈল, আয়াত : ২৬-২৭)

ওলিমা খাওয়ানো সুন্নত

স্বামী-স্ত্রী রাতযাপনের পর শুকরিয়াস্বরূপ স্বামী বা তার নিকটবর্তীদের পক্ষ থেকে মানুষকে খাওয়ানো সুন্নত, যাকে ওলিমা বলে। এতে বিরাট কোনো আয়োজনের প্রয়োজন নেই, অপচয় তো নয়ই; বরং প্রত্যেকে সামর্থ্য অনুযায়ী ব্যবস্থা করবে। এ ছাড়া আর অন্য কোনো খানার আয়োজন সুন্নতসম্মত নয়। (বুখারি, হাদিস : ২০৪৮)

ওলিমায় শুধু ধনীদের দাওয়াত দেওয়া নিষিদ্ধ

অনেকেই বিয়েতে শুধু ধনীদের দাওয়াত দেয়, যাতে তারা উপঢৌকন দিতে পারে, গরিব আত্মীয়দের এড়িয়ে যায়। হাদিস শরিফে ইরশাদ হয়েছে, ‘ওই ওলিমার খাবার সর্বনিকৃষ্ট, যাতে দরিদ্রদের বাদ দিয়ে শুধু ধনীদেরই দাওয়াত দেওয়া হয়।’ (সহিহ বুখারি, হাদিস : ৫১৭৭)

ওলিমা অনুষ্ঠানে উপহারসামগ্রী গ্রহণ

বর্তমানে দেখা যায়, বিয়ের অনুষ্ঠানে উপহার গ্রহণের জন্য ক্যাম্প খুলে বসা হয়। এটি অত্যন্ত দৃষ্টিকটু ও নিম্ন রুচির পরিচায়ক। এতে আগত মেহমানরা লজ্জায় পড়ে যান। যেসব উপঢৌকন দেওয়া হয়, তা যদি চক্ষুলজ্জার খাতিরে বা সামাজিক চাপে বা সুখ্যাতি কিংবা তার বিনিময় পাওয়ার উদ্দেশ্যে হয়ে থাকে, তাহলে তা গ্রহণ করা অবৈধ। আর যদি প্রফুল্ল চিত্তে ভালোবাসার স্মারকস্বরূপ দেওয়া হয় এবং না দিলে কোনো ধরনের অপমান করা না হয়, তাহলে ওই উপহারসামগ্রী গ্রহণ করা বৈধ। (বায়হাকি, হাদিস : ১১৫৪৫)

বরযাত্রী আগমন ও আপ্যায়ন

বিয়ে উপলক্ষে বরযাত্রী গমন ও মেয়ের বাড়িতে আপ্যায়ন যদি কোনো ধরনের বাধ্যবাধকতাহীন এবং সানন্দে হয়, তাহলে তা বৈধ, অন্যথায় অবৈধ। কিন্তু বর্তমানে বরযাত্রী গমন ও মেয়ের বাড়িতে খাবারের আয়োজনের জন্য পারিবারিক ও সামাজিক চাপ সৃষ্টি করা হয়, যা খুবই নিন্দনীয়। শরিয়তের দৃষ্টিতে এটি মেয়ের পরিবারের প্রতি অবিচার। সুতরাং এমন কাজ পরিহার করা উত্তম। (আস-সুনানুল কুবরা, হাদিস : ১১৫৪৫, ফাতাওয়ায়ে দারুল উলুম ৭/৫২২)

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা