kalerkantho

ধারাবাহিক তাফসির

আল্লাহর ভালোবাসা পেতে চাইলে

গ্রন্থনা : মুফতি কাসেম শরীফ   

৮ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



৯৬. যারা ঈমান আনে ও সৎকর্ম করে, দয়াময় (আল্লাহ) অবশ্যই তাদের জন্য সৃষ্টি করবেন ভালোবাসা। (সুরা : মারইয়াম, আয়াত : ৯৬)

 

তাফসির : আগের আয়াতে বলা হয়েছিল, কিয়ামতের দিন সবাইকে একাকী হাজির করা হবে। সেদিন কেউ কারো কোনো উপকার করতে পারবে না। তবে সেই বিভীষিকাময় পরিস্থিতিতেও ঈমানদারদের কোনো ক্ষতি হবে না। তাঁরা আল্লাহর ভালোবাসা লাভে ধন্য হবেন। আলোচ্য আয়াতে সেসব ঈমানদার সম্পর্কে বর্ণনা করা হয়েছে। এখানে বলা হয়েছে, সৎকর্মশীল ও নেককার বান্দারা মহান আল্লাহর ভালোবাসা লাভে ধন্য হবেন। নেক আমলের অন্যতম প্রতিদান হিসেবে তাঁদের অন্তরে আল্লাহর অগাধ ভালোবাসা সৃষ্টি হয় এবং আল্লাহও তাঁদের ভালোবাসেন। হাদিস শরিফে এসেছে, আল্লাহ কোনো বান্দাকে ভালোবাসলে আসমান ও জমিনে তার ঘোষণা দেওয়া হয়। তখন পর্যায়ক্রমে সৃষ্টিজগৎ ওই ব্যক্তিকে ভালোবাসতে থাকে।

আল্লাহ তাআলা যাঁদের ভালোবাসেন

মহান আল্লাহ যাঁদের ভালোবাসেন তা পবিত্র কোরআনে বিধৃত হয়েছে। যথা—‘আল্লাহ সৎকর্মশীলদের ভালোবাসেন।’ (সুরা : বাকারা, আয়াত : ১৯৫) ‘আল্লাহ পবিত্রদের ভালোবাসেন। (সুরা : তাওবা, আয়াত : ১০৮) ‘আল্লাহ তাওবাকারীদের ভালোবাসেন।’ (সুরা : বাকারা, আয়াত : ২২২) ‘আল্লাহ মুত্তাকিদের ভালোবাসেন।’ (সুরা : আলে ইমরান, আয়াত : ৭৬) ‘আল্লাহ ধৈর্যশীলদের ভালোবাসেন।’ (সুরা : আলে ইমরান, আয়াত : ১৪৬) ‘আল্লাহ (তাঁর ওপর) নির্ভরকারীদের ভালোবাসেন।’ (সুরা : আলে ইমরান,  আয়াত : ১৫৯) ‘আল্লাহ ন্যায়নিষ্ঠদের ভালোবাসেন।’    (সুরা : মায়িদা, আয়াত : ৪২)

আল্লাহ তাআলা যাদের ভালোবাসেন না

মহান আল্লাহ যাদের ভালোবাসেন না, তা-ও পবিত্র কোরআনে বিধৃত হয়েছে। যথা—‘আল্লাহ সীমা লঙ্ঘনকারীদের ভালোবাসেন না।’ (সুরা : বাকারা, আয়াত : ১৯০) ‘আল্লাহ অকৃতজ্ঞদের ভালোবাসেন না।’ (সুরা : আলে ইমরান, আয়াত : ৩২) ‘আল্লাহ জালিমদের ভালোবাসেন না।’ (সুরা : আলে ইমরান, আয়াত : ৫৭) ‘আল্লাহ অহংকারকারীদের ভালোবাসেন না।’ (সুরা : নাহল, আয়াত : ১৯০) ‘আল্লাহ অপব্যয়কারীদের ভালোবাসেন না।’ (সুরা : আনআম, আয়াত : ১৪১) ‘আল্লাহ আমানতের খিয়ানতকারীদের ভালোবাসেন না।’ (সুরা : আনফাল, আয়াত : ৫৮) ‘আল্লাহ ফ্যাসাদকারীদের ভালোবাসেন না।’ (সুরা : মায়িদা, আয়াত : ৬৪)

মন্তব্য