kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০২২ । ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

উদ্যোক্তা হওয়ার পথে বড় বাধা কর্মকর্তাদের দুর্নীতি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩ অক্টোবর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



উদ্যোক্তা হওয়ার পথে বড় বাধা কর্মকর্তাদের দুর্নীতি

ব্যবসা শুরু করতে পদে পদে হয়রান হতে হচ্ছে উদ্যোক্তাদের। একটি ছোট কারখানা স্থাপন করতে গিয়ে পদে পদে ঘুষ দিতে হয়, বছরের পর বছর পার হয়ে যায়। শুধু সরকারি কর্মকর্তাদের ঘুষ-দুর্নীতির কারণে ছোট উদ্যোক্তারা তো মনোবল হারানই, বড় শিল্প উদ্যোক্তারাও বিপাকে পড়েন।

গতকাল রবিবার রাজধানীর ওয়েস্টিন হোটেলে বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) আয়োজিত ‘সেটিং আপ আ ফ্যাক্টরি ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন ব্যবসায়ী নেতারা।

বিজ্ঞাপন

সিপিডির গবেষণা পরিচালক খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) সভাপতি ফারুক হাসান, ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এফবিসিসিআই) সহসভাপতি মো. মোয়াজ্জেম, বাংলাদেশ নিটওয়্যার ম্যানুফ্যাকচার অ্যাসোসিয়েশনের (বিকেএমইএ) নির্বাহী সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম, লেদার গুডস অ্যান্ড ফুটওয়্যার ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্সের সভাপতি সৈয়দ নাসিম মঞ্জুর প্রমুখ। অনুষ্ঠানে সিপিডির উদ্যোগে ‘ফ্যাক্টরি সেটআপবিডি ডটকম’ নামের ওয়েবসাইট সম্পর্কে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সংস্থাটির গবেষণা পরিচালক হেলেন মাশিয়াত প্রিয়তি।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এফবিসিসিআইয়ের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, ‘উদ্যোক্তা হওয়ার পথে সরকারি কর্মকর্তাদের ঘুষ-দুর্নীতিই প্রথম বাধা। কিন্তু এসব কর্মকর্তার ঘুষ-দুর্নীতির পরও দেশ এত দূর এগিয়েছে শুধু ব্যবসায়ীদের সাহসের কারণে। ব্যবসায়ীরা এত কষ্ট করে ব্যবসা করছেন, যা পৃথিবীতে বিরল। ’

তিনি বলেন, ‘ব্যবসায়ী সংগঠনগুলো প্রতিবছর শত শত সভা-সেমিনার করে, কিন্তু সেখানে সরকারি অফিসগুলোর ডেস্ক অফিসারদের অংশগ্রহণ থাকে না। এতে ফল শূন্য হয়। ছোট ছোট ব্যবসায়ীদের গড়ে তোলার জন্য ১৮ জন উপদেষ্টা নিয়েছে এফবিসিসিআই। গত চার বছর আমরা কাজ করতে পারিনি, কিন্তু এখন আমরা শুরু করেছি। ’

মোহাম্মদ হাতেম বলেন, সিপিডির এ ধরনের ওয়েবসাইট নির্মাণের উদ্যোগ আরো আগেই নেওয়া দরকার ছিল। কারণ কিভাবে কারখানা করতে হয় তা না জানার কারণে নতুন উদ্যোক্তারা নানা হয়রানির শিকার হন। শুধু ফাইল দুর্নীতি না, ডকুমেন্টেশনের বাইরে নন-ডকুমেন্টেশনে যে দুর্নীতি হয় তাতে টিকে থাকা কঠিন।

তিনি দুর্নীতির আরো চিত্র তুলে ধরে বলেন, কিছুদিন আগে বিসিকের রেজিস্ট্রেশন পাওয়ার জন্য আমার এক ছোট ভাই আইআরসি করবে। সে আবেদনের এক মাসেও না পাওয়ায় আমার কাছে এসেছিল। তার কাছে নাকি প্রত্যয়নপত্রের জন্য ৫০ হাজার টাকা ঘুষ চাচ্ছে। আমি বিসিকের ডিরেক্টরকে ফোন দিলে তিনি তখনই সই করে দেন। কিন্তু এর পরও কর্মকর্তারা ফাইল ছাড়েন না। ’

বিজিএমইএর সভাপতি ফারুক হাসান বলেন, ‘আমাদের হয়রানির অভাব নেই। নতুন করে বাংলাদেশ ব্যাংক বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে নির্দেশনা দিয়ে জানাল, সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে ঋণ দিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমোদন লাগবে। এটাও এক ধরনের হয়রানি। ’

নাসিম মঞ্জুর বলেন, ‘আমাদের সমস্যা দুটি, গো ফরোয়ার্ড, এর পরই আবার গো ব্যাকওয়ার্ড। দেশের রপ্তানিকারকদের এক নম্বর সমস্যা কাস্টমস অ্যান্ড বন্ড লাইসেন্স। ’



সাতদিনের সেরা