kalerkantho

শনিবার । ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৩০  মে ২০২০। ৬ শাওয়াল ১৪৪১

মসজিদভিত্তিক ত্রাণ বিতরণে নজির গড়লেন মোস্তফা হোসেন

ইসলামী জীবন ডেস্ক   

৬ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মসজিদভিত্তিক ত্রাণ বিতরণে নজির গড়লেন মোস্তফা হোসেন

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার শম্ভুপাড়া ইউনিয়নের ৪৮টি মসজিদের এক হাজার ৫০০ হতদরিদ্র পরিবারে ত্রাণসামগ্রী দিয়ে অনন্য নজির স্থাপন করলেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আলহাজ মোস্তফা হোসেন।

করোনাভাইরাসের করাল গ্রাসে গোটা বিশ্ব বিপর্যস্ত। এর থেকে রক্ষা পায়নি বাংলাদেশও। কিন্তু বাংলাদেশের মতো একটি উন্নয়নশীল দেশে রোগের চেয়েও বেশি প্রভাব পড়েছে অর্থনৈতিক খাতে। সারা দেশে দীর্ঘ সময় সাধারণ ছুটি ঘোষণা করায় দেশের প্রায় সাড়ে তিন কোটি হতদরিদ্র মানুষ দুই মুঠো ভাতের চিন্তায় বিভোর।

এমন পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ সরকারের পাশাপাশি দেশের বিত্তবানরাও এগিয়ে আসছেন।

সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনার ত্রাণসামগ্রী পৌঁছে যাচ্ছে গ্রাম থেকে গ্রামে, ঘর থেকে ঘরে। বহু জায়গায় এসব হচ্ছে ব্যক্তিপর্যায়ে ও প্রাতিষ্ঠানিকভাবে কিংবা রাজনৈতিকভাবে। এতে অনেক ক্ষেত্রে প্রকৃত দরিদ্রদের সেবা থেকে বঞ্চিত হওয়ার সুযোগ থাকে। কখনো কখনো রাজনৈতিক পরিচয় মুখ্য হয়ে ওঠে। এমন প্রেক্ষাপটে মসজিদভিত্তিক ত্রাণ বিতরণ ও নিত্যপণ্য দান কর্মসূচি প্রশংসার দাবি রাখে।

কেননা মুসলিম অধ্যুষিত বাংলাদেশের মানুষের সামাজিকতার অন্যতম উৎস মসজিদ। তাই মসজিদভিত্তিক ত্রাণ, দান ও সহযোগিতার মাধ্যমে প্রকৃত দরিদ্রদের চিহ্নিত করে তাদের অধিকার যথাযথভাবে পৌঁছে দেওয়া সহজ।

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার শম্ভুপাড়া ইউনিয়নের গোবিন্দপুর গ্রামের অধিবাসী বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও দানবীর আলহাজ মোস্তফা হোসেন এ বিষয়ে নজির স্থাপন করেন। রাজনৈতিক পরিচয়ের ঊর্ধ্বে এসে মসজিদের মাধ্যমে তিনি তাঁর এলাকায় ব্যাপকভাবে ত্রাণ বিতরণ করেন। তিনি শম্ভুপাড়া ইউনিয়নের ৪৮টি মসজিদে এক হাজার ৫০০ পরিবারে চাল বিতরণ করেন।

এ বিষয়ে তাঁর অনুভূতি জানতে চাইলে তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমাদের ইউনিয়নে আমরা মসজিদভিত্তিক সমাজকে কেন্দ্র করে চাল ও ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেছি। এর মূল উদ্দেশ্য আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন। আলহামদুুলিল্লাহ, আমরা প্রতিবছরই নিম্ন আয়ের মানুষদের যথাসাধ্য সাহায্য-সহযোগিতা করতে চেষ্টা করি।’

তিনি ইউনিয়নের বিত্তশালীদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

তিনি আরো বলেন, ‘এভাবে যদি দেশের প্রতিটি উপজেলা ও ইউনিয়নের বিত্তবানরা এগিয়ে আসেন তাহলে প্রকৃত অর্থে আমরা একটি মানবিক সমাজ গঠন করতে পারব।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা