kalerkantho

সোমবার। ২৭ জানুয়ারি ২০২০। ১৩ মাঘ ১৪২৬। ৩০ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

আপনি যা জানতে চেয়েছেন

মন্দিরে নামাজ পড়া যাবে কি

২৬ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রশ্ন : মন্দিরে নামাজ পড়লে কি আদায় হবে?

—ইব্রাহিম সেলিম, রেলওয়ে ক্লাব, চাঁদপুর

 

উত্তর : আল্লাহ তায়ালা মুসলিমদের জন্য সমগ্র জায়গাকেই নামাজের উপযোগী বানিয়ে দিয়েছেন। তাই জলে-স্থলে, পাহাড়ে ও মহাশূন্যের যেকোনো পবিত্র জায়গায়ই নামাজ পড়লে তা আদায় হবে। অতএব, কোনো কারণে মন্দির বা বিধর্মীদের উপাসনালয়েও নামাজ পড়লে তা আদায় হয়ে যাবে। যদিও প্রয়োজন ছাড়া সেখানে নামাজের জন্য যাওয়া অনুচিত। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘আল্লাহর পক্ষ থেকে সমগ্র জমিনকেই আমাদের জন্য উপাসনালয় ও পবিত্রতার বস্তু (তায়াম্মুমের জন্য) হিসেবে বানানো হয়েছে।’ অর্থাৎ যেকোনো পবিত্র জায়গায়ই নামাজ শুদ্ধ হবে। (সহিহ বুখারি, হাদিস ৩৩৫)। তবে মূর্তি, ছবি বা উপাস্য বাতি ইত্যাদি সামনে নিয়ে নামাজ পড়া মাকরুহে তাহরিমি। কেননা এতে সেগুলো উপাসনাসদৃশ হয়ে যায়। তবে নামাজ আদায় হয়ে যাবে। (তাবঈনুল হাকায়েক ১/১৬৬, ফাতাওয়ায়ে হিন্দিয়া ১/১০৭)। এ ছাড়া আরো কিছু জায়গায়ও নামাজ পড়ার ব্যাপারে শরিয়তের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে, যথা—মানুষকে কষ্ট দিয়ে তাদের চলাচলের পথে নামাজে দাঁড়ানো, অপরিষ্কার দুর্গন্ধযুক্ত জায়গা, অন্যায়ভাবে জবরদখলকৃত কারো জায়গা, উট ও গরুর আস্তাবল, কবরস্থান ইত্যাদি জায়গায় নামাজ পড়া শরিয়তে নিষেধ। তবে ওই জায়গাগুলোও পাক হলে নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও নামাজ আদায় হয়ে যাবে। (সুনানে আবু দাউদ, হাদিস ৪৯৩, রদ্দুল মুহতার, ১/৩৭৯, ৩৮০)

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা