kalerkantho

শনিবার । ৩১ শ্রাবণ ১৪২৭। ১৫ আগস্ট ২০২০ । ২৪ জিলহজ ১৪৪১

হাদিসের শিক্ষা

৯ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



রাবিআহ গোত্রকে রাসুলের চার উপদেশ

আবু জামরাহ (রা.) বলেন, আমি ইবনে আব্বাস (রা.) ও লোকদের মধ্যে ভাষান্তরের কাজ করতাম। একবার ইবনে আব্বাস (রা.) বলেন, আব্দুল কায়স গোত্রের প্রতিনিধিদল নবী (সা.)-এর কাছে এলে তিনি বলেন, তোমরা কোন প্রতিনিধিদল? অথবা বলেন, তোমরা কোন গোত্রের? তাঁরা বলল, রাবিআহ গোত্রের। তিনি বলেন, ‘স্বাগতম। এ গোত্রের প্রতি অথবা এ প্রতিনিধিদলের প্রতি, এরা কোনোরূপ অপদস্থ ও লাঞ্ছিত না হয়েই এসেছে।’ তারা বলল, ‘আমরা বহু দূর থেকে আপনার কাছে এসেছি। আর আমাদের ও আপনার মধ্যে রয়েছে কাফিরদের এই ‘মুজার’ গোত্রের বাস। আমরা নিষিদ্ধ মাস ছাড়া আপনার কাছে আসতে সক্ষম নই। সুতরাং আমাদের এমন কিছু নির্দেশ দিন, যা আমাদের পশ্চাতে যারা রয়েছে তাদের কাছে পৌঁছাতে এবং তার মাধ্যমে আমরা জান্নাতে প্রবেশ করতে পারি।’ তখন তিনি তাদের চারটি কাজের নির্দেশ দিলেন এবং চারটি কাজ থেকে নিষেধ করলেন। তাদের এক আল্লাহর ওপর বিশ্বাস স্থাপনের আদেশ করলেন। তিনি বলেন, এক আল্লাহর ওপর বিশ্বাস স্থাপন কিরূপে হয় জানো? তাঁরা বলল, ‘আল্লাহ ও তাঁর রাসুলই ভালো জানেন।’ তিনি বলেন, ‘তা হলো এ সাক্ষ্য দেওয়া যে, আল্লাহ ছাড়া প্রকৃত কোনো উপাস্য নেই এবং মুহাম্মাদ (সা.) আল্লাহর রাসুল, সালাত প্রতিষ্ঠা করা, জাকাত আদায় করা এবং রমজানের সিয়াম পালন করা আর তোমরা গনিমতের সম্পদ থেকে এক-পঞ্চমাংশ দান করবে।’

রাসুল (সা.) বলেন, ‘তোমরা এগুলো মনোযোগসহকারে স্মরণ রাখো এবং তোমাদের পশ্চাতে যারা রয়েছে তাদের নিকট পৌঁছে দাও।’ (বুখারি, হাদিস : ৮৭)

 

দুধবোনের সঙ্গে বিবাহ নিষিদ্ধ

উকবাহ ইবনে হারেস (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি আবু ইহাব ইবনে আজিজ (রা.)-এর কন্যাকে বিয়ে করেন। তাঁর কাছে জনৈকা স্ত্রীলোক এসে বলল, আমি উকবাহ (রা.)-কে এবং সে যাকে বিয়ে করেছে তাকে (আবু ইহাবের কন্যাকে) দুধ পান করিয়েছি। উকবাহ তাকে বলেন, আমি জানি না তুমি আমাকে দুধ পান করিয়েছ, আর (ইতোপূর্বে) তুমি আমাকে এ কথা জানাওনি। অতঃপর তিনি মদিনায় আল্লাহর রাসুল (সা.)-এর কাছে গেলেন এবং তাঁকে জিজ্ঞেস করলেন। আল্লাহর রাসুল (সা.) বলেন, এ কথার পর তুমি কিভাবে তাঁর সঙ্গে সংসার করবে? অতঃপর উকবাহ তাঁর স্ত্রীকে আলাদা করে দিলেন এবং নারী অন্য স্বামীর সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হলো। (বুখারি, হাদিস : ৮৮)

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা