kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২ রজব জমাদিউস সানি ১৪৪১

ধর্মতত্ত্ব

যেসব কারণে ব্যভিচার বৈধ নয়

মাওলানা সাখাওয়াত উল্লাহ   

২০ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ব্যভিচারের কারণে বংশীয় ধারা এলোমেলো হয়ে যায়। আর সেটাও হত্যা ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির মূল উৎস হয়। এ জন্য আল্লাহ তাআলা সেটা নিষিদ্ধ করে ঘোষণা করেন—‘ব্যভিচার খুবই অশ্লীল ও মন্দ পথ, তাই তোমরা এর নিকটেও যেয়ো না।’

 

ইসলামে ব্যভিচার নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এর বিপরীতে বিবাহ বৈধ করা হয়েছে। কেননা জোড়ায় জোড়ায় নারী-পুরুষ সৃষ্টির প্রধান লক্ষ্য মানব বংশবিস্তার। ব্যভিচারের মাধ্যমে সে উদ্দেশ্য সাধিত হয় না। তা ছাড়া এর মাধ্যমে বংশীয় পবিত্রতা নষ্ট নয়। অন্যের অধিকারে হস্তক্ষেপ করা হয়। সমাজের পারিবারিক কাঠামো ভেঙে দেওয়া হয়। সমাজের অনাকাঙ্ক্ষিত শিশুর সংখ্যা বাড়ে। ব্যক্তিগত ও পারিবারিক জীবনে অস্থিরতা দেখা দেয়। প্রাণঘাতী রোগ বেড়ে যায়। ব্যভিচারকারী দারিদ্র্য ও অপমানে পতিত হয়।

ইসলামের এই নির্দেশনা মানুষের মানসিক সুস্থতা ও পরিশুদ্ধ সমাজ কাঠামো গঠনের জন্য দেওয়া হয়েছে। এর অন্যতম লক্ষ্য নারী নির্যাতন রুদ্ধ করা। নারীরা যেন নিশ্চিন্তে, নিরাপদে ও নির্বিঘ্নে সমাজে জীবনযাপন করতে পারে, ইসলাম সেদিকেই খেয়াল রেখেছে। তাই ব্যভিচারকে অশ্লীল ও নিকৃষ্ট কাজ ঘোষণার পাশাপাশি এর জন্য পার্থিব ও অপার্থিব শাস্তির ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

যারা ব্যভিচারে অভ্যস্ত, তারা নিজেরাও ভালো করে জানে যে আমরা গুনাহগার এবং লোকদের স্ত্রী-মেয়েদের সঙ্গে ব্যভিচার করছি। আর যদি কোনো লোক তার স্ত্রী ও বোনের সঙ্গে এ ধরনের অনৈতিক কাজে লিপ্ত হতো, তাহলে ক্রোধে ক্রোধান্বিত হয়ে যেত, তারা তো খুব ভালো করেই জানে যে মানুষের মধ্যে ওই খারাপ কাজের প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে আর এ ধরনের প্রতিক্রিয়া হওয়া শিষ্টাচারের জন্য অপূরণীয় ক্ষতি। কিন্তু এ সূত্রটি জানার পরও প্রবৃত্তি তাদেরকে অন্ধ বানিয়ে দিয়েছে। নগদ প্রাপ্তির প্রতিক্রিয়ার রহস্য হলো পরস্পরে জীবনযাপনে শিষ্টাচারের ক্ষেত্রে নারীদের তুলনায় পুরুষদের ক্ষমতা বেশি থাকে। এ জন্য আল্লাহ তাআলার অলৌকিক নীতি হলো প্রত্যেক ব্যক্তির স্ত্রী অন্যের থেকে ভিন্ন থাকবে। সে ক্ষেত্রে অন্য ব্যক্তি কোনো প্রকার ভিড় জমাবে না। ব্যভিচারের মূল কারণ হলো, এই ভিড় জমানো। সুতরাং একটি কারণ তো হলো, এটা স্বভাবজাত বিষয়। আর দ্বিতীয় কারণ হলো, এটা কল্যাণকর বিষয় যে ব্যভিচারের কারণে বংশীয় ধারা এলোমেলো হয়ে যায়। আর সেটাও হত্যা ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির মূল উৎস হয়। এ জন্য আল্লাহ তাআলা সেটা নিষিদ্ধ করে ঘোষণা করেন—‘ব্যভিচার খুবই অশ্লীল ও মন্দ পথ, তাই তোমরা এর নিকটেও যেয়ো না।’

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা