kalerkantho

শনিবার । ৩১ শ্রাবণ ১৪২৭। ১৫ আগস্ট ২০২০ । ২৪ জিলহজ ১৪৪১

মোহরে ফাতেমির বাজারদর

মুফতি তাজুল ইসলাম   

১৬ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মোহরানা স্ত্রীর অধিকার। এ অধিকার থেকে নারীকে বঞ্চিত করা জুলুম ও অন্যায়। হানাফি মাজহাব মতে, মোহরানা ১০ দিরহামের কম হতে পারবে না। ১০ দিরহামের পরিমাণ বর্তমান হিসাবে পৌনে তিন ভরি খাঁটি রুপা। আর মোহরানা স্বামীর সামর্থ্যের ঊর্ধ্বে হতে পারবে না। স্ত্রীর বংশের ও তাঁর সমমানের মেয়েদের মোহরানার পরিমাণ বিবেচনা করাও উচিত। মোহরানার সর্বোচ্চ কোনো পরিমাণ ইসলাম নির্ধারণ করেনি। (বাদায়েউস সানায়ে : ২/২৭৫, মিরকাতুল মাফাতিহ : ৬/৩৫৮)

উম্মে হাবিবা (রা.) ছাড়া নবী (সা.)-এর অন্য স্ত্রীর মোহরানা ছিল পাঁচ শ দিরহাম, যা প্রচলিত হিসাব অনুযায়ী ১৩১.২৫ ভরি খাঁটি রুপা বা তার সমপরিমাণ বাজারমূল্য। যেহেতু পরিমাণ নির্ধারণে ইসলামী বিশেষজ্ঞদের ভেতর সামান্য মতবিরোধ রয়েছে, তাই সতর্কতামূলক পূর্ণ ১৫০ ভরি ধরাই ভালো। উম্মে হাবিবা (রা.)-এর মোহরানা রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর পক্ষ থেকে হাবশার বাদশা নাজ্জাশি আদায় করেছিলেন চার শ দিনার, যা বর্তমান হিসাবে দেড় শ ভরি খাঁটি স্বর্ণ, অন্য বর্ণনা মতে, চার শ দিরহাম রুপা। (মুসলিম, হাদিস : ১৪২৬, তিরমিজি, হাদিস : ১১১৪, আবু দাউদ : ২১০৮, মুসান্নাফে ইবনে আবি শাইবা, হাদিস : ১৬৩৮৬)

মোহরে ফাতেমির বিধান ও তার বাজারদর

স্ত্রীর সম্মান ও স্বামীর সাধ্যানুযায়ী মোহরানা ধার্য করা সুন্নত। শুধু মোহরে ফাতেমিকেই সুন্নত মনে করা সঠিক নয়। তবে মোহরে ফাতেমি ধার্য করা বরকতময় ও উত্তম। বিশুদ্ধ মতানুযায়ী, মোহরে ফাতেমির পরিমাণ পাঁচ শ দিরহাম তথা ১৩১.২৫ ভরি (এক কেজি ৫৩০.৯০০ গ্রাম) খাঁটি রুপা অথবা এর বাজারমূল্য। সতর্কতামূলক ১৫০ তোলা খাঁটি রুপার কথা বলা হয়ে থাকে। (মুস্তাদরাকে হাকিম, হাদিস : ২৭৪২; ফতোয়ায়ে মাহমুদিয়া : ৩/২১৫; ফতোয়ায়ে রহিমিয়া : ৮/২৩১)

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা