kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৯ নভেম্বর ২০১৯। ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

সিরাতের পাঠশালা

শত্রুর সঙ্গেও সুন্দর আচরণ

মুফতি তাজুল ইসলাম   

১৫ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শত্রুর সঙ্গেও সুন্দর আচরণ

রাসুল (সা.) কাফিরদের সঙ্গেও সুন্দর আচরণ করতেন। দ্বিনের দাওয়াত দিতেন তাদের। ফলে তাদের কাছে নির্যাতন ও নিপীড়নের শিকার হতে হতো। তাদের সব ধরনের আঘাত তিনি সয়ে যেতেন নীরবে। এ জন্য আল্লাহ তাআলা তার ব্যাপারে বলেছেন, ‘আমি আপনাকে উভয় জগতের জন্য রহমতস্বরূপ পাঠিয়েছি।’ (সুরা আনবিয়া, আয়াত : ১০৭)

ইহুদিদের কথা চিন্তা করুন। তারা সর্বদা রাসুল (সা.)-কে কষ্ট দিত। তাঁর সঙ্গে তাদের কঠিন শত্রুতা। তা সত্ত্বেও তাদের সঙ্গে রাসুল (সা.)-এর ছিল সুন্দর আচার-ব্যবহার। আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত, একবার রাসুল (সা.)-এর ঘরের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় ইহুদিরা তাঁকে সালাম দেয়। সালামে তারা বলল, ‘আস সামু আলাইকুম ইয়া মুহাম্মাদ (হে মুহাম্মাদ, আপনার মরণ হোক)।’ রাসুল (সা.) শান্তভাবে বলেন, ‘ওয়ালাইকুম।’ (তোমাদের ওপর অবতীর্ণ হোক)। কিন্তু আয়েশা (রা.) এমন কথা সহ্য করতে পারলেন না। তিনি প্রত্যুত্তরে বলেন, ‘ওয়ালাইকুমুস সাম, ওয়া লাআনাকুমুল্লাহ, ওয়া গাদাবা আলাইকুম (তোমাদের মরণ আসুক, আল্লাহ তাআলা তোমাদের ওপর অভিসম্পাত করুন, তোমাদের ওপর ক্রোধান্বিত হোন)।’ রাসুল (সা.) বলেন, ‘রাখো, আয়েশা। সবার সঙ্গে সুন্দর ব্যবহার করা তোমার কর্তব্য। কঠোরতা ও অশ্লীলতা পরিহার করো।’ আয়েশা (রা.) বলেন, ‘হে আল্লাহর রাসুল, তারা কী বলেছে, আপনি শোনেননি?’ রাসুল (সা.) বলেন, ‘আমি কী বলেছি তুমি শোননি? আমিও তাদের কথার জবাব দিয়েছি। তাদের ব্যাপারে আমার দোয়া গ্রহণ করা হয়েছে। কিন্তু আমার জন্য তাদের দোয়া গ্রহণ করা হয়নি।’

গালমন্দের পরিবর্তে গালমন্দ দিতে পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তাআলা নিষেধ করেছেন। তিনি ইরশাদ করেন, ‘আর আপনি মূর্খদের থেকে বিরত থাকুন।’ (সুরা আরাফ, আয়াত : ১৯৯)

আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.)-এর এক ইহুদি প্রতিবেশী ছিল। সে অসুস্থ হয়। রাসুল (সা.) তাকে দেখতে যান। সে খুব ছোট ছিল। রাসুল (সা.) তার শিয়রে দাঁড়িয়ে বলেন, ‘হে বালক বলো, লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ।’ ছেলেটি তার বাবার দিকে তাকায়। তার বাবা চুপ হয়ে আছে। রাসুল (সা.) আবার তাকে বলেন, ‘হে বালক বলো, লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ।’ ইহুদিরা জানত, রাসুল (সা.) সত্যের ওপর প্রতিষ্ঠিত। অহংকার তাদের আল্লাহর রাসুলের অনুসরণে বাধা দেয়। ছেলেটি তার বাবার দিকে আবার তাকায়। তখন তার বাবা বলল, আবুল কাসেমের অনুসরণ করো। ছেলেটি বলল, আশহাদু আল্লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়া আশহাদু আন্নাকা রাসুলুল্লাহ। এর অর্থ হলো, আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি, আল্লাহ ছাড়া কোনো মাবুদ নেই এবং আপনি আল্লাহর রাসুল। রাসুল (সা.) তার কথা শুনে খুব আনন্দিত হন। অতঃপর তার কাছ থেকে ফিরে আসেন। ঘরের দরজার কাছে আসতেই রাসুল (সা.) আওয়াজ শোনেন। তখন ছেলেটি মারা যায়। রাসুল (সা.) আসমানের দিকে তাকিয়ে বলেন, ‘সব প্রশংসা আল্লাহর, যিনি এই ছেলেকে আমার মাধ্যমে জাহান্নাম থেকে রক্ষা করেছেন।’

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা