kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৪ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০। ১১ সফর ১৪৪২

মাহমুদ দারবিশের কবিতায় স্বদেশপ্রেম

আবরার আবদুল্লাহ   

১৪ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মাহমুদ দারবিশের কবিতায় স্বদেশপ্রেম

ভাষা ও সাহিত্যের সবচেয়ে বলিষ্ঠ মাধ্যম কবিতা। সুপ্রাচীনকাল থেকে কবিতাই মানুষের দ্রোহ, প্রেম, আবেগ, অনুভূতি, ইতিহাস ও ঐতিহ্য চর্চার অন্যতম প্রধান অবলম্বন। মন ও মননের ছান্দসিক প্রকাশের কারণে সব যুগেই কবি ও কবিতা সমাদৃত। যুগে যুগে স্থান, কাল ও সীমান্তের সীমা অতিক্রম করে কবিতা হয়ে উঠেছে মানব ও মানবতার বৈশ্বিক কণ্ঠস্বর। ঠিক যেমন ফিলিস্তিনের জাতীয় কবি মাহমুদ দারবিশ বাস্তুচ্যুত ফিলিস্তিনিদের হৃদয়ের ক্ষোভ ও ক্ষত, আশা ও হতাশা, মুক্তির স্বপ্ন ও দ্রোহের আগুন বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দিয়েছেন তাঁর কবিতার মাধ্যমে। আধুনিক আরবি সাহিত্যের অন্যতম প্রধান এই কবি আজীবন গেয়েছেন ফিলিস্তিনের মাটি ও মানুষের মুক্তির গান।

মাহমুদ দারবিশকে বলা হয় ‘যুদ্ধমাঝে শান্তির দূত’। তিনি তাঁর কবিতার মাধ্যমে বিশ্ববিবেকের সামনে যেমন ফিলিস্তিনিদের জাতীয় মুক্তির জোরালো দাবি তুলেছেন, তেমনি যুদ্ধ ও খুনের লোহিত ধারার মধ্যে শান্তির সবুজ গালিচার সন্ধান করেছেন সব সময়। মাহমুদ দারবিশ স্বাধীন-সার্বভৌম ফিলিস্তিনের স্বপ্ন দেখলেও ইসরায়েলের মানবিক অধিকার অস্বীকার করেননি, বরং তিনি মনে করতেন যুদ্ধ নয়, শান্তিপূর্ণভাবেই ফিলিস্তিনের জাতীয় মুক্তি সম্ভব। শান্তিপূর্ণ গণজাগরণের এই নীতিই তাঁকে আধুনিক বিশ্বের মুক্তিকামী মানুষের কাছে প্রবাদতুল্য গ্রহণযোগ্যতা এনে দিয়েছে।

শব্দের ভাষান্তর শব্দে হয়, কিন্তু ভাবের? তার ভাষান্তর কিভাবে সম্ভব? আর তা যদি হয় ভাষা-সাহিত্যের সবচেয়ে অভিজাত সন্তান কবিতা, তাহলে পাঠকের মনে অস্বস্তি থেকেই যেতে পারে। কবিতার পূর্ণাঙ্গ ভাষান্তর সম্ভব কি না তার সিদ্ধান্ত কাব্যসাধকদের, তবে একজন অনুরাগী কবি যখন কবিতার ভাষান্তর করেন তখন পাঠকের আস্থা বেড়ে যায় বহুগুণ। ড. মুহাম্মদ ফরিদুদ্দিন ফারুক পেশায় একজন শিক্ষক হলেও আদতে তিনি একজন কবি ও কাব্যানুরাগী। কবিতা তাঁর ভালোবাসার ঘর-সংসার। বাংলা ভাষার পাশাপাশি আরবি ভাষার সঙ্গেও রয়েছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি বিভাগের এই সহযোগী অধ্যাপকের গভীর আত্মীয়তা। তাই মাহমুদ দারবিশের কবিতার ভাব ও ভাষা কবি ফরিদুদ্দিন ফারুকের কাছে অন্য যে কারো চেয়ে বেশি নিরাপদ; বরং বলা যায়, আরবি ভাষায় লেখা কবিতাগুলোকে নতুন জীবন ও জগৎ দিয়েছেন বাঙালি এই কবি। অনূদিত কবিতার আরবি শিরোনাম উল্লেখ করে নিজের আত্মবিশ্বাস ও সাহসিকতারই প্রমাণ দিয়েছেন তিনি।

ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাসংগ্রামের প্রতি জোরালো সমর্থন রয়েছে বাংলাদেশের জনগণ ও সরকারের। উভয় দেশের স্বাধীনতাসংগ্রামের সঙ্গে প্রকৃতিগত মিলও রয়েছে। মাহমুদ দারবিশের ৭১টি কবিতা এনে মনে করিয়ে দিয়েছেন মহান একাত্তর ও ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাসংগ্রামের যুক্তি ও ভিত্তিভূমি ভিন্ন কিছু নয়। চট্টগ্রামের গলুই প্রকাশন থেকে প্রকাশিত ১৩৬ পৃষ্ঠার বইটির মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ২৫০ টাকা।

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা